রপ্তানি আয়ের স্থানীয় মূল্য ডলারে রাখার সুবিধা

রপ্তানি আয় স্থানীয় মূল্য সংযোজন করে তা বৈদেশিক মুদ্রায় বা ডলারে সংরক্ষণের সুবিধা দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। গতকাল বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রা নীতি বিভাগ এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করে বৈদেশিক মুদ্রা লেনদেনে নিয়োজিত সব অনুমোদিত ডিলার ব্যাংকের প্রধান কার্যালয় ও প্রিন্সিপাল অফিসে পাঠানো হয়েছে।

প্রজ্ঞাপনের নির্দেশনা অনুযায়ী, এখন থেকে প্রত্যাবাসিত রপ্তানি আয়ের মূল্য সংযোজন অংশ সর্বোচ্চ ১৫ দিনের জন্য বৈদেশিক মুদ্রায় সংরক্ষণের সুযোগ দেয়া হয়েছে। এ সময় তহবিল থেকে সংশ্লিষ্ট ব্যাংক রপ্তানিকারকের ব্যাক টু ব্যাক ব্যতিত অন্য আমদানি দায় পরিশোধে ব্যবহার করতে পারবে। এর আগে গত মে ২৯ প্রত্যাবাসিত রপ্তানি মূল্যের স্থানীয় মূল্য সংযোজন অংশ পরবর্তী কর্মদিবসে নগদায়নের জন্য ব্যাংকগুলোকে বলা হয়েছিল।

নতুন প্রজ্ঞাপনে, সংশ্লিষ্ট তহবিলের অর্থ ব্যয় না হলে তা ১৫ দিন পর নগদায়ন করতে হবে। তবে রপ্তানিকারক চাইলে ১৫ দিনের আগেই বৈদেশিক মুদ্রা টাকায় নগদায়ন করা যাবে। এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, নতুন এ নির্দেশনার ফলে রপ্তানিকারকের আমদানি দায় বিনিময়জনিত ঝুঁকি ছাড়াই নিজের বৈদেশিক মুদ্রা দিয়ে পরিশোধ করতে পারবে।

বৃহস্পতিবার, ০৪ আগস্ট ২০২২ , ২০ শ্রাবণ ১৪২৯ ৫ মহররম ১৪৪৪

রপ্তানি আয়ের স্থানীয় মূল্য ডলারে রাখার সুবিধা

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

রপ্তানি আয় স্থানীয় মূল্য সংযোজন করে তা বৈদেশিক মুদ্রায় বা ডলারে সংরক্ষণের সুবিধা দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। গতকাল বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রা নীতি বিভাগ এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করে বৈদেশিক মুদ্রা লেনদেনে নিয়োজিত সব অনুমোদিত ডিলার ব্যাংকের প্রধান কার্যালয় ও প্রিন্সিপাল অফিসে পাঠানো হয়েছে।

প্রজ্ঞাপনের নির্দেশনা অনুযায়ী, এখন থেকে প্রত্যাবাসিত রপ্তানি আয়ের মূল্য সংযোজন অংশ সর্বোচ্চ ১৫ দিনের জন্য বৈদেশিক মুদ্রায় সংরক্ষণের সুযোগ দেয়া হয়েছে। এ সময় তহবিল থেকে সংশ্লিষ্ট ব্যাংক রপ্তানিকারকের ব্যাক টু ব্যাক ব্যতিত অন্য আমদানি দায় পরিশোধে ব্যবহার করতে পারবে। এর আগে গত মে ২৯ প্রত্যাবাসিত রপ্তানি মূল্যের স্থানীয় মূল্য সংযোজন অংশ পরবর্তী কর্মদিবসে নগদায়নের জন্য ব্যাংকগুলোকে বলা হয়েছিল।

নতুন প্রজ্ঞাপনে, সংশ্লিষ্ট তহবিলের অর্থ ব্যয় না হলে তা ১৫ দিন পর নগদায়ন করতে হবে। তবে রপ্তানিকারক চাইলে ১৫ দিনের আগেই বৈদেশিক মুদ্রা টাকায় নগদায়ন করা যাবে। এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, নতুন এ নির্দেশনার ফলে রপ্তানিকারকের আমদানি দায় বিনিময়জনিত ঝুঁকি ছাড়াই নিজের বৈদেশিক মুদ্রা দিয়ে পরিশোধ করতে পারবে।