নিরাপদ খাদ্যপ্রাপ্তি নাগরিকের অধিকার

আর কে চৌধুরী

করোনা মহামারী শুরুর আগে ২০১৯ সালে রাজধানীসহ আশপাশের হোটেল-রেস্তোরাঁগুলোর মান নির্ধারণ কাজ শুরু করেছিলেন খাদ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ। প্রথম পর্যায়ে রাজধানীর ৫৭টি হোটেল-রেস্তোরাঁকে গ্রেডিং পদ্ধতির আওতায় আনা হয়। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ‘এ প্লাস’ পেয়েছিল ১৮টি এবং ‘এ’ গ্রেড ৩৯টি। রাজধানীর ২০০ হোটেল-রেস্তোরাঁ থেকে এগুলোকে নির্বাচিত করা হয়েছিল। খাবারের মান, রান্নার পরিবেশ, পণ্যের মান, পরিবেশনা, পরিবেশনকারী ও অবকাঠামোগত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতাসহ আরও কিছু বিষয় বিবেচনায় নিয়ে এ গ্রেডিং করা হয়। এ ক্ষেত্রে ‘এ প্লাস’, ‘এ’ ছাড়াও ‘বি’ ও ‘সি’ ক্যাটাগরিও রয়েছে।

এ প্লাস পাওয়া প্রতিষ্ঠানগুলো উত্তম মানের এবং এ গ্রেড প্রতিষ্ঠানগুলোকে ভালো মানের হোটেল হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। এসব হোটেলের সামনে ‘এ প্লাস’ হলে সবুজ, ‘এ’ হলে নীল, ‘বি’ হলে হলুদ ও ‘সি’ হলে কমলা রঙের স্টিকার লাগানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। কমলা রঙের স্টিকারের অর্থ অনিরাপদ খাদ্য। সিদ্ধান্ত হয়েছিল, এক মাসের মধ্যে মান ভালো না হলে সেগুলোর লাইসেন্স বাতিল করা হবে। কিন্তু কার্যত এতে কোন সুফল অর্জিত হয়নি। নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করতে কর্তৃপক্ষকে আরও তৎপর হতে হবে। গড়ে তুলতে হবে জনসচেতনতা।

সাধারণত নিরাপদ খাদ্যের ঝুঁকি দুই ধরনের : ক. জীবাণু সংক্রান্ত দূষণ। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই এ কারণে দূষিত খাদ্য মানবদেহে বিভিন্ন বিরূপ উপসর্গের সৃষ্টি করে। খ. রাসায়নিক দ্রব্যাদি দ্বারা দূষণ। এর মধ্যে রয়েছে পরিবেশ দূষণসংক্রান্ত দ্রব্যাদি, পশুর ওষুধের অবশিষ্টাংশ, ভারি ধাতু অথবা অন্যান্য অবশিষ্টাংশ, যা কারও অগোচরে খাদ্যে অনুপ্রবেশ করে। শিল্পোন্নত দেশে খাদ্যবাহিত রোগের সংখ্যা প্রতি বছর শতকরা ৩০ ভাগ বৃদ্ধি পাচ্ছে। অনুন্নত দেশসমূহে এ সংক্রান্ত তথ্যপ্রাপ্তির দুর্বলতা থাকে। তবে এ কথা অনস্বীকার্য যে, এসব দেশেই দূষিত খাদ্যজনিত রোগের প্রকোপ ও ব্যাপকতা তুলনামূলক বেশি। অনিরাপদ খাদ্য শুধু স্বাস্থ্যের ঝুঁকিরই কারণ নয়, দেহে রোগের বাসা বাঁধারও অন্যতম কারণ। ডায়রিয়া থেকে শুরু করে ক্যান্সারÑএমন দুই শতাধিক রোগের জন্য দায়ী অনিরাপদ খাদ্য। দেশে উৎপাদিত এবং বিদেশ থেকে আমদানি করা বিভিন্ন খাদ্যে জীবাণু ও মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর রাসায়নিক উপাদান ঠেকানোর জন্য বিভিন্ন সময় উদ্যোগ নেয়া হলেও তা পর্যাপ্ত নয়।

জনস্বাস্থ্য নিশ্চিত করতে নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাবারের কোন বিকল্প নেই। নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাদ্য যেমন শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়, উল্টো দিকে অনিরাপদ খাদ্য হৃদরোগ, ক্যান্সার, কিডনি রোগ, বিকলাঙ্গসহ অনেক রোগের কারণ হয়। দুঃখজনক হলেও সত্যি, এসব রোগ বাংলাদেশে মহামারীর আকার নিয়েছে। বলতে গেলে ঘরে ঘরে পৌঁছে গেছে এসব ঘাতক ব্যাধি।

নতুন করে আর বলার অপেক্ষা রাখে নাÑখাদ্যে ভেজালই জনসংখ্যার বড় একটা অংশকে তিলে তিলে শেষ করে দিচ্ছে। বিশেষ করে ট্রান্স ফ্যাটি এসিড (টিএফএ) যুক্ত বিষাক্ত খাবার। যার প্রধান উৎস ডালডা বা বনস্পতি। বেকারি পণ্য, প্রক্রিয়াজাত খাদ্য ও ভাজা পোড়া খাবারে ব্যাপকভাবে ডালডা ব্যবহৃত হয়। বিশেষ করে হোটেল-রেস্তেরাঁয়।

এসব খাদ্যের কারণেই হৃদ্রোগে মৃত্যুর সর্বাধিক ঝুঁকিতে থাকা ১৫টি দেশের তালিকায় স্থান করে নিয়েছে বাংলাদেশ। দিনে দিনে সেই অবস্থার আরও অবনতি ঘটছে। কেননা নানাভাবে সচেতন করার পরও খাদ্যে ভেজালের পরিমাণ কমেনি। বাজারের বেশির ভাগ খাদ্যই এখন কম-বেশি ভেজালযুক্ত। এমন পরিস্থিতিতে নিরাপদ খাবার পাওয়া ‘খড়ের গাদায় সুই খোঁজা’র মতো বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে।

যদিও সরকার নিরাপদ খাদ্য আইনসহ বেশ কয়েকটি বিধিমালা ও প্রবিধিমালা করে বিএফএসএকে আরও সক্রিয় করার উদ্যোগ নিয়েছে। কিন্তু শুধু আইন আর বিধিমালা দিয়ে নিরাপদ খাদ্যর মতো এত ব্যাপক লক্ষ্যে পৌঁছানো খুবই কঠিন। আমাদের অভিজ্ঞতা বলে, এসব উদ্যোগে কোনো কাজই হয়নি।

অনেক সীমাবদ্ধতার মধ্যেও মানুষের জন্য নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করা সম্ভব। অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে সব শক্তি নিয়ে সরকারকে মাঠে নামতে হবে। তা না হলে খাদ্যে ভেজাল বন্ধ করা সম্ভব না।

[লেখক : সাবেক চেয়ারম্যান, রাজউক]

আরও খবর

বুধবার, ০৬ জুলাই ২০২২ , ২২ আষাড় ১৪২৮ ২৬ জিলহজ ১৪৪৩

নিরাপদ খাদ্যপ্রাপ্তি নাগরিকের অধিকার

আর কে চৌধুরী

করোনা মহামারী শুরুর আগে ২০১৯ সালে রাজধানীসহ আশপাশের হোটেল-রেস্তোরাঁগুলোর মান নির্ধারণ কাজ শুরু করেছিলেন খাদ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ। প্রথম পর্যায়ে রাজধানীর ৫৭টি হোটেল-রেস্তোরাঁকে গ্রেডিং পদ্ধতির আওতায় আনা হয়। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ‘এ প্লাস’ পেয়েছিল ১৮টি এবং ‘এ’ গ্রেড ৩৯টি। রাজধানীর ২০০ হোটেল-রেস্তোরাঁ থেকে এগুলোকে নির্বাচিত করা হয়েছিল। খাবারের মান, রান্নার পরিবেশ, পণ্যের মান, পরিবেশনা, পরিবেশনকারী ও অবকাঠামোগত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতাসহ আরও কিছু বিষয় বিবেচনায় নিয়ে এ গ্রেডিং করা হয়। এ ক্ষেত্রে ‘এ প্লাস’, ‘এ’ ছাড়াও ‘বি’ ও ‘সি’ ক্যাটাগরিও রয়েছে।

এ প্লাস পাওয়া প্রতিষ্ঠানগুলো উত্তম মানের এবং এ গ্রেড প্রতিষ্ঠানগুলোকে ভালো মানের হোটেল হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। এসব হোটেলের সামনে ‘এ প্লাস’ হলে সবুজ, ‘এ’ হলে নীল, ‘বি’ হলে হলুদ ও ‘সি’ হলে কমলা রঙের স্টিকার লাগানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। কমলা রঙের স্টিকারের অর্থ অনিরাপদ খাদ্য। সিদ্ধান্ত হয়েছিল, এক মাসের মধ্যে মান ভালো না হলে সেগুলোর লাইসেন্স বাতিল করা হবে। কিন্তু কার্যত এতে কোন সুফল অর্জিত হয়নি। নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করতে কর্তৃপক্ষকে আরও তৎপর হতে হবে। গড়ে তুলতে হবে জনসচেতনতা।

সাধারণত নিরাপদ খাদ্যের ঝুঁকি দুই ধরনের : ক. জীবাণু সংক্রান্ত দূষণ। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই এ কারণে দূষিত খাদ্য মানবদেহে বিভিন্ন বিরূপ উপসর্গের সৃষ্টি করে। খ. রাসায়নিক দ্রব্যাদি দ্বারা দূষণ। এর মধ্যে রয়েছে পরিবেশ দূষণসংক্রান্ত দ্রব্যাদি, পশুর ওষুধের অবশিষ্টাংশ, ভারি ধাতু অথবা অন্যান্য অবশিষ্টাংশ, যা কারও অগোচরে খাদ্যে অনুপ্রবেশ করে। শিল্পোন্নত দেশে খাদ্যবাহিত রোগের সংখ্যা প্রতি বছর শতকরা ৩০ ভাগ বৃদ্ধি পাচ্ছে। অনুন্নত দেশসমূহে এ সংক্রান্ত তথ্যপ্রাপ্তির দুর্বলতা থাকে। তবে এ কথা অনস্বীকার্য যে, এসব দেশেই দূষিত খাদ্যজনিত রোগের প্রকোপ ও ব্যাপকতা তুলনামূলক বেশি। অনিরাপদ খাদ্য শুধু স্বাস্থ্যের ঝুঁকিরই কারণ নয়, দেহে রোগের বাসা বাঁধারও অন্যতম কারণ। ডায়রিয়া থেকে শুরু করে ক্যান্সারÑএমন দুই শতাধিক রোগের জন্য দায়ী অনিরাপদ খাদ্য। দেশে উৎপাদিত এবং বিদেশ থেকে আমদানি করা বিভিন্ন খাদ্যে জীবাণু ও মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর রাসায়নিক উপাদান ঠেকানোর জন্য বিভিন্ন সময় উদ্যোগ নেয়া হলেও তা পর্যাপ্ত নয়।

জনস্বাস্থ্য নিশ্চিত করতে নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাবারের কোন বিকল্প নেই। নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাদ্য যেমন শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়, উল্টো দিকে অনিরাপদ খাদ্য হৃদরোগ, ক্যান্সার, কিডনি রোগ, বিকলাঙ্গসহ অনেক রোগের কারণ হয়। দুঃখজনক হলেও সত্যি, এসব রোগ বাংলাদেশে মহামারীর আকার নিয়েছে। বলতে গেলে ঘরে ঘরে পৌঁছে গেছে এসব ঘাতক ব্যাধি।

নতুন করে আর বলার অপেক্ষা রাখে নাÑখাদ্যে ভেজালই জনসংখ্যার বড় একটা অংশকে তিলে তিলে শেষ করে দিচ্ছে। বিশেষ করে ট্রান্স ফ্যাটি এসিড (টিএফএ) যুক্ত বিষাক্ত খাবার। যার প্রধান উৎস ডালডা বা বনস্পতি। বেকারি পণ্য, প্রক্রিয়াজাত খাদ্য ও ভাজা পোড়া খাবারে ব্যাপকভাবে ডালডা ব্যবহৃত হয়। বিশেষ করে হোটেল-রেস্তেরাঁয়।

এসব খাদ্যের কারণেই হৃদ্রোগে মৃত্যুর সর্বাধিক ঝুঁকিতে থাকা ১৫টি দেশের তালিকায় স্থান করে নিয়েছে বাংলাদেশ। দিনে দিনে সেই অবস্থার আরও অবনতি ঘটছে। কেননা নানাভাবে সচেতন করার পরও খাদ্যে ভেজালের পরিমাণ কমেনি। বাজারের বেশির ভাগ খাদ্যই এখন কম-বেশি ভেজালযুক্ত। এমন পরিস্থিতিতে নিরাপদ খাবার পাওয়া ‘খড়ের গাদায় সুই খোঁজা’র মতো বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে।

যদিও সরকার নিরাপদ খাদ্য আইনসহ বেশ কয়েকটি বিধিমালা ও প্রবিধিমালা করে বিএফএসএকে আরও সক্রিয় করার উদ্যোগ নিয়েছে। কিন্তু শুধু আইন আর বিধিমালা দিয়ে নিরাপদ খাদ্যর মতো এত ব্যাপক লক্ষ্যে পৌঁছানো খুবই কঠিন। আমাদের অভিজ্ঞতা বলে, এসব উদ্যোগে কোনো কাজই হয়নি।

অনেক সীমাবদ্ধতার মধ্যেও মানুষের জন্য নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করা সম্ভব। অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে সব শক্তি নিয়ে সরকারকে মাঠে নামতে হবে। তা না হলে খাদ্যে ভেজাল বন্ধ করা সম্ভব না।

[লেখক : সাবেক চেয়ারম্যান, রাজউক]