ভোক্তা-অধিকারের অভিযানে ১৩১টি প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়াধীন জাতীয় ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের প্রধান কার্যালয়, বিভাগীয় ও জেলা কার্যালয়ের ৫৩ জন কর্মকর্তার নেতৃত্বে ঢাকা মহানগরসহ দেশের ৫০টি জেলায় বাজার তদারকি কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়েছে। এতে মোট ১৩১টি প্রতিষ্ঠানকে চার লাখ সতেরো হাজার পাঁচশত টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ আইন, ২০০৯ অনুযায়ী ঢাকা মহানগরের কারওয়ান বাজার, মহাখালী কাঁচাবাজার ও শাহবাগ আনন্দ বাজারসহ দেশব্যাপী মোট ৫৭টি বাজার ও বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে পরিচালিত তদারকি কার্যক্রমের মাধ্যমে ভোক্তা-স্বার্থবিরোধী বিভিন্ন অপরাধে ১৩১টি প্রতিষ্ঠানকে চার লাখ সতেরো হাজার পাঁচশত টাকা জরিমানা আরোপ ও আদায় করা হয়। জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ভোক্তা ও ব্যবসায়ীদের মধ্যে লিফলেট, প্যাম্ফলেট বিতরণসহ হ্যান্ডমাইকে সংশ্লিষ্টদের প্রয়োজনীয় পরামর্শ দেয়া হয়।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য, স্বাস্থ্যবিভাগ, কৃষিবিভাগ, মৎস্যবিভাগ, কনজুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশসহ (ক্যাব) সংশ্লিষ্ট শিল্প বণিক সমিতির প্রতিনিধিরা অধিদপ্তর পরিচালিত এসব বাজার অভিযানে সহযোগিতা প্রদান করেন।

উল্লেখ্য, জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিট্রেটরা ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ অনুযায়ী ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার মাধ্যমে ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ নিশ্চিতকরণসহ স্থিতিশীল বাজার ব্যবস্থা গড়ে তোলার লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করছেন।

সোমবার, ১১ এপ্রিল ২০২২ , ২৮ চৈত্র ১৪২৮ ০৯ রমাদ্বান ১৪৪৩

ভোক্তা-অধিকারের অভিযানে ১৩১টি প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

image

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়াধীন জাতীয় ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের প্রধান কার্যালয়, বিভাগীয় ও জেলা কার্যালয়ের ৫৩ জন কর্মকর্তার নেতৃত্বে ঢাকা মহানগরসহ দেশের ৫০টি জেলায় বাজার তদারকি কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়েছে। এতে মোট ১৩১টি প্রতিষ্ঠানকে চার লাখ সতেরো হাজার পাঁচশত টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ আইন, ২০০৯ অনুযায়ী ঢাকা মহানগরের কারওয়ান বাজার, মহাখালী কাঁচাবাজার ও শাহবাগ আনন্দ বাজারসহ দেশব্যাপী মোট ৫৭টি বাজার ও বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে পরিচালিত তদারকি কার্যক্রমের মাধ্যমে ভোক্তা-স্বার্থবিরোধী বিভিন্ন অপরাধে ১৩১টি প্রতিষ্ঠানকে চার লাখ সতেরো হাজার পাঁচশত টাকা জরিমানা আরোপ ও আদায় করা হয়। জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ভোক্তা ও ব্যবসায়ীদের মধ্যে লিফলেট, প্যাম্ফলেট বিতরণসহ হ্যান্ডমাইকে সংশ্লিষ্টদের প্রয়োজনীয় পরামর্শ দেয়া হয়।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য, স্বাস্থ্যবিভাগ, কৃষিবিভাগ, মৎস্যবিভাগ, কনজুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশসহ (ক্যাব) সংশ্লিষ্ট শিল্প বণিক সমিতির প্রতিনিধিরা অধিদপ্তর পরিচালিত এসব বাজার অভিযানে সহযোগিতা প্রদান করেন।

উল্লেখ্য, জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিট্রেটরা ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ অনুযায়ী ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার মাধ্যমে ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ নিশ্চিতকরণসহ স্থিতিশীল বাজার ব্যবস্থা গড়ে তোলার লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করছেন।