কিশোরগঞ্জে নির্মাণ হচ্ছে শেখ কামাল আইটি পার্ক

থাকবে শিশুপার্ক, শিশু একাডেমি পরিবহন পুল

কিশোরগঞ্জে বিশাল জায়গার ওপর নির্মিত হচ্ছে ‘শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং এন্ড ইনকিউবেশন সেন্টার’। ২০১৩ সাল থেকে আইটি পার্ক বা আইটি ভিলেজ নির্মাণের উদ্যোগটি শুরু হলেও জায়গা নির্বচনের সমস্যার কারণে এতদিন উদ্যোগটি এগুতে পারেনি। শহরতলির শোলমারা এলাকায় সদর উপজেলা কমপ্লেক্স সংলগ্ন গণপূর্ত বিভাগের ২৮ একর পরিত্যক্ত নিচু জায়গা রয়েছে। সেখান থেকে ২০১৮ সনের ৩ জুলাই তৎকালীন জেলা প্রশাসক সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী ৫ একর জায়গার ওপর এই আইটি ট্রেনিং সেন্টারটি নির্মাণের জন্য আইসিটি মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠিয়েছিলেন। আর বর্তমান জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শামীম আলমের সময়ে এসে এর নির্মাণকাজ শুরু হলো। এখন চলছে মাটি ভরাটের কাজ।

রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ কিশোরগঞ্জে এক সপ্তাহের সফরে এসে গত ১৮ নভেম্বর সার্কিট হাউজে শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং এন্ড ইনকিউবেশন সেন্টারের ওপর পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশনও দেখেছিলেন। গণপূর্তের এই বিশাল জায়গার ওপর আইটি ট্রেনিং সেন্টারের পাশাপাশি রাষ্ট্রপতির আগ্রহে একটি শিশুপার্ক, শিশু একাডেমি এবং পরিবহন পুল নির্মাণেরও কথা রয়েছে।

সরকার ২০২০ সালের মধ্যে দেশের ১২টি জেলায় এ ধরনের উন্নত মানের আইটি পার্ক বা আইটি ভিলেজ প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিয়েছিল বলে জানা গেছে। পর্যায়ক্রমে দেশের সব জেলাতেই এ ধরনের আইটি ভিলেজ স্থাপিত হবে। দেশের তথ্য প্রযুক্তি বা কম্পিউটার প্রযুক্তিনির্ভর তরুণ উদ্যোক্তাদের কর্মসংস্থানসহ বিশ্বমানের সফটওয়্যার উদ্ভাবনের লক্ষ্যেই সরকার এ ধরনের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। কিশোরগঞ্জে এ ধরনের আইটি পার্ক প্রতিষ্ঠা হলে স্থানীয় উদ্যোক্তাদের জন্য যেমন আধুনিক তথ্য প্রযুক্তিতে দক্ষতা উন্নয়নের সুযোগ হাতের নাগালের মধ্যে চলে আসবে, কিশোরগঞ্জও আধুনিক তথ্য প্রযুক্তির মিছিলে সামিল হবে বলে মনে করা হচ্ছে। সেই সঙ্গে সামগ্রিকভাবে দেশের তথ্যপ্রযুক্তিগত উন্নয়নেও সাফল্য আসবে। বিশ্বের আধুনিক তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর দেশসমূহের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাংলাদেশও এগিয়ে যাবে এবং অনেক দেশকে ছাড়িয়ে যাবে বলে আশা করা হচ্ছে।

শনিবার, ১৫ জানুয়ারী ২০২২ , ০১ মাঘ ১৪২৮ ১১ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

কিশোরগঞ্জে নির্মাণ হচ্ছে শেখ কামাল আইটি পার্ক

থাকবে শিশুপার্ক, শিশু একাডেমি পরিবহন পুল
image

কিশোরগঞ্জ : শেখ কামাল আইটি পার্কের মাটি ভরাটের কাজ চলছে -সংবাদ

কিশোরগঞ্জে বিশাল জায়গার ওপর নির্মিত হচ্ছে ‘শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং এন্ড ইনকিউবেশন সেন্টার’। ২০১৩ সাল থেকে আইটি পার্ক বা আইটি ভিলেজ নির্মাণের উদ্যোগটি শুরু হলেও জায়গা নির্বচনের সমস্যার কারণে এতদিন উদ্যোগটি এগুতে পারেনি। শহরতলির শোলমারা এলাকায় সদর উপজেলা কমপ্লেক্স সংলগ্ন গণপূর্ত বিভাগের ২৮ একর পরিত্যক্ত নিচু জায়গা রয়েছে। সেখান থেকে ২০১৮ সনের ৩ জুলাই তৎকালীন জেলা প্রশাসক সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী ৫ একর জায়গার ওপর এই আইটি ট্রেনিং সেন্টারটি নির্মাণের জন্য আইসিটি মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠিয়েছিলেন। আর বর্তমান জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শামীম আলমের সময়ে এসে এর নির্মাণকাজ শুরু হলো। এখন চলছে মাটি ভরাটের কাজ।

রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ কিশোরগঞ্জে এক সপ্তাহের সফরে এসে গত ১৮ নভেম্বর সার্কিট হাউজে শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং এন্ড ইনকিউবেশন সেন্টারের ওপর পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশনও দেখেছিলেন। গণপূর্তের এই বিশাল জায়গার ওপর আইটি ট্রেনিং সেন্টারের পাশাপাশি রাষ্ট্রপতির আগ্রহে একটি শিশুপার্ক, শিশু একাডেমি এবং পরিবহন পুল নির্মাণেরও কথা রয়েছে।

সরকার ২০২০ সালের মধ্যে দেশের ১২টি জেলায় এ ধরনের উন্নত মানের আইটি পার্ক বা আইটি ভিলেজ প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিয়েছিল বলে জানা গেছে। পর্যায়ক্রমে দেশের সব জেলাতেই এ ধরনের আইটি ভিলেজ স্থাপিত হবে। দেশের তথ্য প্রযুক্তি বা কম্পিউটার প্রযুক্তিনির্ভর তরুণ উদ্যোক্তাদের কর্মসংস্থানসহ বিশ্বমানের সফটওয়্যার উদ্ভাবনের লক্ষ্যেই সরকার এ ধরনের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। কিশোরগঞ্জে এ ধরনের আইটি পার্ক প্রতিষ্ঠা হলে স্থানীয় উদ্যোক্তাদের জন্য যেমন আধুনিক তথ্য প্রযুক্তিতে দক্ষতা উন্নয়নের সুযোগ হাতের নাগালের মধ্যে চলে আসবে, কিশোরগঞ্জও আধুনিক তথ্য প্রযুক্তির মিছিলে সামিল হবে বলে মনে করা হচ্ছে। সেই সঙ্গে সামগ্রিকভাবে দেশের তথ্যপ্রযুক্তিগত উন্নয়নেও সাফল্য আসবে। বিশ্বের আধুনিক তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর দেশসমূহের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাংলাদেশও এগিয়ে যাবে এবং অনেক দেশকে ছাড়িয়ে যাবে বলে আশা করা হচ্ছে।