চালককে শ্বাসরোধ করে হত্যা : আসামি গ্রেপ্তার, স্বীকারোক্তি

যশোরের ঝিগরগাছায় ভ্যানচালক ইকরাম হত্যার রহস্য উদ্ঘাটন করেছে পিবিআই। ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন পিবিআইয়ের টিম গত শনিবার গভীর রাতে সাতক্ষীরার পাটকেলঘাটা এলাকায় অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত আলমগীর সরদারকে গ্রেপ্তার করেছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করছে।

পিবিআইয়ের যশোর জেলা পুলিশ সুপার রেশমা শারমিন জানান, নিহত ইকরাম হোসেন ওরফে ইকরাদ গরু পালন ও ভ্যান চালিয়ে কোন মতে জীবিকা নির্বাহ করত। ২০২১ সালে ১৯ জুলাই তিনি একটি গরু ৫৯ হাজার টাকায় বিক্রি করে। গত বছর ২০ জুলাই বিকেলে ইকরাদের মৃতদেহ তার বসতবাড়ি পাশ্ববর্তী কলাবাগানে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। এই ঘটনায় ইকরাদের মেয়ে সালমা খাতুন বাদী হয়ে জিকরগাছা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

যশোর জেলা পিবিআই স্ব-উদ্যোগে মামলাটির তদন্তভার গ্রহণ করেন। তদন্তকালে অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত সজিব, ইমন ও ওয়াসিম সরদার, সালাম সরদারকে গ্রেপ্তার করে এবং লুণ্ঠিত মালামাল উদ্ধার করে।

অভিযুক্ত সালাম সরদারের স্বীকারোক্তি মতে, হত্যাকা-ে জড়িত অভিযুক্ত আলমগীর সরদার দীর্ঘদিন দেশের বিভিন্ন এলাকায় পলাতক ছিল। অবশেষে গত শনিবার সাতক্ষীরা জেলার দেবহাটা থানা এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে। সে একজন ইটভাটা শ্রমিক হিসেবে দেশের বিভিন্ন জেলায় বিভিন্ন ইটভাটায় শ্রমিকের কাজ করত। অন্য অভিযুক্তরা চোরদলের সদস্য।

অভিযুক্তরা ভিকটিমের বাড়িতে ভ্যানগাড়ি চুরির উদ্দেশে যায়। ভ্যান নেয়ার সময় ইকরাদ তাদের বাধা দিলে অভিযুক্তরা তার গায়ের জামা দিয়ে হাত-পা বেঁধে ও গলায় ফাঁস দিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে লাশ কলাবাগানে ফেলে ভ্যান নিয়ে পালিয়ে যায়। অভিযুক্ত আসামি আলমগীর সরদার গতকাল আদালতে স্বীকারোক্তি দেয়।

সোমবার, ০৯ মে ২০২২ , ২৬ বৈশাখ ১৪২৮ ০৬ শাওয়াল ১৪৪৩

ভ্যানচুরিতে বাধা দেয়ায়

চালককে শ্বাসরোধ করে হত্যা : আসামি গ্রেপ্তার, স্বীকারোক্তি

যশোরের ঝিগরগাছায় ভ্যানচালক ইকরাম হত্যার রহস্য উদ্ঘাটন করেছে পিবিআই। ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন পিবিআইয়ের টিম গত শনিবার গভীর রাতে সাতক্ষীরার পাটকেলঘাটা এলাকায় অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত আলমগীর সরদারকে গ্রেপ্তার করেছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করছে।

পিবিআইয়ের যশোর জেলা পুলিশ সুপার রেশমা শারমিন জানান, নিহত ইকরাম হোসেন ওরফে ইকরাদ গরু পালন ও ভ্যান চালিয়ে কোন মতে জীবিকা নির্বাহ করত। ২০২১ সালে ১৯ জুলাই তিনি একটি গরু ৫৯ হাজার টাকায় বিক্রি করে। গত বছর ২০ জুলাই বিকেলে ইকরাদের মৃতদেহ তার বসতবাড়ি পাশ্ববর্তী কলাবাগানে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। এই ঘটনায় ইকরাদের মেয়ে সালমা খাতুন বাদী হয়ে জিকরগাছা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

যশোর জেলা পিবিআই স্ব-উদ্যোগে মামলাটির তদন্তভার গ্রহণ করেন। তদন্তকালে অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত সজিব, ইমন ও ওয়াসিম সরদার, সালাম সরদারকে গ্রেপ্তার করে এবং লুণ্ঠিত মালামাল উদ্ধার করে।

অভিযুক্ত সালাম সরদারের স্বীকারোক্তি মতে, হত্যাকা-ে জড়িত অভিযুক্ত আলমগীর সরদার দীর্ঘদিন দেশের বিভিন্ন এলাকায় পলাতক ছিল। অবশেষে গত শনিবার সাতক্ষীরা জেলার দেবহাটা থানা এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে। সে একজন ইটভাটা শ্রমিক হিসেবে দেশের বিভিন্ন জেলায় বিভিন্ন ইটভাটায় শ্রমিকের কাজ করত। অন্য অভিযুক্তরা চোরদলের সদস্য।

অভিযুক্তরা ভিকটিমের বাড়িতে ভ্যানগাড়ি চুরির উদ্দেশে যায়। ভ্যান নেয়ার সময় ইকরাদ তাদের বাধা দিলে অভিযুক্তরা তার গায়ের জামা দিয়ে হাত-পা বেঁধে ও গলায় ফাঁস দিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে লাশ কলাবাগানে ফেলে ভ্যান নিয়ে পালিয়ে যায়। অভিযুক্ত আসামি আলমগীর সরদার গতকাল আদালতে স্বীকারোক্তি দেয়।