‘কর্মক্ষেত্রে ভ্যাকসিন’ বাইডেনের আদেশ স্থগিত আদালতে

কর্মক্ষেত্রে ভ্যাকসিন সংক্রান্ত মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের একটি আদেশকে স্থগিত করেছে সুপ্রিম কোর্ট। আদেশে বলা হয়েছিল, বড় কোম্পানিতে কর্মীদের করোনার টিকা বা মাস্ক পরা এবং সাপ্তাহিক পরীক্ষা করা বাধ্যতামূলক। এক্ষেত্রে সব খরচ নিজেদের বহন করতে হবে। বিবিসি।

দেশের সর্বোচ্চ আদালতের বিচারপতিরা বলেছেন, আদেশটি বাইডেন প্রশাসনের কর্তৃত্বকে অতিক্রম করেছে। পৃথকভাবে আদালত রায় দিয়েছেন, নতুন আদেশ কার্যকর করা হলে সরকারি অর্থায়নে স্বাস্থ্যসেবা সুবিধার ক্ষেত্রে সরকারি কর্মীরা আরও বঞ্চনার শিকার হতে পারে। প্রশাসন বলছে, আদালতের রায়টি মহামারির বিরুদ্ধে লড়াই করতে সহায়তা করবে।

প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন আদালতের রায়ে হতাশা প্রকাশ করেছেন। ৭৯ বছর বয়সী বাইডেনের আগামী নির্বাচনে অনুমোদনের রেটিং কমে গেছে। তিনি ব্যবসায়িক নেতাদের অবিলম্বে তার সাথে একমত হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলছেন, বড় কোম্পানি বিশেষ করে যাদের কর্মী সংখ্যা ১০০ জনের বেশি, তাদের সম্প্রদায়কে রক্ষা করার জন্য টিকা দেওয়া বাধ্যতামূলক। এর প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করা দরকার।

আদালতের ওই রায়কে স্বাগত জানিয়েছেন সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনি আদালতের সিদ্ধান্তে আনন্দিত বোধ করছেন। তিনি বলেন, বাইডেনের ভ্যাকসিনের আদেশ অর্থনীতিকে আরও ধ্বংস করে দেবে। তিনি এক বিবৃতিতে বলছেন, পিছপা না হওয়ায় আমরা সুপ্রিম কোর্টের জন্য গর্বিত। বাইডেনের আদেশ এখন আর কার্যকর নেই।

বাইডেনের ওই আদেশে বলা ছিল, বড় কোম্পানির (১০০ জনের বেশি কর্মী) কর্মীদের নিয়মিত কোভিড-১৯ পরীক্ষা করা, মাস্ক পরা, প্রতি সপ্তাহে চেক করা সবই তাদের নিজস্ব খরচে করতে হবে।

খবরে বলা হচ্ছে, বাইডেনের আদেশটি প্রায় ৮৪ মিলিয়ন কর্মীকে প্রভাবিত করবে। আদেশটি নিয়োগকারীদের মাধ্যমে প্রয়োগ করার জন্য পরিকল্পনা করা হয়েছিল।

বেশ কয়েকটি রিপাবলিকান রাজ্য এবং কিছু ব্যবসায?িক গোষ্ঠীসহ বাইডেন বিরোধীরা বলছেন, বাইডেন তার আদেশের মাধ্যমে প্রশাসনিক ক্ষমতাকে চাপিয়ে দিতে চাচ্ছিলেন। আদেশটি গত নভেম্বরে বাস্তবায়ন শুরু হয় এবং ?দ্রুতই আইনি চ্যালেঞ্জের মুখে পড়ে।

শনিবার, ১৫ জানুয়ারী ২০২২ , ০১ মাঘ ১৪২৮ ১১ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

‘কর্মক্ষেত্রে ভ্যাকসিন’ বাইডেনের আদেশ স্থগিত আদালতে

কর্মক্ষেত্রে ভ্যাকসিন সংক্রান্ত মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের একটি আদেশকে স্থগিত করেছে সুপ্রিম কোর্ট। আদেশে বলা হয়েছিল, বড় কোম্পানিতে কর্মীদের করোনার টিকা বা মাস্ক পরা এবং সাপ্তাহিক পরীক্ষা করা বাধ্যতামূলক। এক্ষেত্রে সব খরচ নিজেদের বহন করতে হবে। বিবিসি।

দেশের সর্বোচ্চ আদালতের বিচারপতিরা বলেছেন, আদেশটি বাইডেন প্রশাসনের কর্তৃত্বকে অতিক্রম করেছে। পৃথকভাবে আদালত রায় দিয়েছেন, নতুন আদেশ কার্যকর করা হলে সরকারি অর্থায়নে স্বাস্থ্যসেবা সুবিধার ক্ষেত্রে সরকারি কর্মীরা আরও বঞ্চনার শিকার হতে পারে। প্রশাসন বলছে, আদালতের রায়টি মহামারির বিরুদ্ধে লড়াই করতে সহায়তা করবে।

প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন আদালতের রায়ে হতাশা প্রকাশ করেছেন। ৭৯ বছর বয়সী বাইডেনের আগামী নির্বাচনে অনুমোদনের রেটিং কমে গেছে। তিনি ব্যবসায়িক নেতাদের অবিলম্বে তার সাথে একমত হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলছেন, বড় কোম্পানি বিশেষ করে যাদের কর্মী সংখ্যা ১০০ জনের বেশি, তাদের সম্প্রদায়কে রক্ষা করার জন্য টিকা দেওয়া বাধ্যতামূলক। এর প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করা দরকার।

আদালতের ওই রায়কে স্বাগত জানিয়েছেন সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনি আদালতের সিদ্ধান্তে আনন্দিত বোধ করছেন। তিনি বলেন, বাইডেনের ভ্যাকসিনের আদেশ অর্থনীতিকে আরও ধ্বংস করে দেবে। তিনি এক বিবৃতিতে বলছেন, পিছপা না হওয়ায় আমরা সুপ্রিম কোর্টের জন্য গর্বিত। বাইডেনের আদেশ এখন আর কার্যকর নেই।

বাইডেনের ওই আদেশে বলা ছিল, বড় কোম্পানির (১০০ জনের বেশি কর্মী) কর্মীদের নিয়মিত কোভিড-১৯ পরীক্ষা করা, মাস্ক পরা, প্রতি সপ্তাহে চেক করা সবই তাদের নিজস্ব খরচে করতে হবে।

খবরে বলা হচ্ছে, বাইডেনের আদেশটি প্রায় ৮৪ মিলিয়ন কর্মীকে প্রভাবিত করবে। আদেশটি নিয়োগকারীদের মাধ্যমে প্রয়োগ করার জন্য পরিকল্পনা করা হয়েছিল।

বেশ কয়েকটি রিপাবলিকান রাজ্য এবং কিছু ব্যবসায?িক গোষ্ঠীসহ বাইডেন বিরোধীরা বলছেন, বাইডেন তার আদেশের মাধ্যমে প্রশাসনিক ক্ষমতাকে চাপিয়ে দিতে চাচ্ছিলেন। আদেশটি গত নভেম্বরে বাস্তবায়ন শুরু হয় এবং ?দ্রুতই আইনি চ্যালেঞ্জের মুখে পড়ে।