নাটোরে সড়কে ত্রিমুখী সংঘর্ষ, ৭ জন নিহত

নাটোরের বড়াইগ্রামে দুই বাস ও ১টি ট্রাকের ত্রিমুখী সংঘর্ষে ৭ জন নিহত ও কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছে। গতকাল বেলা সোয়া ১১টার দিকে বনপাড়া-ঢাকা মহাসড়কের বনপাড়া গাজী অটো রাইস মিলের সামনে এ মর্মান্তিক দুর্ঘটনা ঘটে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ঢাকা থেকে রাজশাহীগামী ন্যাশনাল ট্রাভেলস ও নাটোর থেকে ঢাকাগামী সিয়াম পরিবহন এবং সড়কের পাশে দাঁড়িয়ে থাকা ট্রাকের সঙ্গে সংঘর্ষ বাঁধে। এতে ঘটনাস্থলেই ১ নারী ও ৬ পুরুষ যাত্রী নিহত হয়। খবর পেয়ে বনপাড়া ফায়ার সার্ভিস ও হাইওয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে পাঠায় ও নিহতদের উদ্ধার করে।

ফায়ার সার্ভিস রাজশাহী রেঞ্জের সহকারী পরিচালক দিদারুল আলম জানান, সাতজনের পরিচয় আপাতত পাওয়া গেছে। এদের মধ্যে ভাই-বোন সাদিয়া (১২) ও কাউসার (১৮)। তারা সিয়াম পরিবহনের যাত্রী ছিলেন। তাদের মা ওই বাসেই ছিলেন এবং অক্ষত আছেন। নিহত ভাই-বোন নাটোরের হরিশপুরের পাইকারদোল গ্রামের কাওসার হোসেনের সন্তান। অন্য নিহতরা হলেন লালপুর উপজেলার ওয়ালিয়া এলাকার রুহুল আমিনের স্ত্রী মোহনা আক্তার মিলি (২৬), জলিল (২৫), টাঙ্গাইল জেলার দেলদুয়ার উপজেলার রাংগুনিয়া গ্রামের মশিউর রহমান (২৫), চাঁপাইনবাবগঞ্জের মিজানুর রহমান (৩০), মাগুরা জেলার মুক্তর হোসেনের ছেলে আলমগীর (৪৭),

উল্লেখ্য, ন্যাশনাল ট্রাভেলস থেকে ৫ জন পুরুষ ও সিয়াম পরিবহন থেকে ভাই-বোনের লাশ উদ্ধার করে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। নাটোরের জেলা প্রশাসক শামীম আহমেদ, পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা, হাইওয়ে বগুড়া অঞ্চলের পুলিশ সুপার মুন্সি শাহাবুদ্দিন, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ডা. সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারী, বনপাড়া পৌর মেয়র কেএম জাকির হোসেন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে জেলা প্রশাসক শামীম আহমেদ অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেকে প্রধান করে ৫ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে তাদের দুই দিনের মধ্যে প্রতিবেদন জমাদানের নির্দেশ দেন। সেখানে তিনি নিহতদের প্রত্যেকের পরিবারকে ২৫ হাজার টাকা করে প্রদানের আশ্বাস দেন। সেই সঙ্গে আহতদের প্রত্যেককে প্রয়োজনীয় চিকিৎসার নির্দেশ দেন।

বেঁচে যাওয়া যাত্রীরা জানান, ন্যাশনাল ট্রাভেলসের চালক বেপরোয়ভাবে বাস চালাচ্ছিলেন। তাকে মানা করা সত্ত্বেও তিনি কর্ণপাত করেননি। দুটি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ হওয়ার পর ঢাকা থেকে নাটোরগামী একটি ট্রাক ন্যাশনাল ট্রাভেলসের বাসটিকে পেছন থেকে ধাক্কা দেয়।

রাজধানীতে ঝরলো যুবক ও নারীর প্রাণ

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক জানান, রাজধানীর মোহাম্মদপুর বেড়িবাঁধে যাত্রীবাহী লেগুনা ও ট্রাকের সংঘর্ষে আশিক উল্লাহ (২৮) নামের এক যুবক নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় দুইজন আহত হয়েছে। এছাড়া রমনায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বিনা (২২) নামে এক নারী নিহত হয়েছে। গত শুক্রবার রাত ও গতকাল এ ঘটনা দুটি ঘটে। ময়নাতদন্তের জন্য তাদের লাশ উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) মর্গে পাঠিয়েছে সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশ।

মোহাম্মদপুর থানার এসআই লিটন মাতুব্বর জানান, গতকাল সকাল ১০টার দিকে সাদেক বেড়িবাঁধ বাঁশপট্টি এলাকায় যাত্রীবাহী লেগুনা ও ইট বোঝাই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। ঘটনায় আশিক উল্লাহ নামে একজন নিহত হয়। দুইজন আহত আছে বলে জানতে পেরেছি। এদের মধ্যে একজন শিকদার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে, অন্যজন ঢাকা মেডিকেলে চিকিৎসা নিচ্ছে। ঘটনার পরপরই দুটি গাড়ি জব্দ করা হয়েছে। নিহত যুবকের বাসা হাজারীবাগ এলাকায়। তার বিষয়ে বিস্তারিত জানার চেষ্টা করা হচ্ছে।

রমনা থানার ওসি মনিরুল ইসলাম জানান, শুক্রবার রাত ১২টার দিকে রমনা সার্ক ফোয়ারার সামনে মোটরসাইকেল নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পড়ে যায় চালক মোস্তফা কামাল ও আরোহী বিনা। পরে পুলিশ তাদের উদ্ধার করে ঢামেক হাসপাতালে নিলে ওই নারীকে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। তিনি আরও জানান, আহত ও নিহতের বিস্তারিত ঠিকানা জানার চেষ্টা চলছে। দুইজনের মধ্যে কোন সম্পর্ক আছে কি-না সেগুলোও জানার চেষ্টা করছে। তবে হাসপাতাল থেকে একটি সূত্র জানায়, মোটরসাইকেল চালক মোস্তফা কামাল মদ্যপ অবস্থায় মোটরসাইকেল চালাচ্ছিল। এই কারণেই নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে আইল্যান্ডের সঙ্গে ধাক্কা লাগে।

রবিবার, ০৮ মে ২০২২ , ২৪ বৈশাখ ১৪২৮ ০৫ শাওয়াল ১৪৪৩

নাটোরে সড়কে ত্রিমুখী সংঘর্ষ, ৭ জন নিহত

image

নাটোরের বড়াইগ্রামে দুই বাস ও ১টি ট্রাকের ত্রিমুখী সংঘর্ষে ৭ জন নিহত ও কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছে। গতকাল বেলা সোয়া ১১টার দিকে বনপাড়া-ঢাকা মহাসড়কের বনপাড়া গাজী অটো রাইস মিলের সামনে এ মর্মান্তিক দুর্ঘটনা ঘটে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ঢাকা থেকে রাজশাহীগামী ন্যাশনাল ট্রাভেলস ও নাটোর থেকে ঢাকাগামী সিয়াম পরিবহন এবং সড়কের পাশে দাঁড়িয়ে থাকা ট্রাকের সঙ্গে সংঘর্ষ বাঁধে। এতে ঘটনাস্থলেই ১ নারী ও ৬ পুরুষ যাত্রী নিহত হয়। খবর পেয়ে বনপাড়া ফায়ার সার্ভিস ও হাইওয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে পাঠায় ও নিহতদের উদ্ধার করে।

ফায়ার সার্ভিস রাজশাহী রেঞ্জের সহকারী পরিচালক দিদারুল আলম জানান, সাতজনের পরিচয় আপাতত পাওয়া গেছে। এদের মধ্যে ভাই-বোন সাদিয়া (১২) ও কাউসার (১৮)। তারা সিয়াম পরিবহনের যাত্রী ছিলেন। তাদের মা ওই বাসেই ছিলেন এবং অক্ষত আছেন। নিহত ভাই-বোন নাটোরের হরিশপুরের পাইকারদোল গ্রামের কাওসার হোসেনের সন্তান। অন্য নিহতরা হলেন লালপুর উপজেলার ওয়ালিয়া এলাকার রুহুল আমিনের স্ত্রী মোহনা আক্তার মিলি (২৬), জলিল (২৫), টাঙ্গাইল জেলার দেলদুয়ার উপজেলার রাংগুনিয়া গ্রামের মশিউর রহমান (২৫), চাঁপাইনবাবগঞ্জের মিজানুর রহমান (৩০), মাগুরা জেলার মুক্তর হোসেনের ছেলে আলমগীর (৪৭),

উল্লেখ্য, ন্যাশনাল ট্রাভেলস থেকে ৫ জন পুরুষ ও সিয়াম পরিবহন থেকে ভাই-বোনের লাশ উদ্ধার করে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। নাটোরের জেলা প্রশাসক শামীম আহমেদ, পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা, হাইওয়ে বগুড়া অঞ্চলের পুলিশ সুপার মুন্সি শাহাবুদ্দিন, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ডা. সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারী, বনপাড়া পৌর মেয়র কেএম জাকির হোসেন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে জেলা প্রশাসক শামীম আহমেদ অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেকে প্রধান করে ৫ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে তাদের দুই দিনের মধ্যে প্রতিবেদন জমাদানের নির্দেশ দেন। সেখানে তিনি নিহতদের প্রত্যেকের পরিবারকে ২৫ হাজার টাকা করে প্রদানের আশ্বাস দেন। সেই সঙ্গে আহতদের প্রত্যেককে প্রয়োজনীয় চিকিৎসার নির্দেশ দেন।

বেঁচে যাওয়া যাত্রীরা জানান, ন্যাশনাল ট্রাভেলসের চালক বেপরোয়ভাবে বাস চালাচ্ছিলেন। তাকে মানা করা সত্ত্বেও তিনি কর্ণপাত করেননি। দুটি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ হওয়ার পর ঢাকা থেকে নাটোরগামী একটি ট্রাক ন্যাশনাল ট্রাভেলসের বাসটিকে পেছন থেকে ধাক্কা দেয়।

রাজধানীতে ঝরলো যুবক ও নারীর প্রাণ

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক জানান, রাজধানীর মোহাম্মদপুর বেড়িবাঁধে যাত্রীবাহী লেগুনা ও ট্রাকের সংঘর্ষে আশিক উল্লাহ (২৮) নামের এক যুবক নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় দুইজন আহত হয়েছে। এছাড়া রমনায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বিনা (২২) নামে এক নারী নিহত হয়েছে। গত শুক্রবার রাত ও গতকাল এ ঘটনা দুটি ঘটে। ময়নাতদন্তের জন্য তাদের লাশ উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) মর্গে পাঠিয়েছে সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশ।

মোহাম্মদপুর থানার এসআই লিটন মাতুব্বর জানান, গতকাল সকাল ১০টার দিকে সাদেক বেড়িবাঁধ বাঁশপট্টি এলাকায় যাত্রীবাহী লেগুনা ও ইট বোঝাই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। ঘটনায় আশিক উল্লাহ নামে একজন নিহত হয়। দুইজন আহত আছে বলে জানতে পেরেছি। এদের মধ্যে একজন শিকদার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে, অন্যজন ঢাকা মেডিকেলে চিকিৎসা নিচ্ছে। ঘটনার পরপরই দুটি গাড়ি জব্দ করা হয়েছে। নিহত যুবকের বাসা হাজারীবাগ এলাকায়। তার বিষয়ে বিস্তারিত জানার চেষ্টা করা হচ্ছে।

রমনা থানার ওসি মনিরুল ইসলাম জানান, শুক্রবার রাত ১২টার দিকে রমনা সার্ক ফোয়ারার সামনে মোটরসাইকেল নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পড়ে যায় চালক মোস্তফা কামাল ও আরোহী বিনা। পরে পুলিশ তাদের উদ্ধার করে ঢামেক হাসপাতালে নিলে ওই নারীকে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। তিনি আরও জানান, আহত ও নিহতের বিস্তারিত ঠিকানা জানার চেষ্টা চলছে। দুইজনের মধ্যে কোন সম্পর্ক আছে কি-না সেগুলোও জানার চেষ্টা করছে। তবে হাসপাতাল থেকে একটি সূত্র জানায়, মোটরসাইকেল চালক মোস্তফা কামাল মদ্যপ অবস্থায় মোটরসাইকেল চালাচ্ছিল। এই কারণেই নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে আইল্যান্ডের সঙ্গে ধাক্কা লাগে।