কাজে যোগদান টিটিই শফিকুলের

রেলমন্ত্রীর স্ত্রীর নির্দেশে চলতেন ডিসিও নাসির

রেলমন্ত্রীর তিন আত্মীয়কে বিনা টিকেটে ট্রেন ভ্রমণের দায়ে জরিমানা আদায়ের জন্য বরখাস্ত হওয়া ঈশ্বরদী স্টেশনের ভ্রাম্যমাণ টিকেট পরীক্ষক (টিটিই) শফিকুল ইসলাম ট্রেনে কাজ শুরু করেছেন। গতকাল বেলা ১১টা ৫০ মিনিটে খুলনা থেকে চিলাহাটিগামী আন্তঃনগর ট্রেন রূপসা এক্সপ্রেসের টিটিই হিসেবে দায়িত্ব পালন শুরু করেন তিনি।

গত শুক্রবার রেলমন্ত্রীর স্ত্রীর নির্দেশে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করেছিলেন রেলওয়ের ডিসিও পাকশী মো. নাসির উদ্দীন। পরে রেলমন্ত্রীর নির্দেশে শফিুকলের বরখাস্তের আদেশ প্রত্যাহার করা হয় এবং সেই ডিসিওকে শোকজ করা হয়। সাময়িক বরখাস্তাদেশ প্রত্যাহারের চারদিন পর গতকাল ট্রেনে ডিউটি পেলেন টিটিই শফিকুল ইসলাম।

কাজে যোগ দিয়ে গতকাল টিটিই শফিকুল সাংবাদিকদের বলেন, ‘রেলমন্ত্রী স্যারের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ। তিনি আমার বরখাস্তাদেশ প্রত্যাহার করে নিয়ে কাজ করার সুযোগ করে দিয়েছেন। আমি আন্তরিকতা ও সততার সঙ্গে অতীতের মতো আগামী দিনেও দায়িত্ব পালন করবো।’

পাবনার ঈশ্বরদী রেল জংশন

থেকে বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে টিকেট ছাড়া ট্রেনে ওঠেন ‘রেলপথমন্ত্রীর আত্মীয়’ পরিচয়দানকারী ৩ যাত্রী। টিকেট না কাটলেও তারা রেলের এসি কেবিনের সিট দখল করেন। এতে রেলের ভ্রাম্যমাণ টিকেট পরীক্ষক (টিটিই) তাদের জরিমানা করেন। পরে ওই ৩ যাত্রী তাদের সঙ্গে অসদাচরণ করা হয় বলে রেলের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ করেন। এতে ভ্রাম্যমাণ টিকেট পরীক্ষক (টিটিই) শফিকুল ইসলামকে বৃহস্পতিবার রাতেই সাময়িক বরখাস্ত করে ডিসিও পাকশী মো. নাসির উদ্দীন।

রেলমন্ত্রীর স্ত্রীর নির্দেশে চলতেন ডিসিও নাসির

রেলমন্ত্রীর স্ত্রী শাম্মী আক্তার মনির নির্দেশে চলতেন ডিসিও পাকশী নাসির উদ্দীন। রেলওয়ের কাউকে তিনি পাত্তা দিতেন না। নিয়োগবাণিজ্য, রেলওয়ের জমি ইজারা ও বিভিন্ন বাণিজ্যিক স্টেশনে লেবার সর্দার নিয়োগের মাধ্যমে কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ রয়েছে এই ডিসিও নাসিরের বিরুদ্ধে। এসব অপকর্ম ধামাচাপা দিতে ডিসিও নাসির রেলমন্ত্রীর স্ত্রীর নির্দেশে কাজ করতেন বলে রেলওয়ে কর্মকর্তারা জানান।

রেল ভবনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা দাবি করেছেন, টিটিএ শফিকুল ইসলামকে সাময়িক বরখাস্তের আগে সংশ্লিষ্ট কোন কর্মকর্তারা সঙ্গে আলাপ করেননি ডিসিও পাকশী। মন্ত্রীর স্ত্রীর ফোন পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে টিটিইকে বরখাস্ত করা হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান। তাই এই প্রক্রিয়াটি ঠিক হয়নি এবং টিটিএ শফিকুলের বরখাস্ত আদেশ প্রত্যাহার করা হয়েছে বলে জানান রেলমন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন।

বুধবার, ১১ মে ২০২২ , ২৮ বৈশাখ ১৪২৮ ০৮ শাওয়াল ১৪৪৩

কাজে যোগদান টিটিই শফিকুলের

রেলমন্ত্রীর স্ত্রীর নির্দেশে চলতেন ডিসিও নাসির

রেলমন্ত্রীর তিন আত্মীয়কে বিনা টিকেটে ট্রেন ভ্রমণের দায়ে জরিমানা আদায়ের জন্য বরখাস্ত হওয়া ঈশ্বরদী স্টেশনের ভ্রাম্যমাণ টিকেট পরীক্ষক (টিটিই) শফিকুল ইসলাম ট্রেনে কাজ শুরু করেছেন। গতকাল বেলা ১১টা ৫০ মিনিটে খুলনা থেকে চিলাহাটিগামী আন্তঃনগর ট্রেন রূপসা এক্সপ্রেসের টিটিই হিসেবে দায়িত্ব পালন শুরু করেন তিনি।

গত শুক্রবার রেলমন্ত্রীর স্ত্রীর নির্দেশে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করেছিলেন রেলওয়ের ডিসিও পাকশী মো. নাসির উদ্দীন। পরে রেলমন্ত্রীর নির্দেশে শফিুকলের বরখাস্তের আদেশ প্রত্যাহার করা হয় এবং সেই ডিসিওকে শোকজ করা হয়। সাময়িক বরখাস্তাদেশ প্রত্যাহারের চারদিন পর গতকাল ট্রেনে ডিউটি পেলেন টিটিই শফিকুল ইসলাম।

কাজে যোগ দিয়ে গতকাল টিটিই শফিকুল সাংবাদিকদের বলেন, ‘রেলমন্ত্রী স্যারের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ। তিনি আমার বরখাস্তাদেশ প্রত্যাহার করে নিয়ে কাজ করার সুযোগ করে দিয়েছেন। আমি আন্তরিকতা ও সততার সঙ্গে অতীতের মতো আগামী দিনেও দায়িত্ব পালন করবো।’

পাবনার ঈশ্বরদী রেল জংশন

থেকে বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে টিকেট ছাড়া ট্রেনে ওঠেন ‘রেলপথমন্ত্রীর আত্মীয়’ পরিচয়দানকারী ৩ যাত্রী। টিকেট না কাটলেও তারা রেলের এসি কেবিনের সিট দখল করেন। এতে রেলের ভ্রাম্যমাণ টিকেট পরীক্ষক (টিটিই) তাদের জরিমানা করেন। পরে ওই ৩ যাত্রী তাদের সঙ্গে অসদাচরণ করা হয় বলে রেলের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ করেন। এতে ভ্রাম্যমাণ টিকেট পরীক্ষক (টিটিই) শফিকুল ইসলামকে বৃহস্পতিবার রাতেই সাময়িক বরখাস্ত করে ডিসিও পাকশী মো. নাসির উদ্দীন।

রেলমন্ত্রীর স্ত্রীর নির্দেশে চলতেন ডিসিও নাসির

রেলমন্ত্রীর স্ত্রী শাম্মী আক্তার মনির নির্দেশে চলতেন ডিসিও পাকশী নাসির উদ্দীন। রেলওয়ের কাউকে তিনি পাত্তা দিতেন না। নিয়োগবাণিজ্য, রেলওয়ের জমি ইজারা ও বিভিন্ন বাণিজ্যিক স্টেশনে লেবার সর্দার নিয়োগের মাধ্যমে কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ রয়েছে এই ডিসিও নাসিরের বিরুদ্ধে। এসব অপকর্ম ধামাচাপা দিতে ডিসিও নাসির রেলমন্ত্রীর স্ত্রীর নির্দেশে কাজ করতেন বলে রেলওয়ে কর্মকর্তারা জানান।

রেল ভবনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা দাবি করেছেন, টিটিএ শফিকুল ইসলামকে সাময়িক বরখাস্তের আগে সংশ্লিষ্ট কোন কর্মকর্তারা সঙ্গে আলাপ করেননি ডিসিও পাকশী। মন্ত্রীর স্ত্রীর ফোন পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে টিটিইকে বরখাস্ত করা হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান। তাই এই প্রক্রিয়াটি ঠিক হয়নি এবং টিটিএ শফিকুলের বরখাস্ত আদেশ প্রত্যাহার করা হয়েছে বলে জানান রেলমন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন।