ডাকাত সন্দেহে গণপিটুনিতে ৩ জন নিহত

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে ডাকাত সন্দেহে গণপিটুনি দিয়ে তিনজনকে হত্যা করেছে ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল ভোর ৫টার দিকে উপজেলার হাইজাদী ইউনিয়নের ইলমদী বেনজিরের বাগের সামনে পাকা রাস্তায়। আড়াইহাজার থানা পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, ইলমদী বেনজিরের বাগের সামনে পাকা রাস্তায় কলাগাছ ফেলে ব্যারিকেড দিয়ে ফকির ফ্যাশনের একটি শ্রমিকবাহী লেগুনা আটকায় একদল ডাকাত। ওই সময় শ্রমিকরা চিৎকার করলে স্থানীয় লোকজন এলাকাটি চারদিক থেকে ঘিরে ফেলে ডাকাতদের ধাওয়া দেয়। পরে শ্রমিক ও এলাকাবাসী ঘটনাস্থল থেকে তিনজনকে আটক করে গণপিটুনি দিয়ে সড়কের পাশে ফেলে রাখে। ঘটনাস্থলে একটি লেগুনাও ভাঙচুড় করে জনতা। সকালে খবর পেয়ে আড়াইহাজার থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে তিনজনের মরদেহ উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাদের মৃত ঘোষণা করেন। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. আশরাফুল আমিন জানান, যে তিনজনকে হাসপাতালে আনা হয়েছে তারা হাসপাতালে আনার আগেই মৃত্যু হয়।

সন্দেহভাজন নিহত ডাকাত তিনজন হলো সোনারগাঁ উপজেলার বস্তল এলাকার সিরাজুল ইসলামের ছেলে মফিজুল ইসলাম (২৫), একই এলাকার হাবিবুর রহমানের ছেলে জহিরুল ইসলাম (২৭) ও আড়াইহাজার উপজেলার মাধবদী এলাকার মোতালেব মিয়ার ছেলে নবী হোসেন (৩০)।

ইলমদী এলাকায় লোকজন জানান, ভোরে সড়কে ডাকাতি হয়েছে খবর পেয়ে বহু লোকজন ঘটনাস্থলে গিয়েছে। নিহতদের মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে ধারালো অস্ত্রের আঘাত রয়েছে। নিহত মফিজুলের মা মনোয়ারা বেগম জানান, তার ছেলে গ্রামীণ টেক্সটাইলের শ্রমিকবাহী লেগুনার চালক। সে ভোর সাড়ে ৪টার দিকে বাড়ি থেকে লেগুনা নিয়ে বের হয়ে যায়। তার ছেলে খেটেখাওয়া মানুষ, কোন খারাপ কাজের সঙ্গে সে জড়িত নয়। নিহত জহিরুল ইসলামের মামা আক্তারুজ্জামান ভূঁইয়া জানান, তার ভাগিনা দীর্ঘদিন সৌদী ছিল। কিছুদিন আগে সৌদী থেকে এসে সে গাড়ির ব্যবসা শুরু করে। তার একটি লেগুনা নিহত মফিজুল চালাত। সে এলাকায় ভদ্র ও মার্জিন ছেলে হিসেবে পরিচিত। ভোর রাতে সে তার গাড়িচালক মফিজুলকে নিয়ে বের হয়েছিল। বস্তল এলাকার পরিমল বিশ্বাস জানান, নিহত দুজন এলাকায় ভালো লোক হিসেবে পরিচিত। তাদের বিরুদ্ধে এলাকায় কোন অভিযোগ নাই বলে সে জানায়। নিহত নবী হোসেন ও লেগুনা চালাতো বলে স্থানীয় লোকজন জানান।

আড়াইহাজার থানার উপরিদর্শক আবদুর রহমান ঢালী জানান, স্থানীয় লোকজনদের মাধ্যমে জানতে পেরে সকালে ঘটনাস্থল থেকে নিহতদের লাশ উদ্ধার করা হয়। ঘটনা ও নিহতদের ব্যাপারে খোঁজখবর নেয়া হচ্ছে বলে তিনি জানান। পুলিশ ময়নাতদন্তের জন্য লাশ নারায়ণগঞ্জ ভিক্টোরিয়া জেনারেল হাসপাতালে পাঠিয়েছে। আড়াইহাজার থানার অফিসার ইনচার্জ আনিচুর রহমান মোল্লা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ডাকাতি ও হত্যার ঘটনাটি তদন্ত করা হচ্ছে এবং মামলার প্রস্তুতি চলছে।

শুক্রবার, ১৪ জানুয়ারী ২০২২ , ৩০ পৌষ ১৪২৮ ১০ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

আড়াইহাজারে

ডাকাত সন্দেহে গণপিটুনিতে ৩ জন নিহত

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে ডাকাত সন্দেহে গণপিটুনি দিয়ে তিনজনকে হত্যা করেছে ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল ভোর ৫টার দিকে উপজেলার হাইজাদী ইউনিয়নের ইলমদী বেনজিরের বাগের সামনে পাকা রাস্তায়। আড়াইহাজার থানা পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, ইলমদী বেনজিরের বাগের সামনে পাকা রাস্তায় কলাগাছ ফেলে ব্যারিকেড দিয়ে ফকির ফ্যাশনের একটি শ্রমিকবাহী লেগুনা আটকায় একদল ডাকাত। ওই সময় শ্রমিকরা চিৎকার করলে স্থানীয় লোকজন এলাকাটি চারদিক থেকে ঘিরে ফেলে ডাকাতদের ধাওয়া দেয়। পরে শ্রমিক ও এলাকাবাসী ঘটনাস্থল থেকে তিনজনকে আটক করে গণপিটুনি দিয়ে সড়কের পাশে ফেলে রাখে। ঘটনাস্থলে একটি লেগুনাও ভাঙচুড় করে জনতা। সকালে খবর পেয়ে আড়াইহাজার থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে তিনজনের মরদেহ উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাদের মৃত ঘোষণা করেন। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. আশরাফুল আমিন জানান, যে তিনজনকে হাসপাতালে আনা হয়েছে তারা হাসপাতালে আনার আগেই মৃত্যু হয়।

সন্দেহভাজন নিহত ডাকাত তিনজন হলো সোনারগাঁ উপজেলার বস্তল এলাকার সিরাজুল ইসলামের ছেলে মফিজুল ইসলাম (২৫), একই এলাকার হাবিবুর রহমানের ছেলে জহিরুল ইসলাম (২৭) ও আড়াইহাজার উপজেলার মাধবদী এলাকার মোতালেব মিয়ার ছেলে নবী হোসেন (৩০)।

ইলমদী এলাকায় লোকজন জানান, ভোরে সড়কে ডাকাতি হয়েছে খবর পেয়ে বহু লোকজন ঘটনাস্থলে গিয়েছে। নিহতদের মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে ধারালো অস্ত্রের আঘাত রয়েছে। নিহত মফিজুলের মা মনোয়ারা বেগম জানান, তার ছেলে গ্রামীণ টেক্সটাইলের শ্রমিকবাহী লেগুনার চালক। সে ভোর সাড়ে ৪টার দিকে বাড়ি থেকে লেগুনা নিয়ে বের হয়ে যায়। তার ছেলে খেটেখাওয়া মানুষ, কোন খারাপ কাজের সঙ্গে সে জড়িত নয়। নিহত জহিরুল ইসলামের মামা আক্তারুজ্জামান ভূঁইয়া জানান, তার ভাগিনা দীর্ঘদিন সৌদী ছিল। কিছুদিন আগে সৌদী থেকে এসে সে গাড়ির ব্যবসা শুরু করে। তার একটি লেগুনা নিহত মফিজুল চালাত। সে এলাকায় ভদ্র ও মার্জিন ছেলে হিসেবে পরিচিত। ভোর রাতে সে তার গাড়িচালক মফিজুলকে নিয়ে বের হয়েছিল। বস্তল এলাকার পরিমল বিশ্বাস জানান, নিহত দুজন এলাকায় ভালো লোক হিসেবে পরিচিত। তাদের বিরুদ্ধে এলাকায় কোন অভিযোগ নাই বলে সে জানায়। নিহত নবী হোসেন ও লেগুনা চালাতো বলে স্থানীয় লোকজন জানান।

আড়াইহাজার থানার উপরিদর্শক আবদুর রহমান ঢালী জানান, স্থানীয় লোকজনদের মাধ্যমে জানতে পেরে সকালে ঘটনাস্থল থেকে নিহতদের লাশ উদ্ধার করা হয়। ঘটনা ও নিহতদের ব্যাপারে খোঁজখবর নেয়া হচ্ছে বলে তিনি জানান। পুলিশ ময়নাতদন্তের জন্য লাশ নারায়ণগঞ্জ ভিক্টোরিয়া জেনারেল হাসপাতালে পাঠিয়েছে। আড়াইহাজার থানার অফিসার ইনচার্জ আনিচুর রহমান মোল্লা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ডাকাতি ও হত্যার ঘটনাটি তদন্ত করা হচ্ছে এবং মামলার প্রস্তুতি চলছে।