কলাপাড়ায় পানিতে ডুবে তিন ভাইবোনের মৃত্যু

পটুয়াখালীর কলাপাড়ার বাদুরতলী সংলগ্ন জিয়া কলোনীতে মাটি কাটা গর্তের পানিতে ডুবে তিন ভাই-বোনের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। গতকাল শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে পরিবারের সবার অলক্ষ্যে এ মৃত্যুর ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলো অটোচালক সোহেল ফকিরের সাত বছরের ছেলে রুমান, পাঁচ বছরের মেয়ে শারমিন ও ভাই রুবেল ফকিরের আট বছরের ময়ে মরিয়ম।

এলাকাবাসী জানায়, আজ দুপুরে বাবা-মা ঘরে না থাকায় দাদী শেফালী বেগমের কাছেই ছিলো ওই তিন ভাই-বোন। এসময় বাড়ির পাশেই খেলা করতো ছিলো। দুপুরের স্থানীয় এক প্রতিবেশী গরুকে পানি খাওয়ানোর জন্য মাটি কাটার গর্তে জমে থাকা পানি তুলতে গেলে গর্তের পানিতে এক শিশুকে ভাসমান অবস্থায় দেখতে পায়। এসময় সে দ্রুত ওই শিশুকে পানি থেকে ওঠাতে গেলে ডুবন্ত অবস্থায় আরো দুই শিশুর মরদেহ দেখতে পায়। তাৎক্ষণিক সে ডাকচিৎকার দিলে স্থানীয়দের সহায়তায় তিন শিশুকে উদ্ধার করে কলাপাড়া হাসপাতালে ভর্তি করলে চিকিৎসকরা তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

খবর পেয়ে কলাপাড়া থানা পুলিশ নিহত শিশুদের বাড়ি গিয়ে তিন শিশুর মরদেহের সুরতহাল সম্পন্ন করে। এ ব্যাপারে পরবর্তী আইনী পদক্ষেপ নেয়া হবে বলে কলাপাড়া থানার উপ-পরিদর্শক হুমায়ুন কবীর জানান।

শনিবার, ১৩ মে ২০২৩ , ৩০ বৈশাখ ১৪৩০, ২২ ‍শাওয়াল ১৪৪৪

কলাপাড়ায় পানিতে ডুবে তিন ভাইবোনের মৃত্যু

প্রতিনিধি, কলাপাড়া (পটুয়াখালী)

পটুয়াখালীর কলাপাড়ার বাদুরতলী সংলগ্ন জিয়া কলোনীতে মাটি কাটা গর্তের পানিতে ডুবে তিন ভাই-বোনের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। গতকাল শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে পরিবারের সবার অলক্ষ্যে এ মৃত্যুর ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলো অটোচালক সোহেল ফকিরের সাত বছরের ছেলে রুমান, পাঁচ বছরের মেয়ে শারমিন ও ভাই রুবেল ফকিরের আট বছরের ময়ে মরিয়ম।

এলাকাবাসী জানায়, আজ দুপুরে বাবা-মা ঘরে না থাকায় দাদী শেফালী বেগমের কাছেই ছিলো ওই তিন ভাই-বোন। এসময় বাড়ির পাশেই খেলা করতো ছিলো। দুপুরের স্থানীয় এক প্রতিবেশী গরুকে পানি খাওয়ানোর জন্য মাটি কাটার গর্তে জমে থাকা পানি তুলতে গেলে গর্তের পানিতে এক শিশুকে ভাসমান অবস্থায় দেখতে পায়। এসময় সে দ্রুত ওই শিশুকে পানি থেকে ওঠাতে গেলে ডুবন্ত অবস্থায় আরো দুই শিশুর মরদেহ দেখতে পায়। তাৎক্ষণিক সে ডাকচিৎকার দিলে স্থানীয়দের সহায়তায় তিন শিশুকে উদ্ধার করে কলাপাড়া হাসপাতালে ভর্তি করলে চিকিৎসকরা তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

খবর পেয়ে কলাপাড়া থানা পুলিশ নিহত শিশুদের বাড়ি গিয়ে তিন শিশুর মরদেহের সুরতহাল সম্পন্ন করে। এ ব্যাপারে পরবর্তী আইনী পদক্ষেপ নেয়া হবে বলে কলাপাড়া থানার উপ-পরিদর্শক হুমায়ুন কবীর জানান।