একাদশে ভর্তির আবেদনে সতর্ক থাকার নির্দেশ

‘কয়েকটি ভুয়া ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আবেদন করে শিক্ষার্থীরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে’ এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে উচ্চ মাধ্যমিক বা একাদশ শ্রেণীতে ভর্তির অনলাইন আবেদনের ক্ষেত্রে শিক্ষা বোর্ডের নির্দিষ্ট ওয়েবসাইট থেকে আবেদন করতে বলা হয়েছে। এর বাইরে ভুয়া ওয়েবসাইটের বিজ্ঞাপন থেকে আবেদন করে কোন শিক্ষার্থী ও অভিভাবক প্রতারিত হলে বোর্ড কর্তৃপক্ষ দায় নেবে না বলেও এক অফিস আদেশে জানানো হয়েছে।

গতকাল আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় কমিটির সভাপতি এবং ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক নেহাল আহমেদের সই করা অফিস আদেশে এ কথা বলা হয়।

অফিস আদেশে বলা হয়, ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষে একাদশ শ্রেণীতে অনলাইনের মাধ্যমে ভর্তি কার্যক্রমে লক্ষ্য করা যাচ্ছে, কিছু প্রতারকচক্র সংশ্লিষ্ট শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের থেকে সুকৌশলে শিক্ষার্থীর এসএসসি পরীক্ষার তথ্য সংগ্রহ করে তাদের অনুমতি ছাড়াই অনলাইনে ভর্তির আবেদন করছে। শিক্ষার্থী ও অভিভাবকসহ সবাইকে এ ধরনের প্রতারকচক্র থেকে সাবধান থাকতে হবে। শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সঙ্গে প্রতারণায় জড়িত কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে প্রমাণ পাওয়া গেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে তাদের প্যানেল বা সার্ভার বন্ধসহ পাঠদান স্থগিত করা হবে।

বোর্ডের নির্ধারিত ভর্তি ওয়েবসাইট ছাড়া অন্য কোনও ভুয়া ওয়েবসাইটের বিজ্ঞাপন থেকে আবেদন করে কোন শিক্ষার্থী ও অভিভাবক প্রতারিত হলে বোর্ড কর্তৃপক্ষ কোনভাবেই দায় নেবে না বলেও অফিস আদেশে উল্লেখ করা হয়। এ প্রসঙ্গে ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক নেহাল আহমেদ বলেন, ‘কয়েকটি ভুয়া ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আবেদন করে শিক্ষার্থীরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বলে আমাদের কাছে অভিযোগ এসেছে। তাই সবাইকে সতর্ক করার জন্য আজ অফিস আদেশ জারি করা হয়েছে।’

গত ৮ জানুয়ারি উচ্চ মাধ্যমিক বা একাদশ শ্রেণীতে শিক্ষার্থীদের ভর্তি অনলাইনে আবেদন শুরু হয়। আবেদন করা যাবে ১৫ জানুয়ারি পর্যন্ত। আগে এসএমএসের মাধ্যমে ভর্তির আবেদনের সুযোগ থাকলেও এবার শুধু অনলাইনেই আবেদন করতে হবে। ভর্তি কার্যক্রম শেষে আগামী ২ মার্চ থেকে শুরু হবে একাদশ শ্রেণীর ক্লাস।

বৃহস্পতিবার, ১৩ জানুয়ারী ২০২২ , ২৯ পৌষ ১৪২৮ ৯ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

একাদশে ভর্তির আবেদনে সতর্ক থাকার নির্দেশ

‘কয়েকটি ভুয়া ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আবেদন করে শিক্ষার্থীরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে’ এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে উচ্চ মাধ্যমিক বা একাদশ শ্রেণীতে ভর্তির অনলাইন আবেদনের ক্ষেত্রে শিক্ষা বোর্ডের নির্দিষ্ট ওয়েবসাইট থেকে আবেদন করতে বলা হয়েছে। এর বাইরে ভুয়া ওয়েবসাইটের বিজ্ঞাপন থেকে আবেদন করে কোন শিক্ষার্থী ও অভিভাবক প্রতারিত হলে বোর্ড কর্তৃপক্ষ দায় নেবে না বলেও এক অফিস আদেশে জানানো হয়েছে।

গতকাল আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় কমিটির সভাপতি এবং ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক নেহাল আহমেদের সই করা অফিস আদেশে এ কথা বলা হয়।

অফিস আদেশে বলা হয়, ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষে একাদশ শ্রেণীতে অনলাইনের মাধ্যমে ভর্তি কার্যক্রমে লক্ষ্য করা যাচ্ছে, কিছু প্রতারকচক্র সংশ্লিষ্ট শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের থেকে সুকৌশলে শিক্ষার্থীর এসএসসি পরীক্ষার তথ্য সংগ্রহ করে তাদের অনুমতি ছাড়াই অনলাইনে ভর্তির আবেদন করছে। শিক্ষার্থী ও অভিভাবকসহ সবাইকে এ ধরনের প্রতারকচক্র থেকে সাবধান থাকতে হবে। শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সঙ্গে প্রতারণায় জড়িত কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে প্রমাণ পাওয়া গেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে তাদের প্যানেল বা সার্ভার বন্ধসহ পাঠদান স্থগিত করা হবে।

বোর্ডের নির্ধারিত ভর্তি ওয়েবসাইট ছাড়া অন্য কোনও ভুয়া ওয়েবসাইটের বিজ্ঞাপন থেকে আবেদন করে কোন শিক্ষার্থী ও অভিভাবক প্রতারিত হলে বোর্ড কর্তৃপক্ষ কোনভাবেই দায় নেবে না বলেও অফিস আদেশে উল্লেখ করা হয়। এ প্রসঙ্গে ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক নেহাল আহমেদ বলেন, ‘কয়েকটি ভুয়া ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আবেদন করে শিক্ষার্থীরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বলে আমাদের কাছে অভিযোগ এসেছে। তাই সবাইকে সতর্ক করার জন্য আজ অফিস আদেশ জারি করা হয়েছে।’

গত ৮ জানুয়ারি উচ্চ মাধ্যমিক বা একাদশ শ্রেণীতে শিক্ষার্থীদের ভর্তি অনলাইনে আবেদন শুরু হয়। আবেদন করা যাবে ১৫ জানুয়ারি পর্যন্ত। আগে এসএমএসের মাধ্যমে ভর্তির আবেদনের সুযোগ থাকলেও এবার শুধু অনলাইনেই আবেদন করতে হবে। ভর্তি কার্যক্রম শেষে আগামী ২ মার্চ থেকে শুরু হবে একাদশ শ্রেণীর ক্লাস।