পেলোসির তাইওয়ান সফরের পরিণতি হবে মারাত্মক : চীন

যুক্তরাষ্ট্রের আইনসভা কংগ্রেসের নি¤œকক্ষ হাউজ অব রিপ্রেজেন্টেটিভসের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি তাইওয়ান সফরে এলে পরিণতি মারাত্মক হবে বলে হুঁশিয়ার করে দিয়েছে চীন। পেলোসির সফরের গুঞ্জনের পরিপ্রেক্ষিতে স্থানীয় সময় সোমবার চীন এমন হুঁশিয়ারি দেয়।

বিবিসির প্রতিবেদনে জানানো হয়, গুঞ্জন সত্যি হলে ন্যান্সি পেলোসিই হবেন ১৯৯৭ সালের পর তাইওয়ানে যাওয়া যুক্তরাষ্ট্রের সর্বোচ্চ কর্মকর্তা। স্বায়ত্তশাসিত তাইওয়ানকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়া প্রদেশ মনে করে চীন। দেশটির ইচ্ছা তাইওয়ানকে আবার মূল ভূখ-ের অন্তর্ভুক্ত করা। সে লক্ষ্যে প্রয়োজনে বল প্রয়োগ করতে চায় বেইজিং।

তাইওয়ানে পেলোসির সম্ভাব্য সফর শুধু চীনের মাথাব্যথার কারণই হয়নি, এটি একই সঙ্গে ভাবিয়েছে বাইডেন প্রশাসনকেও। স্পিকারকে পূর্ব এশিয়ার দেশটিতে যেতে নিরুৎসাহ করার খবর পাওয়া গেছে। দ্বীপরাষ্ট্রটিতে পেলোসির সফরের সম্ভাবনা নিয়ে গত সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের কাছে জানতে চান সাংবাদিকরা। জবাবে তিনি বলেন, এটা ভালো পরিকল্পনা নয়।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের দপ্তর হোয়াইট হাউজ বলেছে, পেলোসির সফরের মতো বিষয় নিয়ে চীনের বক্তব্য ‘স্পষ্টভাবে অকেজো ও অপ্রয়োজনীয়’।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, সফরের কোন ঘোষণা দেননি পেলোসি এবং তাইওয়ানের বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের দৃষ্টিভঙ্গি অপরিবর্তিত রয়েছে।

বৃহস্পতিবার, ২৮ জুলাই ২০২২ , ১৩ শ্রাবণ ১৪২৯ ২৯ জিলহজ ১৪৪৩

পেলোসির তাইওয়ান সফরের পরিণতি হবে মারাত্মক : চীন

যুক্তরাষ্ট্রের আইনসভা কংগ্রেসের নি¤œকক্ষ হাউজ অব রিপ্রেজেন্টেটিভসের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি তাইওয়ান সফরে এলে পরিণতি মারাত্মক হবে বলে হুঁশিয়ার করে দিয়েছে চীন। পেলোসির সফরের গুঞ্জনের পরিপ্রেক্ষিতে স্থানীয় সময় সোমবার চীন এমন হুঁশিয়ারি দেয়।

বিবিসির প্রতিবেদনে জানানো হয়, গুঞ্জন সত্যি হলে ন্যান্সি পেলোসিই হবেন ১৯৯৭ সালের পর তাইওয়ানে যাওয়া যুক্তরাষ্ট্রের সর্বোচ্চ কর্মকর্তা। স্বায়ত্তশাসিত তাইওয়ানকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়া প্রদেশ মনে করে চীন। দেশটির ইচ্ছা তাইওয়ানকে আবার মূল ভূখ-ের অন্তর্ভুক্ত করা। সে লক্ষ্যে প্রয়োজনে বল প্রয়োগ করতে চায় বেইজিং।

তাইওয়ানে পেলোসির সম্ভাব্য সফর শুধু চীনের মাথাব্যথার কারণই হয়নি, এটি একই সঙ্গে ভাবিয়েছে বাইডেন প্রশাসনকেও। স্পিকারকে পূর্ব এশিয়ার দেশটিতে যেতে নিরুৎসাহ করার খবর পাওয়া গেছে। দ্বীপরাষ্ট্রটিতে পেলোসির সফরের সম্ভাবনা নিয়ে গত সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের কাছে জানতে চান সাংবাদিকরা। জবাবে তিনি বলেন, এটা ভালো পরিকল্পনা নয়।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের দপ্তর হোয়াইট হাউজ বলেছে, পেলোসির সফরের মতো বিষয় নিয়ে চীনের বক্তব্য ‘স্পষ্টভাবে অকেজো ও অপ্রয়োজনীয়’।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, সফরের কোন ঘোষণা দেননি পেলোসি এবং তাইওয়ানের বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের দৃষ্টিভঙ্গি অপরিবর্তিত রয়েছে।