ব্যাংকগুলোকে বিদ্যুৎ-জ্বালানি খরচ কমাতে বললো কেন্দ্রীয় ব্যাংক

সরকারি নির্দেশনা মেনে এবার দেশের সব ব্যাংককে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খরচ কমানোর নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। চলতি বছরের জুলাই থেকে আগামী বছরের জুন সময়ে বিদ্যুতে ২৫ শতাংশ এবং জ্বালানিতে ২০ শতাংশ খরচ কমাতে হবে বলে নির্দেশনায় বলা হয়। বাংলাদেশ ব্যাংকের ব্যাংকিং প্রবিধি ও নীতি বিভাগ থেকে গতকাল এ সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন জারি করে সব তফসিলী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহীদের কাছে পাঠানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, বর্তমান বৈশ্বিক অর্থনৈতিক অবস্থায় সরকারি সিদ্ধান্ত চলতি বছরের ছয় মাস এবং ২০২৩ সালের প্রথম ৬ মাস ব্যাংকের ব্যয়ে কৃচ্ছ্রসাধন করতে হবে। একইসঙ্গে বিদ্যুৎ ও জ্বালানির সাশ্রয়ী ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে। জ্বালানির সাশ্রয়ে ব্যাংকগুলোকে জ্বালানি বাবদ আগামী এক বছরে ২০ শতাংশ খরচ কমাতে হবে। এর মধ্যে চলতি বছরের জুলাই থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত পেট্রল, ডিজেল, গ্যাস, ওয়েল ও লুব্রিকেন্ট বাবদ বরাদ্দ করা অর্থের ১০ শতাংশ খরচ কমাতে হবে। আর আগামী বছরের প্রথম ছয় মাসে কমাতে হবে আরও ১০ শতাংশ খরচ।

একইভাবে বিদ্যুৎ খরচের ক্ষেত্রেও আগামী এক বছরের প্রতিটি ব্যাংককে এ খাতে খরচ ২৫ শতাংশ কমিয়ে আনতে হবে। চলতি বছরের বাকি ছয় মাস ও আগামী বছরের প্রথম ছয় মাসে আনুপাতিক হারে অর্থাৎ সাড়ে ১২ শতাংশ করে এ খরচ কমাতে হবে।

জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খরচ কমিয়ে ব্যাংকগুলো যে অর্থ সাশ্রয় করবে, তা অন্য কোন খাতে ব্যবহার করা যাবে না বলেও নির্দেশনায় জানিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এমনকি এই তথ্য ব্যাংকের বার্ষিক আর্থিক প্রতিবেদনে উল্লেখ করতে হবে।

প্রজ্ঞাপনে আরও বলা হয়, এ দুই খাতে খরচ কমানোসংক্রান্ত তথ্য ও দলিলপত্র ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে সংরক্ষণ করতে হবে। বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিদর্শক দল ব্যাংক পরিদর্শনে গিয়ে এ সংক্রান্ত তথ্য ও দলিলপত্র দেখতে চাইলে তা সরবরাহ করতে হবে। নির্দেশনার আলোকে ব্যাংকগুলো বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে কী পরিমাণ অর্থ খরচ করেছে তা আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত ব্যয়িত অর্থ চলতি বছরের বার্ষিক আর্থিক বিবরণীতে এবং আগামী বছরের প্রথম ছয় মাসেরটা ২০২৩ সালের আর্থিক বিবরণীতে উল্লেখ থাকতে হবে।

বুধবার, ২৭ জুলাই ২০২২ , ১২ শ্রাবণ ১৪২৯ ২৮ জিলহজ ১৪৪৩

ব্যাংকগুলোকে বিদ্যুৎ-জ্বালানি খরচ কমাতে বললো কেন্দ্রীয় ব্যাংক

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

সরকারি নির্দেশনা মেনে এবার দেশের সব ব্যাংককে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খরচ কমানোর নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। চলতি বছরের জুলাই থেকে আগামী বছরের জুন সময়ে বিদ্যুতে ২৫ শতাংশ এবং জ্বালানিতে ২০ শতাংশ খরচ কমাতে হবে বলে নির্দেশনায় বলা হয়। বাংলাদেশ ব্যাংকের ব্যাংকিং প্রবিধি ও নীতি বিভাগ থেকে গতকাল এ সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন জারি করে সব তফসিলী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহীদের কাছে পাঠানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, বর্তমান বৈশ্বিক অর্থনৈতিক অবস্থায় সরকারি সিদ্ধান্ত চলতি বছরের ছয় মাস এবং ২০২৩ সালের প্রথম ৬ মাস ব্যাংকের ব্যয়ে কৃচ্ছ্রসাধন করতে হবে। একইসঙ্গে বিদ্যুৎ ও জ্বালানির সাশ্রয়ী ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে। জ্বালানির সাশ্রয়ে ব্যাংকগুলোকে জ্বালানি বাবদ আগামী এক বছরে ২০ শতাংশ খরচ কমাতে হবে। এর মধ্যে চলতি বছরের জুলাই থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত পেট্রল, ডিজেল, গ্যাস, ওয়েল ও লুব্রিকেন্ট বাবদ বরাদ্দ করা অর্থের ১০ শতাংশ খরচ কমাতে হবে। আর আগামী বছরের প্রথম ছয় মাসে কমাতে হবে আরও ১০ শতাংশ খরচ।

একইভাবে বিদ্যুৎ খরচের ক্ষেত্রেও আগামী এক বছরের প্রতিটি ব্যাংককে এ খাতে খরচ ২৫ শতাংশ কমিয়ে আনতে হবে। চলতি বছরের বাকি ছয় মাস ও আগামী বছরের প্রথম ছয় মাসে আনুপাতিক হারে অর্থাৎ সাড়ে ১২ শতাংশ করে এ খরচ কমাতে হবে।

জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খরচ কমিয়ে ব্যাংকগুলো যে অর্থ সাশ্রয় করবে, তা অন্য কোন খাতে ব্যবহার করা যাবে না বলেও নির্দেশনায় জানিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এমনকি এই তথ্য ব্যাংকের বার্ষিক আর্থিক প্রতিবেদনে উল্লেখ করতে হবে।

প্রজ্ঞাপনে আরও বলা হয়, এ দুই খাতে খরচ কমানোসংক্রান্ত তথ্য ও দলিলপত্র ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে সংরক্ষণ করতে হবে। বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিদর্শক দল ব্যাংক পরিদর্শনে গিয়ে এ সংক্রান্ত তথ্য ও দলিলপত্র দেখতে চাইলে তা সরবরাহ করতে হবে। নির্দেশনার আলোকে ব্যাংকগুলো বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে কী পরিমাণ অর্থ খরচ করেছে তা আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত ব্যয়িত অর্থ চলতি বছরের বার্ষিক আর্থিক বিবরণীতে এবং আগামী বছরের প্রথম ছয় মাসেরটা ২০২৩ সালের আর্থিক বিবরণীতে উল্লেখ থাকতে হবে।