আসানির প্রভাবে বৃষ্টি হতে পারে আজও

ঘূর্ণিঝড় আসানির প্রভাবে আরও দু-একদিন বৃষ্টিপাত হতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস।

গতকাল রাতে ঘূর্ণিঝড় আসানি দুর্বল হয়ে ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশে আঘাত হানে। পরে এটি ভারতের বিশাখাপট্টনম উপকূলে স্থল নিম্নচাপে পরিণত হতে পারে। তবে আসানির বাংলাদেশের দিকে আসার সম্ভাবনা কম বলে জানান আবহাওয়াবিদরা।

আবহাওয়াবিদ আবুল কালাম মল্লিক জানিয়েছেন, ঘূর্ণিঝড় আসানি ঘণ্টায় ৬০ থেকে ৮০ কিলোমিটার গতি নিয়ে ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশে অতিক্রম করবে। এর প্রভাবে ভারতের অন্ধ্র, ওডিশা, পশ্চিমবঙ্গসহ বিস্তীর্ণ এলাকাজুড়ে বৃষ্টি হতে পারে। বাংলাদেশ ও ভারতে ওই বৃষ্টি ১৪ মে পর্যন্ত চলতে পারে। এর প্রভাবে দেশের বিভিন্ন স্থানে আরও বৃষ্টিপাত হতে পারে। বিশেষ করে সিলেট, ঢাকা, খুলনা ও বরিশাল বিভাগে সবচেয়ে বেশি বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।’ এটি বাংলাদেশের দিকে আসার সম্ভাবনা কম বলে জানান তিনি।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের পর্যবেক্ষণ অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশের সবচেয়ে বেশি বৃষ্টি হয়েছে সিলেটে, ১১৯ মিলিমিটার। ঢাকায় গতকাল সারাদিনে ২৭ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। দেশের বেশিরভাগ এলাকায় মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টি শুরু হয়েছে। এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বিকেল পাঁচটায় দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টি চলছিল। বৃষ্টির কারণে ঢাকা, চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন বড় শহরে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর থেকে চট্টগ্রাম, মোংলা ও পায়রা বন্দর এবং কক্সবাজার উপকূলকে ২ নম্বর দূরবর্তী হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

এছাড়া দেশের প্রধান নদ-নদীগুলোকে ১ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। সাগরের মাছ ধরার নৌকা ও নদ-নদীর নৌযানগুলোকে সাবধানে চলাচল করতে পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার, ১২ মে ২০২২ , ২৯ বৈশাখ ১৪২৮ ০৯ শাওয়াল ১৪৪৩

আসানির প্রভাবে বৃষ্টি হতে পারে আজও

ঘূর্ণিঝড় আসানির প্রভাবে আরও দু-একদিন বৃষ্টিপাত হতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস।

গতকাল রাতে ঘূর্ণিঝড় আসানি দুর্বল হয়ে ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশে আঘাত হানে। পরে এটি ভারতের বিশাখাপট্টনম উপকূলে স্থল নিম্নচাপে পরিণত হতে পারে। তবে আসানির বাংলাদেশের দিকে আসার সম্ভাবনা কম বলে জানান আবহাওয়াবিদরা।

আবহাওয়াবিদ আবুল কালাম মল্লিক জানিয়েছেন, ঘূর্ণিঝড় আসানি ঘণ্টায় ৬০ থেকে ৮০ কিলোমিটার গতি নিয়ে ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশে অতিক্রম করবে। এর প্রভাবে ভারতের অন্ধ্র, ওডিশা, পশ্চিমবঙ্গসহ বিস্তীর্ণ এলাকাজুড়ে বৃষ্টি হতে পারে। বাংলাদেশ ও ভারতে ওই বৃষ্টি ১৪ মে পর্যন্ত চলতে পারে। এর প্রভাবে দেশের বিভিন্ন স্থানে আরও বৃষ্টিপাত হতে পারে। বিশেষ করে সিলেট, ঢাকা, খুলনা ও বরিশাল বিভাগে সবচেয়ে বেশি বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।’ এটি বাংলাদেশের দিকে আসার সম্ভাবনা কম বলে জানান তিনি।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের পর্যবেক্ষণ অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশের সবচেয়ে বেশি বৃষ্টি হয়েছে সিলেটে, ১১৯ মিলিমিটার। ঢাকায় গতকাল সারাদিনে ২৭ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। দেশের বেশিরভাগ এলাকায় মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টি শুরু হয়েছে। এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বিকেল পাঁচটায় দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টি চলছিল। বৃষ্টির কারণে ঢাকা, চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন বড় শহরে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর থেকে চট্টগ্রাম, মোংলা ও পায়রা বন্দর এবং কক্সবাজার উপকূলকে ২ নম্বর দূরবর্তী হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

এছাড়া দেশের প্রধান নদ-নদীগুলোকে ১ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। সাগরের মাছ ধরার নৌকা ও নদ-নদীর নৌযানগুলোকে সাবধানে চলাচল করতে পরামর্শ দেয়া হয়েছে।