ঢাবির সাবেক অধ্যাপক সাহিদা খুন, লাশ মিললো জঙ্গলে

ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের প্রফেসর (অবসরপ্রাপ্ত) সাহিদা গাফফারকে (৭১) গাজীপুর সিটি করপোরেশনের কাশিমপুর এলাকায় শ^াসরোধে হত্যা করা হয়েছে। গতকাল বেলা ১১টার দিকে কাশিমপুরের পানিশাইল এলাকায় অবস্থিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক আবাসন প্রকল্পের ভেতরে একটি জঙ্গল থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। নিহত সাহিদা গাফফার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পুষ্টিবিজ্ঞান বিভাগের সাবেক প্রফেসর ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক প্রফেসর মৃত কিবরিয়াউল খালেকের স্ত্রী। এ ঘটনায় নিহত সাহিদা গাফফারের নির্মাণাধীন বাড়ির রাজমিস্ত্রী আনারুল ইসলামকে (২৫) গত বৃহস্পতিবার রাতে গাইবান্ধা থেকে গ্রেপ্তার করেছে গাজীপুর মেট্রোপলিটন কাশিমপুর থানা পুলিশ। সে গাইবান্ধার সাদুল্লাহপুর থানার বুর্জুগ জামালপুর গ্রামের আনসার আলীর ছেলে। বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, ২০১৬ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অবসর গ্রহণ করেন প্রফেসর সাহিদা গাফফার। পানিশাইল এলাকায় অবস্থিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক আবাসন প্রকল্পের ভেতরে বাড়ি নির্মাণ করার সুবাদে তিনি গত ১১ মাস আগে স্থানীয় জনৈক মোশারফ মৃধার বাড়িতে ভাড়ায় একাই বসবাস শুরু করেন। গত মঙ্গলবার সন্ধ্যা থেকে তার ছেলে-মেয়েরা কেউ তার সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারছিল না। পরে তার মেয়ে সাহিদা আফরিন গত বৃহস্পতিবার ১৩ জানুয়ারি কাশিমপুর থানায় একটি সাধারণ ডাইরি করেছিলেন।

গাজীপুর মেট্রোপলিটন কাশিমপুর থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) শেখ মিজানুর রহমান জানান, সাধারণ ডায়রি করার পর নির্মাণাধীন বাড়ির প্লটে গিয়ে খোঁজখবর নেয়া হয়। পরে ওই প্লটে কর্মরত রাজমিন্ত্রী আনারুলকে গাইবান্ধা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরবর্তীতে তার দেয়া তথ্যমতে প্লট থেকে একটু দূরে একটি জঙ্গল থেকে প্রফেসর সাহিদা গাফফারের মরদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

তিনি আরও জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তারকৃত রাজমিন্ত্রী আনারুল হত্যাকা-ের কথা স্বীকার করেছে। সে জানিয়েছে, প্রফেসর সাহিদা গফফারের হাতে টাকা দেখে সে ছিনিয়ে নিতে চায়। এ সময় প্রফেসর সাহিদা গাফফার ডাক-চিৎকার দিলে তাকে শ্বাসরোধে হত্যা করে পালিয়ে যায় আনারুল। এ ঘটনায় পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন আছে।

শনিবার, ১৫ জানুয়ারী ২০২২ , ০১ মাঘ ১৪২৮ ১১ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

ঢাবির সাবেক অধ্যাপক সাহিদা খুন, লাশ মিললো জঙ্গলে

ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের প্রফেসর (অবসরপ্রাপ্ত) সাহিদা গাফফারকে (৭১) গাজীপুর সিটি করপোরেশনের কাশিমপুর এলাকায় শ^াসরোধে হত্যা করা হয়েছে। গতকাল বেলা ১১টার দিকে কাশিমপুরের পানিশাইল এলাকায় অবস্থিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক আবাসন প্রকল্পের ভেতরে একটি জঙ্গল থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। নিহত সাহিদা গাফফার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পুষ্টিবিজ্ঞান বিভাগের সাবেক প্রফেসর ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক প্রফেসর মৃত কিবরিয়াউল খালেকের স্ত্রী। এ ঘটনায় নিহত সাহিদা গাফফারের নির্মাণাধীন বাড়ির রাজমিস্ত্রী আনারুল ইসলামকে (২৫) গত বৃহস্পতিবার রাতে গাইবান্ধা থেকে গ্রেপ্তার করেছে গাজীপুর মেট্রোপলিটন কাশিমপুর থানা পুলিশ। সে গাইবান্ধার সাদুল্লাহপুর থানার বুর্জুগ জামালপুর গ্রামের আনসার আলীর ছেলে। বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, ২০১৬ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অবসর গ্রহণ করেন প্রফেসর সাহিদা গাফফার। পানিশাইল এলাকায় অবস্থিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক আবাসন প্রকল্পের ভেতরে বাড়ি নির্মাণ করার সুবাদে তিনি গত ১১ মাস আগে স্থানীয় জনৈক মোশারফ মৃধার বাড়িতে ভাড়ায় একাই বসবাস শুরু করেন। গত মঙ্গলবার সন্ধ্যা থেকে তার ছেলে-মেয়েরা কেউ তার সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারছিল না। পরে তার মেয়ে সাহিদা আফরিন গত বৃহস্পতিবার ১৩ জানুয়ারি কাশিমপুর থানায় একটি সাধারণ ডাইরি করেছিলেন।

গাজীপুর মেট্রোপলিটন কাশিমপুর থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) শেখ মিজানুর রহমান জানান, সাধারণ ডায়রি করার পর নির্মাণাধীন বাড়ির প্লটে গিয়ে খোঁজখবর নেয়া হয়। পরে ওই প্লটে কর্মরত রাজমিন্ত্রী আনারুলকে গাইবান্ধা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরবর্তীতে তার দেয়া তথ্যমতে প্লট থেকে একটু দূরে একটি জঙ্গল থেকে প্রফেসর সাহিদা গাফফারের মরদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

তিনি আরও জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তারকৃত রাজমিন্ত্রী আনারুল হত্যাকা-ের কথা স্বীকার করেছে। সে জানিয়েছে, প্রফেসর সাহিদা গফফারের হাতে টাকা দেখে সে ছিনিয়ে নিতে চায়। এ সময় প্রফেসর সাহিদা গাফফার ডাক-চিৎকার দিলে তাকে শ্বাসরোধে হত্যা করে পালিয়ে যায় আনারুল। এ ঘটনায় পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন আছে।