ঠাকুরগাঁওয়ে নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতা

পুলিশের গুলিতে ৭ মাসের শিশু নিহত, আহত অনেকেই

ঠাকুরগাঁওয়ের রানীশংকৈলে নির্বাচনী সহিংসতা ঠেকাতে পুলিশের গুলিতে মায়ের কোলে থাকা ৭ মাসের শিশু নিহত হওয়ার অভিযোগ উঠেছে। গুলিতে তার মাথার খুলি উড়ে যায়। উপজেলার বাচোর ইউনিয়নের ভাংবাড়ি বেল মার্কেটে গতকাল বিকেলে এ ঘটনা ঘটে। শিশুটির বাবা ও চাচার অভিযোগ, পুলিশের গুলিতেই তার সন্তানের মৃত্যু হয়েছে। বেল মার্কেটের পাশেই ভাংবাড়ি ভিএফ নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়। সেখানে গতকাল হয়েছে ইউপি নির্বাচনের ভোট।

স্থানীয় মঈনুদ্দিন তালুকদারসহ কয়েকজন জানান, ফল ঘোষণার পর জয়ী ও পরাজিত ইউপি সদস্য প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধে। তাদের নিয়ন্ত্রণে সেখানে যায় থানা পুলিশ। একপর্যায়ে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া শুরু হলে পুলিশ গুলি চালায়। এতে বাজারের একটি দোকানের সামনে থাকা মায়ের কোলে মেয়েশিশুটির মাথায় গুলি লাগে। শিশুর বাবা মো. বাদশা প্রায় অচেতন হয়ে পড়েছেন। শিশুর চাচা আবু বক্কর সিদ্দিক জানান, শিশুটির নাম আশা। পুলিশের গুলিতে সে ঘটনাস্থলেই মারা গেছে। তিনি ও ক্ষুব্ধ স্বজন-স্থানীয়রা মরদেহ পুলিশের গাড়ির সামনে ফেলে রেখে পথরোধ করেছেন। এরপর সে গাড়ি ভাঙচুর করা হয়েছে। ওই কেন্দ্রের প্রিজাইডিং কর্মকর্তা খতিবুর রহমান বলেন, ফল ঘোষণার পর নির্বাচনী সরঞ্জাম নিয়ে আমি কার্যালয়ে জমা দেয়ার জন্য চলে যাই। পরে শুনি কেন্দ্রে গন্ডগোল হচ্ছে। আর কিছু এখনও জানি না। রানীশংকৈল থানার ওসি জাহিদ হাসান এ বিষয়ে কিছু জানেন না বলে রানীশংকৈল সার্কেল এসপির সঙ্গে কথা বলতে বলেন।

সার্কেল এসপি তোফাজ্জল হোসেন বলেন, এ বিষয়ে আপাতত আমি কোন মন্তব্য করতে পারছি না। আমি নির্বাচনী ডিউটি পালন করছি। একজন সংবাদকর্মী জানান, তিনিসহ স্থানীয় সংবাদকর্মীরা ভোটের খবর সংগ্রহে বিকেলে ওই এলাকায় যান। ওই কেন্দ্রে সংঘর্ষের খবর পেয়ে সেখানে গিয়ে দেখেন রক্তাক্ত শিশুকে নিয়ে স্থানীয়া গাড়ি ভাঙচুর করছে। এরপর তিনিসহ অন্য সংবাদকর্মীরা থানার দিকে গেলে স্থানীরা সেখানে তাদের অবরুদ্ধ করে রাখেন। তিনি আরও জানান, থানা ঘেরাও করে স্থানীরা বিক্ষোভ ও মিছিল করছে। তাদের সরিয়ে দিতে পুলিশ টিয়ারশেল ছুড়ছে।

এ দিকে পুলিশের রংপুর রেঞ্জের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা সংবাদকে জানান, সংঘর্ষের সময় শিশুটির মৃত্যু হয়েছে। পুলিশ শটগানের গুলি করছে। আর উত্তেজিত জনতা ইট, পাথর নিক্ষেপ করেছে। শিশুটি গুলিতে না ইট-পাথর নিক্ষেপের সময় মারা গেছে তার খোঁজ নেয়া হচ্ছে।

রংপুর রেঞ্জের ডিআইজির সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বিষয়টি দেখছেন বলে জানান। এরপর তার মোবাইল ব্যস্ত পাওয়া যায়। তাই তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

বৃহস্পতিবার, ২৮ জুলাই ২০২২ , ১৩ শ্রাবণ ১৪২৯ ২৯ জিলহজ ১৪৪৩

ঠাকুরগাঁওয়ে নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতা

পুলিশের গুলিতে ৭ মাসের শিশু নিহত, আহত অনেকেই

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

পুলিশের গুলিতে নিহত শিশু রাস্তায় পড়ে আছে -সংবাদ

ঠাকুরগাঁওয়ের রানীশংকৈলে নির্বাচনী সহিংসতা ঠেকাতে পুলিশের গুলিতে মায়ের কোলে থাকা ৭ মাসের শিশু নিহত হওয়ার অভিযোগ উঠেছে। গুলিতে তার মাথার খুলি উড়ে যায়। উপজেলার বাচোর ইউনিয়নের ভাংবাড়ি বেল মার্কেটে গতকাল বিকেলে এ ঘটনা ঘটে। শিশুটির বাবা ও চাচার অভিযোগ, পুলিশের গুলিতেই তার সন্তানের মৃত্যু হয়েছে। বেল মার্কেটের পাশেই ভাংবাড়ি ভিএফ নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়। সেখানে গতকাল হয়েছে ইউপি নির্বাচনের ভোট।

স্থানীয় মঈনুদ্দিন তালুকদারসহ কয়েকজন জানান, ফল ঘোষণার পর জয়ী ও পরাজিত ইউপি সদস্য প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধে। তাদের নিয়ন্ত্রণে সেখানে যায় থানা পুলিশ। একপর্যায়ে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া শুরু হলে পুলিশ গুলি চালায়। এতে বাজারের একটি দোকানের সামনে থাকা মায়ের কোলে মেয়েশিশুটির মাথায় গুলি লাগে। শিশুর বাবা মো. বাদশা প্রায় অচেতন হয়ে পড়েছেন। শিশুর চাচা আবু বক্কর সিদ্দিক জানান, শিশুটির নাম আশা। পুলিশের গুলিতে সে ঘটনাস্থলেই মারা গেছে। তিনি ও ক্ষুব্ধ স্বজন-স্থানীয়রা মরদেহ পুলিশের গাড়ির সামনে ফেলে রেখে পথরোধ করেছেন। এরপর সে গাড়ি ভাঙচুর করা হয়েছে। ওই কেন্দ্রের প্রিজাইডিং কর্মকর্তা খতিবুর রহমান বলেন, ফল ঘোষণার পর নির্বাচনী সরঞ্জাম নিয়ে আমি কার্যালয়ে জমা দেয়ার জন্য চলে যাই। পরে শুনি কেন্দ্রে গন্ডগোল হচ্ছে। আর কিছু এখনও জানি না। রানীশংকৈল থানার ওসি জাহিদ হাসান এ বিষয়ে কিছু জানেন না বলে রানীশংকৈল সার্কেল এসপির সঙ্গে কথা বলতে বলেন।

সার্কেল এসপি তোফাজ্জল হোসেন বলেন, এ বিষয়ে আপাতত আমি কোন মন্তব্য করতে পারছি না। আমি নির্বাচনী ডিউটি পালন করছি। একজন সংবাদকর্মী জানান, তিনিসহ স্থানীয় সংবাদকর্মীরা ভোটের খবর সংগ্রহে বিকেলে ওই এলাকায় যান। ওই কেন্দ্রে সংঘর্ষের খবর পেয়ে সেখানে গিয়ে দেখেন রক্তাক্ত শিশুকে নিয়ে স্থানীয়া গাড়ি ভাঙচুর করছে। এরপর তিনিসহ অন্য সংবাদকর্মীরা থানার দিকে গেলে স্থানীরা সেখানে তাদের অবরুদ্ধ করে রাখেন। তিনি আরও জানান, থানা ঘেরাও করে স্থানীরা বিক্ষোভ ও মিছিল করছে। তাদের সরিয়ে দিতে পুলিশ টিয়ারশেল ছুড়ছে।

এ দিকে পুলিশের রংপুর রেঞ্জের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা সংবাদকে জানান, সংঘর্ষের সময় শিশুটির মৃত্যু হয়েছে। পুলিশ শটগানের গুলি করছে। আর উত্তেজিত জনতা ইট, পাথর নিক্ষেপ করেছে। শিশুটি গুলিতে না ইট-পাথর নিক্ষেপের সময় মারা গেছে তার খোঁজ নেয়া হচ্ছে।

রংপুর রেঞ্জের ডিআইজির সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বিষয়টি দেখছেন বলে জানান। এরপর তার মোবাইল ব্যস্ত পাওয়া যায়। তাই তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।