ক্ষমতার মালিক বিদেশিরা নয়, জনগণ : কাদের

বিদেশিরা কাউকে ক্ষমতায় বসাবে এমন চিন্তা আওয়ামী লীগ করে না জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘দেশের ক্ষমতার মালিক বিদেশিরা নয়; বরং মালিক হলো দেশের জনগণ। সুতরাং ক্ষমতায় বসাতে হলে বসাবে দেশের জনগণ।’ তিনি গতকাল বেলা ১২টায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে চিত্রনায়ক ও সংসদ সদস্য আকবর হোসেন খান দুলুর (ফারুক) মরদেহে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ফারুকের বেশ কয়েকটি চলচ্চিত্র আমার কাছে ভালো লেগেছে। তিনি ভালো লাগার মতোই নায়ক ছিলেন। তার লাইফটা ছিল কালারফুল। একদিকে ভালো নায়ক অন্যদিকে রাজনীতিবিদ। শুধু তাই নয়, তিনি ছিলেন একজন সক্রিয় রাজনীতিবিদ।’

নায়ক ফারুক একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন উল্লেখ করে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু তাকে খুবই ভালোবাসতেন এবং পছন্দ করতেন। তিনি মুক্তিযুদ্ধের চেতনার পাশাপাশি আওয়ামী লীগের আদর্শ ধারণ করেছিলেন। পরে তিনি সংসদ সদস্য হয়েছিলেন। আদর্শের প্রশ্নে তিনি ছিলেন অবিচল, পাহাড়ের মতো অনড় এবং আপসহীন। কিন্তু ভাগ্যের নির্মম পরিহাস, তিনি তার এলাকাবাসীর জন্য কিছু করতে পারেননি। তার আগেই তিনি অসুস্থ হয়ে যান। শেষে তিনি সিঙ্গাপুরের একটি হাসপাতলে কোমায় ছিলেন।’

ফারুকের সঙ্গে শেষ স্মৃতি সর্ম্পকে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘কিছুদিন আগে টেলিফোনে তার গলার স্বর শুনতে পেয়েছিলাম। তখন আমি ভেবেছিলাম খুব শীঘ্রই সুস্থ হয়ে আমাদের মধ্যে ফিরে আসবেন। তিনি ফিরেও এসেছেন, কিন্তু জীবিত হয়ে না, লাশ হয়ে।’

এর আগে সকাল ১১টার দিকে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের ব্যানারে নায়ক ফারুকের মরদেহে শ্রদ্ধা জানায় বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ।

বুধবার, ১৭ মে ২০২৩ , ০৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০, ২৬ শাওয়াল ১৪৪৪

ক্ষমতার মালিক বিদেশিরা নয়, জনগণ : কাদের

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

বিদেশিরা কাউকে ক্ষমতায় বসাবে এমন চিন্তা আওয়ামী লীগ করে না জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘দেশের ক্ষমতার মালিক বিদেশিরা নয়; বরং মালিক হলো দেশের জনগণ। সুতরাং ক্ষমতায় বসাতে হলে বসাবে দেশের জনগণ।’ তিনি গতকাল বেলা ১২টায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে চিত্রনায়ক ও সংসদ সদস্য আকবর হোসেন খান দুলুর (ফারুক) মরদেহে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ফারুকের বেশ কয়েকটি চলচ্চিত্র আমার কাছে ভালো লেগেছে। তিনি ভালো লাগার মতোই নায়ক ছিলেন। তার লাইফটা ছিল কালারফুল। একদিকে ভালো নায়ক অন্যদিকে রাজনীতিবিদ। শুধু তাই নয়, তিনি ছিলেন একজন সক্রিয় রাজনীতিবিদ।’

নায়ক ফারুক একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন উল্লেখ করে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু তাকে খুবই ভালোবাসতেন এবং পছন্দ করতেন। তিনি মুক্তিযুদ্ধের চেতনার পাশাপাশি আওয়ামী লীগের আদর্শ ধারণ করেছিলেন। পরে তিনি সংসদ সদস্য হয়েছিলেন। আদর্শের প্রশ্নে তিনি ছিলেন অবিচল, পাহাড়ের মতো অনড় এবং আপসহীন। কিন্তু ভাগ্যের নির্মম পরিহাস, তিনি তার এলাকাবাসীর জন্য কিছু করতে পারেননি। তার আগেই তিনি অসুস্থ হয়ে যান। শেষে তিনি সিঙ্গাপুরের একটি হাসপাতলে কোমায় ছিলেন।’

ফারুকের সঙ্গে শেষ স্মৃতি সর্ম্পকে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘কিছুদিন আগে টেলিফোনে তার গলার স্বর শুনতে পেয়েছিলাম। তখন আমি ভেবেছিলাম খুব শীঘ্রই সুস্থ হয়ে আমাদের মধ্যে ফিরে আসবেন। তিনি ফিরেও এসেছেন, কিন্তু জীবিত হয়ে না, লাশ হয়ে।’

এর আগে সকাল ১১টার দিকে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের ব্যানারে নায়ক ফারুকের মরদেহে শ্রদ্ধা জানায় বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ।