মাত্রাতিরিক্ত কীটনাশক ব্যবহার প্রাকৃতিক জীববৈচিত্র্যে ফেলছে বিরূপ প্রভাব

চারঘাট উপজেলায় বোরো ধান খেতে কীটনাশক ব্যবহার না করে আলোক ফাঁদ পেতে ক্ষতিকর পোকা দমন করা হচ্ছে। খেত সুরক্ষায় আলোক ফাঁদের ব্যবহার দিন দিন জনপ্রিয় হচ্ছে। এতে ক্ষতিকর পোকা দমনের পাশাপাশি উপকারী পোকা শনাক্ত এবং প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে সুবিধা হয়। ইতোমধ্যে এই পদ্ধতি কৃষকদের মধ্যে বেশ সাড়া ফেলেছে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, এ মৌসুমে উপজেলার ২ হাজার ৪০০ হেক্টর জমিতে বোরো ধান চাষ করা হয়েছে। বাড়ন্ত বোরো খেতে ইতোমধ্যেই পোকার আক্রমণ দেখা দিয়েছে। এ খেতে কৃষকরা কীটনাশক স্প্রে করছেন। তবে আলোক ফাঁদ ধানের পোকা দমনে একটি পরিবেশবান্ধব পদ্ধতি। কীটনাশক প্রয়োগের চেয়েও অধিক কার্যকরী।

আলোক ফাঁদ তৈরিতে হারিকেন, বৈদ্যুতিক বাল্ব ও সৌরবিদ্যুতের সোলার প্যানেল ব্যবহার করা হয়ে থাকে। ধান খেত থেকে ৫০ থেকে ১০০ মিটার দূরে ফাঁকা জায়গায় বাঁশের খুঁটির সাহায্যে মাটি থেকে ২-৩ ফুট ওপরে একটি বৈদ্যুতিক বাল্ব জ¦ালিয়ে এর নিচে একটি পাত্রে ডিটারজেন্ট পাউডার অথবা কেরোসিন মিশ্রিত পানি রাখা হয়। সন্ধ্যার পর এই আলোক ফাঁদের আলোয় আকৃষ্ট হয়ে ধান খেতের বিভিন্ন পোকামাকড় এসে পাত্রের পানিতে পড়ে।

এভাবে আলোক ফাঁদ ব্যবহার করে ধানসহ ফসলের ক্ষতিকর ও উপকারী পোকার উপস্থিতি নির্ণয় ও নিয়ন্ত্রণ করা হয়। অতি অল্প খরচে তৈরি এ আলোক ফাঁদ অন্ধকার রাতে দেখতেও বেশ দৃষ্টিনন্দন।

স্থানীয় কৃষি বিশেষজ্ঞ আবদুর রশীদ জানান, কৃষিজমিতে মাত্রাতিরিক্ত কীটনাশক ব্যবহার প্রাকৃতিক জীববৈচিত্র্য, পরিবেশ, পশুপাখি ও মানুষের ওপর বিরূপ প্রভাব ফেলছে। কীটনাশক প্রয়োগে ফসলের শত্রু পোকার পাশাপাশি মিত্র পোকাও ধ্বংস হয়। এতে ফসলি জমির পরিবেশ ভারসাম্যহীন হয়ে পড়ে দিনদিন, যা ভবিষ্যতে কৃষিক্ষেত্রের জন্য একটি বড় রকম বিপর্যয় দেখা দিতে পারে বলে আশঙ্কা কৃষি বিভাগের।

কৃষকরাও পরিবেশবান্ধব আলোক ফাঁদ ব্যবহারে আগ্রহ প্রকাশ করছেন। এতে জমিতে অপ্রয়োজনীয় কীটনাশক ব্যবহারের মাত্রা কমছে। ফলে একদিকে কৃষকের সাশ্রয় হচ্ছে উৎপাদন খরচ। অন্যদিকে মাত্রাতিরিক্ত কীটনাশকের ক্ষতিকর প্রভাব থেকে জীববৈচিত্র্য ও পরিবেশ রক্ষা পাচ্ছে।

উপজেলার নিমপাড়া গ্রামের কৃষক আবদুল কাদের জানান, অধিক খরচে কীটনাশক প্রয়োগ করেও পোকা

কমছে না। ধান খেতে আলোক ফাঁদ ব্যবহারের মাধ্যমে উপকারী ও ক্ষতিকর পোকার উপস্থিতি চিহ্নিত করে ক্ষতিকর পোকা দমন করা সহজ হয়েছে।

শলুয়া ইউনিয়নের কৃষক শরীফুল ইসলাম বলেন, এ পদ্ধতিতে আমরা আগের চেয়ে কম খরচে ক্ষতিকর পোকা দমন করে ফসল রক্ষা করতে পারছি। আবার উপকারী পোকাও বাঁচাতে পারছি। এতে করে আমাদের উৎপাদন খরচ কমছে।

এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা লুৎফুন নাহার বলেন, ব্লাস্ট ও কারেন্ট পোকা প্রতিরোধে কৃষকদের মাঝে লিফলেট বিতরণ করা হচ্ছে। হাটে-বাজারে ভিডিও প্রদর্শন, উঠান বৈঠক, দলীয় আলোচনা সভার মাধ্যমে আলোক ফাঁদের উপকারিতা সম্পর্কে কৃষকদের অবহিত করা হচ্ছে। আলোক ফাঁদ প্রযুক্তি একটি পরিবেশবান্ধব ও অর্থ সাশ্রয়ী পদ্ধতি। এতে চাষিরা নিজেরাই ক্ষতিকর ও উপকারী পোকা শনাক্ত করে ব্যবস্থা নিতে পারেন।

শনিবার, ০২ এপ্রিল ২০২২ , ১৯ চৈত্র ১৪২৮ ২৯ শাবান ১৪৪৩

মাত্রাতিরিক্ত কীটনাশক ব্যবহার প্রাকৃতিক জীববৈচিত্র্যে ফেলছে বিরূপ প্রভাব

জেলা বার্তা পরিবেশক, রাজশাহী

চারঘাট উপজেলায় বোরো ধান খেতে কীটনাশক ব্যবহার না করে আলোক ফাঁদ পেতে ক্ষতিকর পোকা দমন করা হচ্ছে। খেত সুরক্ষায় আলোক ফাঁদের ব্যবহার দিন দিন জনপ্রিয় হচ্ছে। এতে ক্ষতিকর পোকা দমনের পাশাপাশি উপকারী পোকা শনাক্ত এবং প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে সুবিধা হয়। ইতোমধ্যে এই পদ্ধতি কৃষকদের মধ্যে বেশ সাড়া ফেলেছে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, এ মৌসুমে উপজেলার ২ হাজার ৪০০ হেক্টর জমিতে বোরো ধান চাষ করা হয়েছে। বাড়ন্ত বোরো খেতে ইতোমধ্যেই পোকার আক্রমণ দেখা দিয়েছে। এ খেতে কৃষকরা কীটনাশক স্প্রে করছেন। তবে আলোক ফাঁদ ধানের পোকা দমনে একটি পরিবেশবান্ধব পদ্ধতি। কীটনাশক প্রয়োগের চেয়েও অধিক কার্যকরী।

আলোক ফাঁদ তৈরিতে হারিকেন, বৈদ্যুতিক বাল্ব ও সৌরবিদ্যুতের সোলার প্যানেল ব্যবহার করা হয়ে থাকে। ধান খেত থেকে ৫০ থেকে ১০০ মিটার দূরে ফাঁকা জায়গায় বাঁশের খুঁটির সাহায্যে মাটি থেকে ২-৩ ফুট ওপরে একটি বৈদ্যুতিক বাল্ব জ¦ালিয়ে এর নিচে একটি পাত্রে ডিটারজেন্ট পাউডার অথবা কেরোসিন মিশ্রিত পানি রাখা হয়। সন্ধ্যার পর এই আলোক ফাঁদের আলোয় আকৃষ্ট হয়ে ধান খেতের বিভিন্ন পোকামাকড় এসে পাত্রের পানিতে পড়ে।

এভাবে আলোক ফাঁদ ব্যবহার করে ধানসহ ফসলের ক্ষতিকর ও উপকারী পোকার উপস্থিতি নির্ণয় ও নিয়ন্ত্রণ করা হয়। অতি অল্প খরচে তৈরি এ আলোক ফাঁদ অন্ধকার রাতে দেখতেও বেশ দৃষ্টিনন্দন।

স্থানীয় কৃষি বিশেষজ্ঞ আবদুর রশীদ জানান, কৃষিজমিতে মাত্রাতিরিক্ত কীটনাশক ব্যবহার প্রাকৃতিক জীববৈচিত্র্য, পরিবেশ, পশুপাখি ও মানুষের ওপর বিরূপ প্রভাব ফেলছে। কীটনাশক প্রয়োগে ফসলের শত্রু পোকার পাশাপাশি মিত্র পোকাও ধ্বংস হয়। এতে ফসলি জমির পরিবেশ ভারসাম্যহীন হয়ে পড়ে দিনদিন, যা ভবিষ্যতে কৃষিক্ষেত্রের জন্য একটি বড় রকম বিপর্যয় দেখা দিতে পারে বলে আশঙ্কা কৃষি বিভাগের।

কৃষকরাও পরিবেশবান্ধব আলোক ফাঁদ ব্যবহারে আগ্রহ প্রকাশ করছেন। এতে জমিতে অপ্রয়োজনীয় কীটনাশক ব্যবহারের মাত্রা কমছে। ফলে একদিকে কৃষকের সাশ্রয় হচ্ছে উৎপাদন খরচ। অন্যদিকে মাত্রাতিরিক্ত কীটনাশকের ক্ষতিকর প্রভাব থেকে জীববৈচিত্র্য ও পরিবেশ রক্ষা পাচ্ছে।

উপজেলার নিমপাড়া গ্রামের কৃষক আবদুল কাদের জানান, অধিক খরচে কীটনাশক প্রয়োগ করেও পোকা

কমছে না। ধান খেতে আলোক ফাঁদ ব্যবহারের মাধ্যমে উপকারী ও ক্ষতিকর পোকার উপস্থিতি চিহ্নিত করে ক্ষতিকর পোকা দমন করা সহজ হয়েছে।

শলুয়া ইউনিয়নের কৃষক শরীফুল ইসলাম বলেন, এ পদ্ধতিতে আমরা আগের চেয়ে কম খরচে ক্ষতিকর পোকা দমন করে ফসল রক্ষা করতে পারছি। আবার উপকারী পোকাও বাঁচাতে পারছি। এতে করে আমাদের উৎপাদন খরচ কমছে।

এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা লুৎফুন নাহার বলেন, ব্লাস্ট ও কারেন্ট পোকা প্রতিরোধে কৃষকদের মাঝে লিফলেট বিতরণ করা হচ্ছে। হাটে-বাজারে ভিডিও প্রদর্শন, উঠান বৈঠক, দলীয় আলোচনা সভার মাধ্যমে আলোক ফাঁদের উপকারিতা সম্পর্কে কৃষকদের অবহিত করা হচ্ছে। আলোক ফাঁদ প্রযুক্তি একটি পরিবেশবান্ধব ও অর্থ সাশ্রয়ী পদ্ধতি। এতে চাষিরা নিজেরাই ক্ষতিকর ও উপকারী পোকা শনাক্ত করে ব্যবস্থা নিতে পারেন।