ব্রহ্মপুত্র নদে নিখোঁজ শিশুর সন্ধান মেলেনি

প্রতিদিনের মতো অন্যান্য শিশুদের সঙ্গে বাড়ির পাশে খর¯্রােতা ব্রহ্মপুত্র নদে গোসল করতে গিয়েছিল জান্নাতি (৬) নামের শিশুটি। পরিবারে সকল শিশু ফিরে এলেও জান্নাতি আর ফিরে আসেনি। বাড়ির লোকজনসহ প্রতিবেশীরা জাল ফেলেও মেলেনি জান্নাতির সন্ধান। পরে কুড়িগ্রাম এবং রংপুর থেকে আসা ডুবুরির দল মধ্যরাত পর্যন্ত তল্লাশি চালিয়েও ছোট্ট শিশুটির সন্ধান না পেয়ে অভিযান পরিত্যক্ত ঘোষণা করে। এই ঘটনাটি ঘটেছে কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার যাত্রাপুর ইউনিয়নের চর রলাকাটা গ্রামে। শিশুটি ওই গ্রামের জাহাঙ্গীর আলমের মেয়ে। যাত্রাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আইয়ুব আলী সরকার জানান, গত শনিবার শিশুটি বাড়ির পাশে ব্রহ্মপুত্র নদে গোসল করতে যায়। এরপর থেকে তার কোন খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। তার সাথে যারা গোসল করতে গিয়েছিল তারা ফিরে আসলেও জান্নাতি ফিরে না আসায় পরিবারের লোকজনসহ প্রতিবেশীরা মেয়েটির সন্ধান পাওয়ার জন্য বিভিন্নভাবে চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হয়ে ডুবুরির দলকে খবর দেয়। পরে ডুবুরির দল মধ্যরাত পর্যন্ত ব্রহ্মপুত্র নদে তল্লাশি চালিয়েও শিশুটির আর কোন খোঁজ পায়নি। ব্রহ্মপুত্র নদে তীব্র ¯্রােতের কারণে সন্ধান কার্যক্রম স্থগিদ করা হয়। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে কুড়িগ্রাম ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন ইনচার্জ মোহাম্মদ আলী সাজ্জাদ জানান, আমরা দেরিতে খবর পেয়ে রংপুর থেকে ৪ জন এবং কুড়িগ্রাম থেকে ৪জনসহ মোট ৮ জন নিখোঁজ এলাকায় সন্ধ্যা থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত অনুসন্ধান চালিয়েও কোন ক্লু পাইনি। ব্রহ্মপুত্র নদে তীব্র ¯্রােত থাকায় তল্লাশি অভিযান শেষ করে আমরা ভোরের দিকে কুড়িগ্রামে ফিরে আসি।

মঙ্গলবার, ১০ মে ২০২২ , ২৭ বৈশাখ ১৪২৮ ০৭ শাওয়াল ১৪৪৩

ব্রহ্মপুত্র নদে নিখোঁজ শিশুর সন্ধান মেলেনি

প্রতিদিনের মতো অন্যান্য শিশুদের সঙ্গে বাড়ির পাশে খর¯্রােতা ব্রহ্মপুত্র নদে গোসল করতে গিয়েছিল জান্নাতি (৬) নামের শিশুটি। পরিবারে সকল শিশু ফিরে এলেও জান্নাতি আর ফিরে আসেনি। বাড়ির লোকজনসহ প্রতিবেশীরা জাল ফেলেও মেলেনি জান্নাতির সন্ধান। পরে কুড়িগ্রাম এবং রংপুর থেকে আসা ডুবুরির দল মধ্যরাত পর্যন্ত তল্লাশি চালিয়েও ছোট্ট শিশুটির সন্ধান না পেয়ে অভিযান পরিত্যক্ত ঘোষণা করে। এই ঘটনাটি ঘটেছে কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার যাত্রাপুর ইউনিয়নের চর রলাকাটা গ্রামে। শিশুটি ওই গ্রামের জাহাঙ্গীর আলমের মেয়ে। যাত্রাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আইয়ুব আলী সরকার জানান, গত শনিবার শিশুটি বাড়ির পাশে ব্রহ্মপুত্র নদে গোসল করতে যায়। এরপর থেকে তার কোন খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। তার সাথে যারা গোসল করতে গিয়েছিল তারা ফিরে আসলেও জান্নাতি ফিরে না আসায় পরিবারের লোকজনসহ প্রতিবেশীরা মেয়েটির সন্ধান পাওয়ার জন্য বিভিন্নভাবে চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হয়ে ডুবুরির দলকে খবর দেয়। পরে ডুবুরির দল মধ্যরাত পর্যন্ত ব্রহ্মপুত্র নদে তল্লাশি চালিয়েও শিশুটির আর কোন খোঁজ পায়নি। ব্রহ্মপুত্র নদে তীব্র ¯্রােতের কারণে সন্ধান কার্যক্রম স্থগিদ করা হয়। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে কুড়িগ্রাম ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন ইনচার্জ মোহাম্মদ আলী সাজ্জাদ জানান, আমরা দেরিতে খবর পেয়ে রংপুর থেকে ৪ জন এবং কুড়িগ্রাম থেকে ৪জনসহ মোট ৮ জন নিখোঁজ এলাকায় সন্ধ্যা থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত অনুসন্ধান চালিয়েও কোন ক্লু পাইনি। ব্রহ্মপুত্র নদে তীব্র ¯্রােত থাকায় তল্লাশি অভিযান শেষ করে আমরা ভোরের দিকে কুড়িগ্রামে ফিরে আসি।