রংপুরে সংঘর্ষে জেলা বিএনপির তিনশ’ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা

গত মঙ্গলবার বিকেলে রংপুরে জেলা বিএনপির বিক্ষোভ মিছিলকে কেন্দ্র করে পুলিশের সঙ্গে বিএনপি কর্মীদের সংঘর্ষে ৩ পুলিশসহ ২০ নেতাকর্মী আহত হওয়ার ঘটনায় গতকাল বুধবার রংপুর মেট্রোপলিটন কোতয়ালি থানায় জেলা বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমান লাকুর নাম উল্লেখ করে আরও ৩০০ অজ্ঞাত নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। মামলায় সরকারি কাজে বাধা প্রদান, পুলিশের ওপর হামলা করে তিন পুলিশ সদস্য আহতসহ বিভিন্ন অভিযোগ আনা হয়েছে।

রংপুর কোতয়ালি থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) হোসেন আলী মামলা দায়ের করার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন মামলাটি দায়ের করেছেন এসআই রফিকুল ইসলাম।

এদিকে মামলার প্রধান আসামি জেলা বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলাম দাবি করেন, গত মঙ্গলবার তিনি রংপুরেই ছিলেন না তার ভাগনি জামাই শহিদুল ইসলাম সেবু সভাপতি পীরগঞ্জ পৌর বিএনপি গুরতর অসুস্থ অবস্থায় ঢাকায় স্পেশালাইজড হাসপাতালে তার ওপেন হার্ট সার্জারির কারণ মঙ্গলবার দুপুর ১টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত হাসপাতালেই ছিলেন।

এরপর সন্ধ্যা ৭টায় বাংলাদেশ স্পেন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের ঢাকায় অনুষ্ঠিত সভায় রাত ১১টা পর্যন্ত সেখানেই অবস্থান করেছেন। পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের নামে তাকে মামলার প্রধান আসামি করে পুলিশের দায়ের করা মামলাটি সাজানো তা প্রমাণিত হবে। তিনি চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে বলেন, ঢাকায় যে দুটি কারণে অবস্থান করেছেন তার ভিডিও ফুটেজ ছবিসহ অন্য দালিলিক প্রমাণ তার কাছে আছে যা আদালতে উপস্থাপন করবেন বলেও জানান। এ ঘটনার মধ্য দিয়ে প্রমাণিত হয় পুলিশ নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন করছে না। তিনি আরও চ্যালেঞ্জ দিয়ে বলেন, সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশের কাছে ভিডিও ফুটেজ আছে তারা প্রশান করুক আমি সংঘর্ষের ঘটনার সময় উপস্থিত ছিলাম।

উল্লেখ্য, বিএনপি নেতাকর্মীদের অভিযোগ করেছে গত মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে জেলা বিএনপির উদ্যোগে নগরীর গ্র্যান্ড হোটেল মোড়ে বিএনপি কার্যালয়ের সামনে পূর্ব নির্ধারিত বিক্ষোভ কর্মসূচি ছিল। এর আগে বিকেল ৪টার দিকে নগরীর শাপলা চত্বর থেকে দলীয় নেতাকর্মীরা মিছিল নিয়ে দলীয় কার্যালয়ে আসার পথে পুলিশ বিনা উসকানিতে গ্র্যান্ড হোটেলের অদূরে মিছিলে হামলা চালিয়ে বেপরোয়া লাঠিচার্জ শুরু করে। এ সময় নেতাকর্মীরা দলীয় কার্যালয়ে আশ্রয় নেয়ার চেষ্টা করলে পুলিশ দলীয় কার্যালয়ে ঢুকে নেতাকর্মীদের ওপর হামলা চালিয়ে লাঠিচার্জ করে। এতে কমপক্ষে ২০ জন নেতাকর্মী আহত হয়। পুলিশ দলীয় কার্যালয়ের আশপাশে দাঁড়িয়ে থাকা নেতাকর্মীদের বেধম মারধর করে। এতে দলীয় কার্যালয়ে থাকা নেতাকর্মীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। আহতদের মধ্যে রংপুর জেলা বিএনপি সদস্য আনিস ম-ল কাউনিয়া উপজেলা বিএনপি নেতা রাশেদুল ইসলামের মাথা ফেটে যায়। এছাড়া পুলিশের লাঠিচার্জে রংপুর জেলা মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক রতœা বেগম, রংপুর জেলা তাঁতী দলের সদস্য-সচিব নাজিউর রহমান, পীরগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক রায়হান প্রধানও গুরতর আহত হন। জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমান লাকু অভিযোগ করেন পুলিশ বিনা উসকানিতে তাদের শান্তিপূর্ণ মিছিলে এবং দলীয় কার্যালয়ে প্রবেশ করে বেপরোয়া লাঠিচার্জ করে ২০ নেতাকর্মীকে আহত করেছে।

অন্যদিকে রংপুর মেট্রোপলিটন কোতয়ালি থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) হোসেন আলী দাবি করেন, বিএনপি নেতাকর্মীরা শান্তিপূর্ণ মিছিলের নামে পুলিশের ওপর হামলা চালিয়েছে, বৃষ্টির মতো ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করেছে। এতে তিন পুলিশ গুরতর আহত হয়েছে। তারা হলেন এএসআই মমিন উদ্দিন, নায়েক মানিক ও কনস্টেবল মিঠুন চন্দ্র। তাদের পুলিশ হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

সার্বিক বিষয়ে জানতে পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) হোসেন আলীর সঙ্গে গতকাল বিকেলে তার সরকারি মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, বিএনপির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। মামলার বাদী হয়েছেন এসআই রফিকুল ইসলাম এবং মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে এসআই সোহেল রানাকে। তিনি জানান, ঘটনার তথ্য-প্রমাণ তাদের কাছে আছে। মামলার আসামিদের গ্রেপ্তার করার জন্য অভিযান চলছে।

এদিকে জেলা বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলাম সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমান লাকু পুলিশ কর্তৃক তারাসহ ৩০০ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলাটি সাজানো। অবিলম্বে মামলা প্রত্যাহার এবং নেতাকর্মীদের হয়রানি না করার অনুরোধ জানিয়েছেন তারা

আরও খবর
আমাদের ছেলেমেয়েরা একদিন বিশ^কাপ খেলবে, প্রধানমন্ত্রীর আশাবাদ
গ্রামীণ টেলিকমের এমডিকে ফের জিজ্ঞাসাবাদ
সাংবাদিক খন্দকার মুনীরুজ্জামানের ২য় মৃত্যুবার্ষিকী আজ
বাংলাদেশে অবস্থান জানান দিতে আদালতপাড়ায় জঙ্গিদের পরিকল্পিত হামলা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
সচিবের বিরুদ্ধে ছোট ভাইয়ের বাড়ি দখলের অভিযোগ
রংপুর সিটি নির্বাচনে মেয়র পদে নৌকার প্রার্থী ডালিয়া
উপনির্বাচনে অনিয়ম গাইবান্ধায় নতুন করে ভোট হবে কি না, এখনই বলবেন না সিইসি
চকবাজারে মনসুর হত্যা নাতি ও নাতনির পরিকল্পনায়, গ্রেপ্তার ৫
আজ থেকে আগামী তিন দিন এয়ারপোর্ট রোড এড়িয়ে চলার নির্দেশনা
কুমিল্লায় বিএনপির গণসমাবেশ ঘিরে ফের আলোচনায় বহিষ্কৃত সাক্কু-নিজাম
ব্রহ্মণবাড়িয়ায় ব্রাজিল সমর্থক গোষ্ঠীর মোটরসাইকেল র‌্যালি

বৃহস্পতিবার, ২৪ নভেম্বর ২০২২ , ০৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ২৮ রবিউস সানি ১৪৪৪

রংপুরে সংঘর্ষে জেলা বিএনপির তিনশ’ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা

লিয়াকত আলী বাদল, রংপুর

গত মঙ্গলবার বিকেলে রংপুরে জেলা বিএনপির বিক্ষোভ মিছিলকে কেন্দ্র করে পুলিশের সঙ্গে বিএনপি কর্মীদের সংঘর্ষে ৩ পুলিশসহ ২০ নেতাকর্মী আহত হওয়ার ঘটনায় গতকাল বুধবার রংপুর মেট্রোপলিটন কোতয়ালি থানায় জেলা বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমান লাকুর নাম উল্লেখ করে আরও ৩০০ অজ্ঞাত নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। মামলায় সরকারি কাজে বাধা প্রদান, পুলিশের ওপর হামলা করে তিন পুলিশ সদস্য আহতসহ বিভিন্ন অভিযোগ আনা হয়েছে।

রংপুর কোতয়ালি থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) হোসেন আলী মামলা দায়ের করার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন মামলাটি দায়ের করেছেন এসআই রফিকুল ইসলাম।

এদিকে মামলার প্রধান আসামি জেলা বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলাম দাবি করেন, গত মঙ্গলবার তিনি রংপুরেই ছিলেন না তার ভাগনি জামাই শহিদুল ইসলাম সেবু সভাপতি পীরগঞ্জ পৌর বিএনপি গুরতর অসুস্থ অবস্থায় ঢাকায় স্পেশালাইজড হাসপাতালে তার ওপেন হার্ট সার্জারির কারণ মঙ্গলবার দুপুর ১টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত হাসপাতালেই ছিলেন।

এরপর সন্ধ্যা ৭টায় বাংলাদেশ স্পেন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের ঢাকায় অনুষ্ঠিত সভায় রাত ১১টা পর্যন্ত সেখানেই অবস্থান করেছেন। পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের নামে তাকে মামলার প্রধান আসামি করে পুলিশের দায়ের করা মামলাটি সাজানো তা প্রমাণিত হবে। তিনি চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে বলেন, ঢাকায় যে দুটি কারণে অবস্থান করেছেন তার ভিডিও ফুটেজ ছবিসহ অন্য দালিলিক প্রমাণ তার কাছে আছে যা আদালতে উপস্থাপন করবেন বলেও জানান। এ ঘটনার মধ্য দিয়ে প্রমাণিত হয় পুলিশ নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন করছে না। তিনি আরও চ্যালেঞ্জ দিয়ে বলেন, সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশের কাছে ভিডিও ফুটেজ আছে তারা প্রশান করুক আমি সংঘর্ষের ঘটনার সময় উপস্থিত ছিলাম।

উল্লেখ্য, বিএনপি নেতাকর্মীদের অভিযোগ করেছে গত মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে জেলা বিএনপির উদ্যোগে নগরীর গ্র্যান্ড হোটেল মোড়ে বিএনপি কার্যালয়ের সামনে পূর্ব নির্ধারিত বিক্ষোভ কর্মসূচি ছিল। এর আগে বিকেল ৪টার দিকে নগরীর শাপলা চত্বর থেকে দলীয় নেতাকর্মীরা মিছিল নিয়ে দলীয় কার্যালয়ে আসার পথে পুলিশ বিনা উসকানিতে গ্র্যান্ড হোটেলের অদূরে মিছিলে হামলা চালিয়ে বেপরোয়া লাঠিচার্জ শুরু করে। এ সময় নেতাকর্মীরা দলীয় কার্যালয়ে আশ্রয় নেয়ার চেষ্টা করলে পুলিশ দলীয় কার্যালয়ে ঢুকে নেতাকর্মীদের ওপর হামলা চালিয়ে লাঠিচার্জ করে। এতে কমপক্ষে ২০ জন নেতাকর্মী আহত হয়। পুলিশ দলীয় কার্যালয়ের আশপাশে দাঁড়িয়ে থাকা নেতাকর্মীদের বেধম মারধর করে। এতে দলীয় কার্যালয়ে থাকা নেতাকর্মীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। আহতদের মধ্যে রংপুর জেলা বিএনপি সদস্য আনিস ম-ল কাউনিয়া উপজেলা বিএনপি নেতা রাশেদুল ইসলামের মাথা ফেটে যায়। এছাড়া পুলিশের লাঠিচার্জে রংপুর জেলা মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক রতœা বেগম, রংপুর জেলা তাঁতী দলের সদস্য-সচিব নাজিউর রহমান, পীরগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক রায়হান প্রধানও গুরতর আহত হন। জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমান লাকু অভিযোগ করেন পুলিশ বিনা উসকানিতে তাদের শান্তিপূর্ণ মিছিলে এবং দলীয় কার্যালয়ে প্রবেশ করে বেপরোয়া লাঠিচার্জ করে ২০ নেতাকর্মীকে আহত করেছে।

অন্যদিকে রংপুর মেট্রোপলিটন কোতয়ালি থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) হোসেন আলী দাবি করেন, বিএনপি নেতাকর্মীরা শান্তিপূর্ণ মিছিলের নামে পুলিশের ওপর হামলা চালিয়েছে, বৃষ্টির মতো ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করেছে। এতে তিন পুলিশ গুরতর আহত হয়েছে। তারা হলেন এএসআই মমিন উদ্দিন, নায়েক মানিক ও কনস্টেবল মিঠুন চন্দ্র। তাদের পুলিশ হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

সার্বিক বিষয়ে জানতে পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) হোসেন আলীর সঙ্গে গতকাল বিকেলে তার সরকারি মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, বিএনপির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। মামলার বাদী হয়েছেন এসআই রফিকুল ইসলাম এবং মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে এসআই সোহেল রানাকে। তিনি জানান, ঘটনার তথ্য-প্রমাণ তাদের কাছে আছে। মামলার আসামিদের গ্রেপ্তার করার জন্য অভিযান চলছে।

এদিকে জেলা বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলাম সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমান লাকু পুলিশ কর্তৃক তারাসহ ৩০০ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলাটি সাজানো। অবিলম্বে মামলা প্রত্যাহার এবং নেতাকর্মীদের হয়রানি না করার অনুরোধ জানিয়েছেন তারা