বিএসইসির আবেদন নাকচ করলো চেম্বার আদালত

পুঁজিবাজারে স্বল্প মূলধনি কোম্পানিগুলোর প্লাটফর্ম এসএমই মার্কেটে লেনদেনের জন্য ৩০ লাখ টাকা বিনিয়োগের শর্ত স্থগিতের বিরুদ্ধে বিএইসির আবেদন গ্রহণ হলো না। অর্থাৎ এসএমই মার্কেটে বিনিয়োগ করতে হলে বিনিয়োগকারীর ৩০ লাখ টাকা বিনিয়োগ না থাকলেও হবে। হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত না করে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থাটির আবেদন আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে পাঠিয়ে দিয়েছে চেম্বার আদালত। আগামী ৫ ডিসেম্বর সেখানে শুনানি হতে পারে।

হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত চেয়ে করা আবেদনের বিষয়ে গত মঙ্গলবার ‘নো অর্ডার’ দিয়ে আপিল বিভাগের বিচারপতি এম, ইনায়েতুর রহিমের চেম্বার আদালত পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে পাঠানো হয়। এ আদেশের ফলে হাইকোর্টের আদেশ বহাল থাকলো বলে জানিয়েছেন আইনজীবী। চেম্বার আদালতের আদেশের বিষয়টি জানিয়েছেন রিটকারির আইনজীবী মোস্তফা কামাল।

পুঁজিবাজারে এসএমই (স্বল্প মূলধনি কোম্পানিগুলোর প্লাটফর্ম) মার্কেটে লেনদেনের জন্য কমপক্ষে ৩০ লাখ টাকার শর্ত দিয়ে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসির সিদ্ধান্ত স্থগিত করে গত ১৩ নভেম্বর বিচারপতি আশফাকুল ইসলাম ও বিচারপতি সোহরাওয়ার্দীর সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ আদেশ দেয়।

একইসঙ্গে এ ধরনের সিদ্ধান্তকে কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করে। হাইকোর্টের এ আদেশ স্থগিত চেয়ে আপিলে আবেদন করে বিএসইসি। আদালতে বিএসইসির পক্ষে শুনানি করেন এ এম মাসুম। আর রিটকারির পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মোস্তফা কামাল।

কমপক্ষে ৩০ লাখ টাকার শর্ত দিয়ে বিএসইসির সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ করে রাজধানীর দিলকুশার বাসিন্দা মো. রাজু হাসান হাইকোর্টে রিট করেন। ২০২১ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে স্বল্প মূলধনি কোম্পানিগুলোর লেনদেনের জন্য এসএমই প্লাটফর্ম চালু হয়। সেদিন প্রথমিকভাবে ছয়টি কোম্পানি নিয়ে ডিএসইর এসএমই প্লাটফর্মে লেনদেন চালু করা হয়। বর্তমানে এসএমইতে তালিকাভুক্ত কোম্পানি ১৫টি। এর মধ্যে ১৩ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার নিয়মিত লেনদেন হচ্ছে।

প্রথমে এক কোটি, পরে ৫০ লাখ, এরপর ২০ লাখ এবং সবশেষ ৩০ লাখ- পুঁজিবাজারে কত টাকা বিনিয়োগ থাকলে এসএমই বোর্ডের শেয়ার কেনা যাবে, এ নিয়ে নিয়ন্ত্রক সংস্থার একেক সময় একেক সিদ্ধান্ত। সর্বশেষ গত ২২ সেপ্টেম্বর সিদ্ধান্ত আসে, এসএমইতে লেনদেনে যোগ্য বিনিয়োগকারী হতে শেয়ারবাজারে ন্যূনতম ৩০ লাখ টাকা বিনিয়োগ থাকতে হবে।

এর আগে শেয়ারবাজারের স্বল্প মূলধনী কোম্পানিগুলোর (এসএমই) প্লাটফর্মে সব বিনিয়োগকারীদের জন্য উন্মুক্ত নয় কেন, তা জানতে চেয়েছিল হাইকোর্ট। একই সঙ্গে মুল বাজারে ফ্লোর প্রাইস থাকলেও এসএমইতে তা কেন নেই, বিএসইসিকে এ বিষয়ে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয় হাইকোর্ট। এই নোটিশে এসএমইতে বিনিয়োগসীমা আগামী তিন মাসের জন্য স্থগিত করা হয়। এ বিষয়ে বিএসইসিকে আগামী ৭ কার্যদিবসের মধ্যে জবাব দিতে আদেশ দিয়েছিল হাইকোর্ট।

জানা গেছে, গত বছরের ১৬ সেপ্টেম্বর দুই স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই ও সিএসই) ওটিসি মার্কেট বাতিল করে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন। ওইদিন কমিশন সভায় ২৯ কোম্পানিকে তালিকাচ্যুত করে ৪১টি কোম্পানিকে এসএমই ও এটিবিতে (অলটারনেটিভ ট্রেডিং বোর্ড) স্থানান্তর করার সিদ্ধান্ত নেয়। পরবর্তীতে একই বছরের ৩০ সেপ্টেম্বর ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের এসএমই প্লাটফর্মে লেনদেন শুরু হয়। সেদিন প্রথমিকভাবে ছয়টি কোম্পানি নিয়ে ডিএসইর এসএমই প্লাটফর্মে লেনদেন চালু করা হয়।

চলতি বছরের ২২ সেপ্টেম্বর সর্বশেষ এসএমই প্লাটফর্মের বিনিয়োগের জন্য বিনিয়োগের পরিমাণ নির্ধারণ করা হয়। বিএসইসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত একটি আদেশে বলা হয়, এসএমইতে লেনদেনে যোগ্য বিনিয়োগকারী হতে শেয়ারবাজারে ন্যূনতম ৩০ লাখ টাকা বিনিয়োগ থাকতে হবে।

এর বিরুদ্ধে রিটকারী সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবি অ্যাডভোকেট মোস্তফা কামাল দাবি করেন, এসএমইতে বিনিয়োগসীমা দিয়ে ব্যবসায় বাঁধাগ্রস্থ করে সংবিধান পরিপন্থী।

বৃহস্পতিবার, ২৪ নভেম্বর ২০২২ , ০৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ২৮ রবিউস সানি ১৪৪৪

এসএমই মার্কেটে ৩০ লাখ টাকা বিনিয়োগের শর্ত

বিএসইসির আবেদন নাকচ করলো চেম্বার আদালত

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

পুঁজিবাজারে স্বল্প মূলধনি কোম্পানিগুলোর প্লাটফর্ম এসএমই মার্কেটে লেনদেনের জন্য ৩০ লাখ টাকা বিনিয়োগের শর্ত স্থগিতের বিরুদ্ধে বিএইসির আবেদন গ্রহণ হলো না। অর্থাৎ এসএমই মার্কেটে বিনিয়োগ করতে হলে বিনিয়োগকারীর ৩০ লাখ টাকা বিনিয়োগ না থাকলেও হবে। হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত না করে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থাটির আবেদন আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে পাঠিয়ে দিয়েছে চেম্বার আদালত। আগামী ৫ ডিসেম্বর সেখানে শুনানি হতে পারে।

হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত চেয়ে করা আবেদনের বিষয়ে গত মঙ্গলবার ‘নো অর্ডার’ দিয়ে আপিল বিভাগের বিচারপতি এম, ইনায়েতুর রহিমের চেম্বার আদালত পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে পাঠানো হয়। এ আদেশের ফলে হাইকোর্টের আদেশ বহাল থাকলো বলে জানিয়েছেন আইনজীবী। চেম্বার আদালতের আদেশের বিষয়টি জানিয়েছেন রিটকারির আইনজীবী মোস্তফা কামাল।

পুঁজিবাজারে এসএমই (স্বল্প মূলধনি কোম্পানিগুলোর প্লাটফর্ম) মার্কেটে লেনদেনের জন্য কমপক্ষে ৩০ লাখ টাকার শর্ত দিয়ে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসির সিদ্ধান্ত স্থগিত করে গত ১৩ নভেম্বর বিচারপতি আশফাকুল ইসলাম ও বিচারপতি সোহরাওয়ার্দীর সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ আদেশ দেয়।

একইসঙ্গে এ ধরনের সিদ্ধান্তকে কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করে। হাইকোর্টের এ আদেশ স্থগিত চেয়ে আপিলে আবেদন করে বিএসইসি। আদালতে বিএসইসির পক্ষে শুনানি করেন এ এম মাসুম। আর রিটকারির পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মোস্তফা কামাল।

কমপক্ষে ৩০ লাখ টাকার শর্ত দিয়ে বিএসইসির সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ করে রাজধানীর দিলকুশার বাসিন্দা মো. রাজু হাসান হাইকোর্টে রিট করেন। ২০২১ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে স্বল্প মূলধনি কোম্পানিগুলোর লেনদেনের জন্য এসএমই প্লাটফর্ম চালু হয়। সেদিন প্রথমিকভাবে ছয়টি কোম্পানি নিয়ে ডিএসইর এসএমই প্লাটফর্মে লেনদেন চালু করা হয়। বর্তমানে এসএমইতে তালিকাভুক্ত কোম্পানি ১৫টি। এর মধ্যে ১৩ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার নিয়মিত লেনদেন হচ্ছে।

প্রথমে এক কোটি, পরে ৫০ লাখ, এরপর ২০ লাখ এবং সবশেষ ৩০ লাখ- পুঁজিবাজারে কত টাকা বিনিয়োগ থাকলে এসএমই বোর্ডের শেয়ার কেনা যাবে, এ নিয়ে নিয়ন্ত্রক সংস্থার একেক সময় একেক সিদ্ধান্ত। সর্বশেষ গত ২২ সেপ্টেম্বর সিদ্ধান্ত আসে, এসএমইতে লেনদেনে যোগ্য বিনিয়োগকারী হতে শেয়ারবাজারে ন্যূনতম ৩০ লাখ টাকা বিনিয়োগ থাকতে হবে।

এর আগে শেয়ারবাজারের স্বল্প মূলধনী কোম্পানিগুলোর (এসএমই) প্লাটফর্মে সব বিনিয়োগকারীদের জন্য উন্মুক্ত নয় কেন, তা জানতে চেয়েছিল হাইকোর্ট। একই সঙ্গে মুল বাজারে ফ্লোর প্রাইস থাকলেও এসএমইতে তা কেন নেই, বিএসইসিকে এ বিষয়ে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয় হাইকোর্ট। এই নোটিশে এসএমইতে বিনিয়োগসীমা আগামী তিন মাসের জন্য স্থগিত করা হয়। এ বিষয়ে বিএসইসিকে আগামী ৭ কার্যদিবসের মধ্যে জবাব দিতে আদেশ দিয়েছিল হাইকোর্ট।

জানা গেছে, গত বছরের ১৬ সেপ্টেম্বর দুই স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই ও সিএসই) ওটিসি মার্কেট বাতিল করে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন। ওইদিন কমিশন সভায় ২৯ কোম্পানিকে তালিকাচ্যুত করে ৪১টি কোম্পানিকে এসএমই ও এটিবিতে (অলটারনেটিভ ট্রেডিং বোর্ড) স্থানান্তর করার সিদ্ধান্ত নেয়। পরবর্তীতে একই বছরের ৩০ সেপ্টেম্বর ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের এসএমই প্লাটফর্মে লেনদেন শুরু হয়। সেদিন প্রথমিকভাবে ছয়টি কোম্পানি নিয়ে ডিএসইর এসএমই প্লাটফর্মে লেনদেন চালু করা হয়।

চলতি বছরের ২২ সেপ্টেম্বর সর্বশেষ এসএমই প্লাটফর্মের বিনিয়োগের জন্য বিনিয়োগের পরিমাণ নির্ধারণ করা হয়। বিএসইসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত একটি আদেশে বলা হয়, এসএমইতে লেনদেনে যোগ্য বিনিয়োগকারী হতে শেয়ারবাজারে ন্যূনতম ৩০ লাখ টাকা বিনিয়োগ থাকতে হবে।

এর বিরুদ্ধে রিটকারী সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবি অ্যাডভোকেট মোস্তফা কামাল দাবি করেন, এসএমইতে বিনিয়োগসীমা দিয়ে ব্যবসায় বাঁধাগ্রস্থ করে সংবিধান পরিপন্থী।