ব্যবসায়ী ও শিক্ষার্থীদের সংঘর্ষের সময় হেলমেটধারীরা সন্ত্রাসী : ডিবি

রাজধানীর নিউমার্কেটে ব্যবসায়ী ও শিক্ষার্থীদের সংঘর্ষের সময় হেলমেট মাথায় দিয়ে যারা হামলা করেছিল তারা সন্ত্রাসী বলে দাবি করেছে মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি)। ডিবির যুগ্ম কমিশনার মাহবুব আলম বলেছেন, হেলমেট মাথায় দিয়ে হামলায় অংশ নেয়া সবাই সন্ত্রাসী। তাদের ধরে আইনের আওতায় আনা হবে। গতকাল ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। রাজনৈতিক বিবেচনায় নয় হেলমেটধারীদের সন্ত্রাসী হিসেবেই গ্রেপ্তার করা হবে বলে উল্লেখ করেন মাহবুব আলম। তিনি বলেন, তাদের চিহ্নিত করা হয়েছে। গ্রেপ্তারে অভিযান চালানো হচ্ছে।

যুগ্ম কমিশনার আরও বলেন, নিউমার্কেট এলাকায় দোকান কর্মচারী মুরসালিনের হত্যাকারীদের এখনও চিহ্নিত করা যায়নি। তার মৃত্যু ঘটেছে ইটের আঘাতে। যারা ইটপাটকেল ছুড়েছে তাদের থেকে হত্যাকারী চিহ্নিত করার চেষ্টা চলছে। এছাড়া নাহিদ হত্যার ভিডিও ফুটেজ দেখে হত্যাকারী শনাক্তের কাজ অনেক দূর এগিয়েছে। আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান চালানো হচ্ছে। গ্রেপ্তারে বিলম্ব হওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, ঢাকা কলেজের হোস্টেল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় অনেকেই বাড়ি চলে গেছেন অথবা আত্মগোপনে আছেন। তবে ডিবির একাধিক টিম তাদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। শীঘ্রই এ বিষয়ে ভালো ফল জানানো হবে

বৃহস্পতিবার, ২৮ এপ্রিল ২০২২ , ১৫ বৈশাখ ১৪২৮ ২৬ রমাদ্বান ১৪৪৩

ব্যবসায়ী ও শিক্ষার্থীদের সংঘর্ষের সময় হেলমেটধারীরা সন্ত্রাসী : ডিবি

রাজধানীর নিউমার্কেটে ব্যবসায়ী ও শিক্ষার্থীদের সংঘর্ষের সময় হেলমেট মাথায় দিয়ে যারা হামলা করেছিল তারা সন্ত্রাসী বলে দাবি করেছে মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি)। ডিবির যুগ্ম কমিশনার মাহবুব আলম বলেছেন, হেলমেট মাথায় দিয়ে হামলায় অংশ নেয়া সবাই সন্ত্রাসী। তাদের ধরে আইনের আওতায় আনা হবে। গতকাল ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। রাজনৈতিক বিবেচনায় নয় হেলমেটধারীদের সন্ত্রাসী হিসেবেই গ্রেপ্তার করা হবে বলে উল্লেখ করেন মাহবুব আলম। তিনি বলেন, তাদের চিহ্নিত করা হয়েছে। গ্রেপ্তারে অভিযান চালানো হচ্ছে।

যুগ্ম কমিশনার আরও বলেন, নিউমার্কেট এলাকায় দোকান কর্মচারী মুরসালিনের হত্যাকারীদের এখনও চিহ্নিত করা যায়নি। তার মৃত্যু ঘটেছে ইটের আঘাতে। যারা ইটপাটকেল ছুড়েছে তাদের থেকে হত্যাকারী চিহ্নিত করার চেষ্টা চলছে। এছাড়া নাহিদ হত্যার ভিডিও ফুটেজ দেখে হত্যাকারী শনাক্তের কাজ অনেক দূর এগিয়েছে। আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান চালানো হচ্ছে। গ্রেপ্তারে বিলম্ব হওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, ঢাকা কলেজের হোস্টেল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় অনেকেই বাড়ি চলে গেছেন অথবা আত্মগোপনে আছেন। তবে ডিবির একাধিক টিম তাদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। শীঘ্রই এ বিষয়ে ভালো ফল জানানো হবে