টাকার দাম আরও ২৫ পয়সা কমলো

যুক্তরাষ্ট্রের মুদ্রা ইউএস ডলারের বিপরীতে আরও ২৫ পয়সা দর হারালো বাংলাদেশি মুদ্রা টাকা। গতকাল আন্তঃব্যাংক লেনদেনে এক ডলার বিক্রি হয়েছে ৯৪ টাকা ৭০ পয়সায়। গত বৃহস্পতিবার যা ছিল ৯৪ টাকা ৪৫ পয়সা।

বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে জানা যায়, গতকাল ব্যাংকগুলোর চাহিদা অনুযায়ী কেন্দ্রীয় ব্যাংক ১৩ কোটি ২০ লাখ ডলার বিক্রি করেছে। দাম নির্ধারিত হয়েছে ৯৪ টাকা ৭০ পয়সা। এটাই গতকালের আন্তঃব্যাংক দর। বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিসংখ্যানে দেখা যায়, গত এক মাসের ব্যবধানে ডলারের বিপরীতে টাকার মান কমেছে ৫ শতাংশের বেশি। আর এক বছরের ব্যবধানে কমেছে ১০ দশমিক ৮০ শতাংশ। এদিকে খোলা বাজারে ডলার বিক্রি হচ্ছে আরও চড়া দামে। ১০৫ টাকা পর্যন্ত উঠে গেছে ডলার দর।

খোলাবাজারে ডলারের চাহিদা বাড়লে মুদ্রা বিনিময়ের প্রতিষ্ঠানগুলো সাধারণত ব্যাংক থেকে ডলার কিনে গ্রাহকের কাছে বিক্রি করে থাকে। এখন ব্যাংকেও ডলারের সংকট। এজন্য অনেক ব্যাংক এখন উল্টো খোলাবাজারে ডলার খুঁজছে। আমদানি ব্যয় বৃদ্ধি ও প্রবাসী আয় বা রেমিট্যান্স কমে যাওয়ায় দেশে ইউএস ডলারের তীব্র সংকট তৈরি হয়েছে। প্রতিনিয়ত বাড়ছে ডলারের দাম। এজন্য রিজার্ভ থেকে ডলার ছেড়ে বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখার চেষ্টা করছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। প্রতিনিয়ত দামও বাড়াচ্ছে। এরপরও সংকট কাটছে না।

বাংলাদেশ ব্যাংক যে দামে ডলার বিক্রি করছে, বাজারে তার চেয়ে ৩-?৪ টাকা বেশি দরে কেনাবেচা হচ্ছে। ফলে আমদানিকারকদের বেশি দামে ডলার কিনতে হচ্ছে। অনেক ব্যাংক পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে প্রতি ডলারের দাম ১০১ টাকা পর্যন্ত নিয়েছে। কোন কোন ব্যাংক প্রতি ডলারে ১০০ টাকা দিয়েও প্রবাসী আয় পাচ্ছে না। বাজার ‘স্থিতিশীল’ করতে গত অর্থবছরের ধারাবাহিকতায় নতুন অর্থবছরেও বিদেশি মুদ্রার সঞ্চয়ন বা রিজার্ভ থেকে ডলার বিক্রি করে চলেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

মঙ্গলবার, ২৬ জুলাই ২০২২ , ১১ শ্রাবণ ১৪২৯ ২৭ জিলহজ ১৪৪৩

টাকার দাম আরও ২৫ পয়সা কমলো

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

যুক্তরাষ্ট্রের মুদ্রা ইউএস ডলারের বিপরীতে আরও ২৫ পয়সা দর হারালো বাংলাদেশি মুদ্রা টাকা। গতকাল আন্তঃব্যাংক লেনদেনে এক ডলার বিক্রি হয়েছে ৯৪ টাকা ৭০ পয়সায়। গত বৃহস্পতিবার যা ছিল ৯৪ টাকা ৪৫ পয়সা।

বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে জানা যায়, গতকাল ব্যাংকগুলোর চাহিদা অনুযায়ী কেন্দ্রীয় ব্যাংক ১৩ কোটি ২০ লাখ ডলার বিক্রি করেছে। দাম নির্ধারিত হয়েছে ৯৪ টাকা ৭০ পয়সা। এটাই গতকালের আন্তঃব্যাংক দর। বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিসংখ্যানে দেখা যায়, গত এক মাসের ব্যবধানে ডলারের বিপরীতে টাকার মান কমেছে ৫ শতাংশের বেশি। আর এক বছরের ব্যবধানে কমেছে ১০ দশমিক ৮০ শতাংশ। এদিকে খোলা বাজারে ডলার বিক্রি হচ্ছে আরও চড়া দামে। ১০৫ টাকা পর্যন্ত উঠে গেছে ডলার দর।

খোলাবাজারে ডলারের চাহিদা বাড়লে মুদ্রা বিনিময়ের প্রতিষ্ঠানগুলো সাধারণত ব্যাংক থেকে ডলার কিনে গ্রাহকের কাছে বিক্রি করে থাকে। এখন ব্যাংকেও ডলারের সংকট। এজন্য অনেক ব্যাংক এখন উল্টো খোলাবাজারে ডলার খুঁজছে। আমদানি ব্যয় বৃদ্ধি ও প্রবাসী আয় বা রেমিট্যান্স কমে যাওয়ায় দেশে ইউএস ডলারের তীব্র সংকট তৈরি হয়েছে। প্রতিনিয়ত বাড়ছে ডলারের দাম। এজন্য রিজার্ভ থেকে ডলার ছেড়ে বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখার চেষ্টা করছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। প্রতিনিয়ত দামও বাড়াচ্ছে। এরপরও সংকট কাটছে না।

বাংলাদেশ ব্যাংক যে দামে ডলার বিক্রি করছে, বাজারে তার চেয়ে ৩-?৪ টাকা বেশি দরে কেনাবেচা হচ্ছে। ফলে আমদানিকারকদের বেশি দামে ডলার কিনতে হচ্ছে। অনেক ব্যাংক পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে প্রতি ডলারের দাম ১০১ টাকা পর্যন্ত নিয়েছে। কোন কোন ব্যাংক প্রতি ডলারে ১০০ টাকা দিয়েও প্রবাসী আয় পাচ্ছে না। বাজার ‘স্থিতিশীল’ করতে গত অর্থবছরের ধারাবাহিকতায় নতুন অর্থবছরেও বিদেশি মুদ্রার সঞ্চয়ন বা রিজার্ভ থেকে ডলার বিক্রি করে চলেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।