ডিবি পরিচয়ে ৮৫ লাখ ছিনতাই

ঢাকার কেরানীগঞ্জের আব্দুল্লাপুর দড়িগাঁও এলাকার এক ব্যবসায়ীর কাছ থেকে ৮৫ লাখ টাকা ডিবি পরিচয়ে ছিনিয়ে নিয়েছে একটি সংঘবদ্ধ ছিনতাইকারী চক্র। ওই ব্যবসায়ীর নাম কেরামত আলী। তিনি দড়িগাঁও বাজারের মারফত আলী স্টোরের মালিক এবং একই এলাকার মারফত আলীর ছেলে। রোববার দুপুরে দড়িগাঁও বাজার থেকে ব্যাংকে টাকা জমা রাখার উদ্দেশ্যে আব্দুল্লাহপুর যাওয়ার পথে ভাওয়ার ভিটি এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় র‌্যাব ও পুলিশের একাধিক টিম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। কেরামত আলীর চাচা ওহিদুল ইসলাম জানান, তার ভাতিজা কেরামত আলী একজন পাইকারি মুদি ব্যবসায়ী। শুক্র-শনি দুদিন ব্যাংক বন্ধ থাকায় বিক্রিত মাল ও কালেকশনের টাকা ব্যাংকে জমা দিতে পারেনি। রবিবার দুপুরে মালামাল আনা নেওয়ার কাজে ব্যবহৃত পিকআপ করে ৮৫ লাখ টাকা নিয়ে আব্দুল্লাহপুর ন্যাশনাল ব্যাংকে জমা দেয়ার উদ্দেশ্যে যাওয়ার সময় আটিবাজার ভাওয়র ভিটি এলাকায় পৌঁছালে সামনে ডিবি পুলিশ লেখা একটি সিলভার রঙের মাইক্রোবাস তাদের গতিরোধ করে হাতে ওয়াকিটকি ও পিস্তলসহ ৭-৮ জনের একটি দল টাকার ব্যাগসহ পিকআপের ড্রাইভার আকাশ ও ভাতিজা কেরামতকে টেনে মাইক্রোবাসে তুলে নেয়।

এ সময় টাকার ব্যাগ ছিনিয়ে নিয়ে প্রথমে পিকআপ ড্রাইভারের হাত-পা বাঁধা শুরু করলে কৌশলে মাইক্রোবাস থেকে লাফিয়ে পড়ে ভাতিজা কেরামত আলী দৌড়ে চিৎকার শুরু করলে মাইক্রোবাসটি দ্রুত পিকআপের ড্রাইভারকে নিয়ে স্থান ত্যাগ করে। পরবর্তীতে ড্রাইভার আকাশকে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানাধীন ঝিলমিল আবাসিক এলাকার ভেতর ফেলে রেখে ছিনতাইকারী চক্রটি পালিয়ে যায়। দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার ইন্সপেক্টর তদন্ত মাসুদুর রহমান জানান, ব্যবসায়ীর কাছ থেকে টাকা ছিনিয়ে নেওয়ার ঘটনা তদন্ত চলছে। আশা করা যায় ঘটনার রহস্য দ্রুত উদঘাটন করা সম্ভব হবে।

মঙ্গলবার, ১৫ নভেম্বর ২০২২ , ৩০ কার্তিক ১৪২৯, ১৯ রবিউস সানি ১৪৪৪

ডিবি পরিচয়ে ৮৫ লাখ ছিনতাই

প্রতিনিধি, কেরানীগঞ্জ (ঢাকা)

ঢাকার কেরানীগঞ্জের আব্দুল্লাপুর দড়িগাঁও এলাকার এক ব্যবসায়ীর কাছ থেকে ৮৫ লাখ টাকা ডিবি পরিচয়ে ছিনিয়ে নিয়েছে একটি সংঘবদ্ধ ছিনতাইকারী চক্র। ওই ব্যবসায়ীর নাম কেরামত আলী। তিনি দড়িগাঁও বাজারের মারফত আলী স্টোরের মালিক এবং একই এলাকার মারফত আলীর ছেলে। রোববার দুপুরে দড়িগাঁও বাজার থেকে ব্যাংকে টাকা জমা রাখার উদ্দেশ্যে আব্দুল্লাহপুর যাওয়ার পথে ভাওয়ার ভিটি এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় র‌্যাব ও পুলিশের একাধিক টিম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। কেরামত আলীর চাচা ওহিদুল ইসলাম জানান, তার ভাতিজা কেরামত আলী একজন পাইকারি মুদি ব্যবসায়ী। শুক্র-শনি দুদিন ব্যাংক বন্ধ থাকায় বিক্রিত মাল ও কালেকশনের টাকা ব্যাংকে জমা দিতে পারেনি। রবিবার দুপুরে মালামাল আনা নেওয়ার কাজে ব্যবহৃত পিকআপ করে ৮৫ লাখ টাকা নিয়ে আব্দুল্লাহপুর ন্যাশনাল ব্যাংকে জমা দেয়ার উদ্দেশ্যে যাওয়ার সময় আটিবাজার ভাওয়র ভিটি এলাকায় পৌঁছালে সামনে ডিবি পুলিশ লেখা একটি সিলভার রঙের মাইক্রোবাস তাদের গতিরোধ করে হাতে ওয়াকিটকি ও পিস্তলসহ ৭-৮ জনের একটি দল টাকার ব্যাগসহ পিকআপের ড্রাইভার আকাশ ও ভাতিজা কেরামতকে টেনে মাইক্রোবাসে তুলে নেয়।

এ সময় টাকার ব্যাগ ছিনিয়ে নিয়ে প্রথমে পিকআপ ড্রাইভারের হাত-পা বাঁধা শুরু করলে কৌশলে মাইক্রোবাস থেকে লাফিয়ে পড়ে ভাতিজা কেরামত আলী দৌড়ে চিৎকার শুরু করলে মাইক্রোবাসটি দ্রুত পিকআপের ড্রাইভারকে নিয়ে স্থান ত্যাগ করে। পরবর্তীতে ড্রাইভার আকাশকে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানাধীন ঝিলমিল আবাসিক এলাকার ভেতর ফেলে রেখে ছিনতাইকারী চক্রটি পালিয়ে যায়। দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার ইন্সপেক্টর তদন্ত মাসুদুর রহমান জানান, ব্যবসায়ীর কাছ থেকে টাকা ছিনিয়ে নেওয়ার ঘটনা তদন্ত চলছে। আশা করা যায় ঘটনার রহস্য দ্রুত উদঘাটন করা সম্ভব হবে।