ঘুষ দুর্নীতি : পদ ছাড়লেন আইডিআরএ চেয়ারম্যান মোশাররফ

নতুন চেয়ারম্যান জয়নুল বারী

ঘুষ বাণিজ্যের মাধ্যমে অবৈধ সম্পদ অর্জন এবং দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগের মুখে পদ ছাড়লেন বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের (আইডিআরএ) চেয়ারম্যান ড. মোশাররফ হোসেন। গত মঙ্গলবার ‘ব্যক্তিগত কারণ’ দেখিয়ে তিনি আইডিআরের চেয়ারম্যান পদ থেকে পদত্যাগপত্র জমা দেন। গতকাল অর্থ মন্ত্রণালয় তার পদত্যাগপত্র গ্রহণ করেছে। অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা তার পদত্যাগের বিষয়টি নিশ্চিত করেন। মোশাররফ হোসেনের পদত্যাগপত্র গ্রহণের পরই আইডিআরএ চেয়ারম্যানের দায়িত্ব দেয়া হয় সাবেক সচিব জয়নুল বারীকে । নতুন এ চেয়ারম্যান সরকারের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ে দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি দুর্নীতি দমন কমিশনের সাবেক মহাপরিচালক ছিলেন।

মোশাররফ হোসেন বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ সংস্থার চেয়ারম্যান পদে দায়িত্ব নেয়ার পরপরই তার বিরুদ্ধে স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ উঠে। বেসরকারি বীমা প্রতিষ্ঠানগুলোতে চেয়ারম্যন এবং পরিচালনা পর্ষদ গঠনের জন্য তাকে মোটা অঙ্কের ঘুষ দিতে হতো বলে অভিযোগ রয়েছে। সম্প্রতি চাপে ফেলে ঘুষের অভিযোগ প্রকাশ্যে আসে বেসরকারি ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্সে দুই কোটি টাকা ঘুষ দাবির পর। ওই প্রতিষ্ঠানে পরিচালনা পর্ষদ গঠনের অনুমোদনের বিপরীতে তিনি দুই কোটি টাকা ঘুষ দাবি করেন। প্রতিষ্ঠানটি এতে রাজি না হলে তিনি শেষ পর্যন্ত ৫০ লাখ টাকা ঘুষ দিতে হবে বলে চাপ প্রয়োগ করেন। উপায় না দেখে ডেল্টা লাইফের একজন কর্মকর্তা বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের সদ্য পদত্যাগী চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেনের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করে বিষয়টি প্রকাশ্যে আনেন।

এ নিয়ে দুর্নীতি দমন কমিশন দুদকেও অভিযোগ করে প্রতিষ্ঠানটি। পরে ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্সের নিবন্ধন বাতিল করে দেয়ার হুমকি দিয়ে অভিযোগ প্রত্যাহারে প্রতিষ্ঠানটি বাধ্য করলেও দুদক অভিযোগ অনুসন্ধানের সিদ্ধান্ত নেয়।

নিজের অপকর্ম ঢাকতে মোশাররফ হোসেন ডেল্টা লাইফের পরিচালনা পর্ষদ বাতিল করে সেখানে প্রশাসক নিয়োগ করেন ক্ষমতার অপব্যবহার করে। এজন্য তিনি একটি এলাকা থেকে গ্রাহক সাজিয়ে কয়েকজন বীমা গ্রাহকের নাম দিয়ে ডেল্টা লাইফের বিরুদ্ধে হয়রানির কাল্পনিক অভিযোগও দাঁড় করান। যদিও পরে ওই অভিযোগ ভুয়া বলে প্রমাণিত হয়। এমনকি অভিযোগকারী কেউ ডেল্টা লাইফের গ্রাহক ছিলেন না বলেও উঠে আসে। মোশাররফ হোসেন আইডিআরএ চেয়ারম্যানের পদে থেকে অবৈধভাবে বেসরকারি প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা, শেয়ার ব্যবসা এবং অবৈধভাবে সম্পদ অর্জনের অভিযোগ সামনে আসে।

২০১৮ সালের মে মাসে আইডিআরএ-এর সদস্য হিসেবে নিয়োগ পাওয়া মোশাররফ হোসেন দুই বছর পর ২০২০ সালের সেপ্টেম্বরে প্রতিষ্ঠানটি চেয়ারম্যান হন। মাত্র দুই বছর পার হতে না হতেই আইডিআরএ চেয়ারম্যান পদ থেকে পদত্যাগ করলেন তিনি।

অভিযোগ রয়েছে, আইডিআরএ চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেনের অনিয়ম ও দুর্নীতির মাধ্যমে বিপুল অর্থের মালিক হয়েছেন। তার ৩০টি ব্যাংক হিসাবে ২০১৭ সাল থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত ৪০ কোটি টাকা লেনদের তথ্য পাওয়ার কথা জানিয়েছে বিএফআইইউ।

আরও অভিযোগ রয়েছে, মোশাররফ আইডিআরএ-এর দায়িত্ব নেয়ার পর থেকেই বীমার শেয়ারে অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি হতে শুরু করে। বীমার শেয়ারে বিনিয়োগ করে তিনি পরে নিজেই মূল্য সংবেদনশীল তথ্য প্রকাশ করেছেন। আর এর মাধ্যমে নিজে ও তার স্বার্থসংশ্লিষ্টরা ব্যাপকভাবে লাভবান হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার, ১৬ জুন ২০২২ , ২ আষাড় ১৪২৮ ১৬ জিলকদ ১৪৪৩

ঘুষ দুর্নীতি : পদ ছাড়লেন আইডিআরএ চেয়ারম্যান মোশাররফ

নতুন চেয়ারম্যান জয়নুল বারী

বাকী বিল্লাহ ও সাইফ বাবলু

ঘুষ বাণিজ্যের মাধ্যমে অবৈধ সম্পদ অর্জন এবং দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগের মুখে পদ ছাড়লেন বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের (আইডিআরএ) চেয়ারম্যান ড. মোশাররফ হোসেন। গত মঙ্গলবার ‘ব্যক্তিগত কারণ’ দেখিয়ে তিনি আইডিআরের চেয়ারম্যান পদ থেকে পদত্যাগপত্র জমা দেন। গতকাল অর্থ মন্ত্রণালয় তার পদত্যাগপত্র গ্রহণ করেছে। অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা তার পদত্যাগের বিষয়টি নিশ্চিত করেন। মোশাররফ হোসেনের পদত্যাগপত্র গ্রহণের পরই আইডিআরএ চেয়ারম্যানের দায়িত্ব দেয়া হয় সাবেক সচিব জয়নুল বারীকে । নতুন এ চেয়ারম্যান সরকারের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ে দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি দুর্নীতি দমন কমিশনের সাবেক মহাপরিচালক ছিলেন।

মোশাররফ হোসেন বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ সংস্থার চেয়ারম্যান পদে দায়িত্ব নেয়ার পরপরই তার বিরুদ্ধে স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ উঠে। বেসরকারি বীমা প্রতিষ্ঠানগুলোতে চেয়ারম্যন এবং পরিচালনা পর্ষদ গঠনের জন্য তাকে মোটা অঙ্কের ঘুষ দিতে হতো বলে অভিযোগ রয়েছে। সম্প্রতি চাপে ফেলে ঘুষের অভিযোগ প্রকাশ্যে আসে বেসরকারি ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্সে দুই কোটি টাকা ঘুষ দাবির পর। ওই প্রতিষ্ঠানে পরিচালনা পর্ষদ গঠনের অনুমোদনের বিপরীতে তিনি দুই কোটি টাকা ঘুষ দাবি করেন। প্রতিষ্ঠানটি এতে রাজি না হলে তিনি শেষ পর্যন্ত ৫০ লাখ টাকা ঘুষ দিতে হবে বলে চাপ প্রয়োগ করেন। উপায় না দেখে ডেল্টা লাইফের একজন কর্মকর্তা বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের সদ্য পদত্যাগী চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেনের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করে বিষয়টি প্রকাশ্যে আনেন।

এ নিয়ে দুর্নীতি দমন কমিশন দুদকেও অভিযোগ করে প্রতিষ্ঠানটি। পরে ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্সের নিবন্ধন বাতিল করে দেয়ার হুমকি দিয়ে অভিযোগ প্রত্যাহারে প্রতিষ্ঠানটি বাধ্য করলেও দুদক অভিযোগ অনুসন্ধানের সিদ্ধান্ত নেয়।

নিজের অপকর্ম ঢাকতে মোশাররফ হোসেন ডেল্টা লাইফের পরিচালনা পর্ষদ বাতিল করে সেখানে প্রশাসক নিয়োগ করেন ক্ষমতার অপব্যবহার করে। এজন্য তিনি একটি এলাকা থেকে গ্রাহক সাজিয়ে কয়েকজন বীমা গ্রাহকের নাম দিয়ে ডেল্টা লাইফের বিরুদ্ধে হয়রানির কাল্পনিক অভিযোগও দাঁড় করান। যদিও পরে ওই অভিযোগ ভুয়া বলে প্রমাণিত হয়। এমনকি অভিযোগকারী কেউ ডেল্টা লাইফের গ্রাহক ছিলেন না বলেও উঠে আসে। মোশাররফ হোসেন আইডিআরএ চেয়ারম্যানের পদে থেকে অবৈধভাবে বেসরকারি প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা, শেয়ার ব্যবসা এবং অবৈধভাবে সম্পদ অর্জনের অভিযোগ সামনে আসে।

২০১৮ সালের মে মাসে আইডিআরএ-এর সদস্য হিসেবে নিয়োগ পাওয়া মোশাররফ হোসেন দুই বছর পর ২০২০ সালের সেপ্টেম্বরে প্রতিষ্ঠানটি চেয়ারম্যান হন। মাত্র দুই বছর পার হতে না হতেই আইডিআরএ চেয়ারম্যান পদ থেকে পদত্যাগ করলেন তিনি।

অভিযোগ রয়েছে, আইডিআরএ চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেনের অনিয়ম ও দুর্নীতির মাধ্যমে বিপুল অর্থের মালিক হয়েছেন। তার ৩০টি ব্যাংক হিসাবে ২০১৭ সাল থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত ৪০ কোটি টাকা লেনদের তথ্য পাওয়ার কথা জানিয়েছে বিএফআইইউ।

আরও অভিযোগ রয়েছে, মোশাররফ আইডিআরএ-এর দায়িত্ব নেয়ার পর থেকেই বীমার শেয়ারে অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি হতে শুরু করে। বীমার শেয়ারে বিনিয়োগ করে তিনি পরে নিজেই মূল্য সংবেদনশীল তথ্য প্রকাশ করেছেন। আর এর মাধ্যমে নিজে ও তার স্বার্থসংশ্লিষ্টরা ব্যাপকভাবে লাভবান হয়েছেন।