নিউজিল্যান্ডে হোস্টেলে আগুন নিহত ৬

দেশটির একটি হোস্টেলে আগুন লেগে কমপক্ষে ৬ জন নিহত হয়েছেন। এই ঘটনায় নিখোঁজ রয়েছেন বেশ কয়েকজন। মৃত্যুর সংখ্যা এর দ্বিগুণ হতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। স্থানীয় সময় গতকাল মঙ্গলবার গভীর রাতে দেশটির ওয়েলিংটনের একটি হোস্টেলে আগুন লেগে এই প্রাণহানির এই ঘটনা ঘটে। এ খবর দিয়েছে নিউজিল্যান্ড। খবরে বলা হয়, ওয়েলিংটনের চারতলা লোফারস লজ নামে হোস্টেলে ভয়াবহ এই আগুন লাগে। এরপরই দ্রুত দমকল বাহিনী সেখানে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে চেষ্টা করে। আগুন নেভাতে ঘটনাস্থলে পৌঁছে দমকলকর্মীরা ভবনের ওপরের দিকে আগুন দেখতে পান। এরপর ভোর চারটা নাগাদ অন্তত ২০টি ফায়ার ট্রাকের সাহায্যে আগুন নিভিয়ে ফেলা হয়। ঘটনাস্থল থেকে প্রায় ২৫ জনকে উদ্ধার করা হয়। তবে এখনও বহু মানুষ নিখোঁজ রয়েছেন। ফায়ার অ্যান্ড ইমার্জেন্সি ডিস্ট্রিক্ট কমান্ডার পাইট বলেন, এটি সবার জন্য দুঃখজনক ঘটনা। যারা প্রাণ হারিয়েছেন তাদের প্রিয়জনদের প্রতি আমার আন্তরিক সমবেদনা। পুলিশ জানিয়েছে, যতক্ষণ না তারা ভবনের মধ্যে প্রবেশ করতে পাড়ছে ততক্ষণ মৃতের আসল সংখ্যা জানা যাবে না। কর্তৃপক্ষ ছাদ থেকে অন্তত পাঁচজনকে উদ্ধার করেছে। একজন তৃতীয় তলা থেকে লাফ দিলে আহত হয়েছেন। তবে ঠিক কী কারণে হোস্টেলে এ আগুনের ঘটনা ঘটল তা এখন পর্যন্ত জানা যায়নি বলে পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে। এ নিয়ে তদন্ত চলছে। ওই হোস্টেলটিতে ১০০ জনের মতো মানুষ থাকতেন বলে জানা গেছে।

আর হোস্টেলটির বাসিন্দাদের বেশিরভাগই একটি হাসপাতালে কাজ করতেন। তারা একেকজন একেক সময় (শিফট ভিত্তিতে) কাজে যেতেন। ফলে যখন অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে তখন ওই হোস্টেলের ভেতর কতজন ছিলেন সেটি নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

বুধবার, ১৭ মে ২০২৩ , ০৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০, ২৬ শাওয়াল ১৪৪৪

নিউজিল্যান্ডে হোস্টেলে আগুন নিহত ৬

দেশটির একটি হোস্টেলে আগুন লেগে কমপক্ষে ৬ জন নিহত হয়েছেন। এই ঘটনায় নিখোঁজ রয়েছেন বেশ কয়েকজন। মৃত্যুর সংখ্যা এর দ্বিগুণ হতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। স্থানীয় সময় গতকাল মঙ্গলবার গভীর রাতে দেশটির ওয়েলিংটনের একটি হোস্টেলে আগুন লেগে এই প্রাণহানির এই ঘটনা ঘটে। এ খবর দিয়েছে নিউজিল্যান্ড। খবরে বলা হয়, ওয়েলিংটনের চারতলা লোফারস লজ নামে হোস্টেলে ভয়াবহ এই আগুন লাগে। এরপরই দ্রুত দমকল বাহিনী সেখানে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে চেষ্টা করে। আগুন নেভাতে ঘটনাস্থলে পৌঁছে দমকলকর্মীরা ভবনের ওপরের দিকে আগুন দেখতে পান। এরপর ভোর চারটা নাগাদ অন্তত ২০টি ফায়ার ট্রাকের সাহায্যে আগুন নিভিয়ে ফেলা হয়। ঘটনাস্থল থেকে প্রায় ২৫ জনকে উদ্ধার করা হয়। তবে এখনও বহু মানুষ নিখোঁজ রয়েছেন। ফায়ার অ্যান্ড ইমার্জেন্সি ডিস্ট্রিক্ট কমান্ডার পাইট বলেন, এটি সবার জন্য দুঃখজনক ঘটনা। যারা প্রাণ হারিয়েছেন তাদের প্রিয়জনদের প্রতি আমার আন্তরিক সমবেদনা। পুলিশ জানিয়েছে, যতক্ষণ না তারা ভবনের মধ্যে প্রবেশ করতে পাড়ছে ততক্ষণ মৃতের আসল সংখ্যা জানা যাবে না। কর্তৃপক্ষ ছাদ থেকে অন্তত পাঁচজনকে উদ্ধার করেছে। একজন তৃতীয় তলা থেকে লাফ দিলে আহত হয়েছেন। তবে ঠিক কী কারণে হোস্টেলে এ আগুনের ঘটনা ঘটল তা এখন পর্যন্ত জানা যায়নি বলে পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে। এ নিয়ে তদন্ত চলছে। ওই হোস্টেলটিতে ১০০ জনের মতো মানুষ থাকতেন বলে জানা গেছে।

আর হোস্টেলটির বাসিন্দাদের বেশিরভাগই একটি হাসপাতালে কাজ করতেন। তারা একেকজন একেক সময় (শিফট ভিত্তিতে) কাজে যেতেন। ফলে যখন অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে তখন ওই হোস্টেলের ভেতর কতজন ছিলেন সেটি নিশ্চিত হওয়া যায়নি।