ফ্যাশন ডিজাইনার তৈরিতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়-বিজিএমইএ সমঝোতা

বাংলাদেশ সরকারের বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতি (বিজিএমইএ) দক্ষ ফ্যাশন পেশাজীবী এবং ডিজাইনারদের একটি পুল তৈরি করতে একটি সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) সই করেছে। এই পেশাজীবী ও ডিজাইনাররা দেশীয় কাপড় এবং উপকরণ ব্যবহার করে উচ্চ মূল্যের ফ্যাশনেবল পোশাক তৈরিতে কাজ করবে।

প্রশিক্ষণ উদ্যোগটি ইআইএফ এক্সপোর্ট ডাইভারসিফিকেশন অ্যান্ড কম্পিটিটিভনেস ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্টের (টায়ার-২) অধীনে হাই অ্যান্ড ফ্যাশন প্রজেক্ট (আন্তর্জাতিক রপ্তানি বাজারের সঙ্গে বাংলাদেশের ঐতিহ্যকে সংযুক্তকরণ) এর একটি অংশ।

সমঝোতা অনুযায়ী ডিজাইনার, প্যাটার্ন মার্কার, মার্চেন্ডাইজার, দেশীয় টেক্সটাইল সামগ্রী ব্যবহারকারী তাঁতি এবং ফ্যাশন ও টেক্সটাইল শিক্ষার্থীসহ বাংলাদেশি টেক্সটাইল পেশাজীবীদের স্থানীয় সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যকে পোশাকে সংযুক্ত করে উচ্চমানের ফ্যাশনেবল পোশাক তৈরি ও ডিজাইনের ওপর প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।

বিজিএমইএ জানিয়েছে, প্রশিক্ষণটি বিজিএমইএর সেন্টার অব ইনোভেশন, এফিশিয়েন্সি অ্যান্ড অকুপেশনাল সেফটি অ্যান্ড হেলথের (সিআইইও এসএইচ) অধীনে পরিচালিত হবে, যেখানে মোট ১৬০ জন পেশাজীবী বৈশ্বিক হাই অ্যান্ড ফ্যাশন স্পেস, কালেকশন ডেভলপমেন্ট, সাসটেইনেবিলিটি ইস্যু প্রভৃতি ক্ষেত্রে বাংলাদেশের যে সুযোগগুলো রয়েছে, সেগুলো বিষয়ে নিবিড় প্রশিক্ষণ লাভ করবেন।

প্রশিক্ষণ সেশনগুলো পরিচালনা করবেন বিখ্যাত ফ্যাশন ডিজাইনার, শিকাগো-ভিত্তিক ফ্যাশন ব্র্যান্ড নেভালের প্রতিষ্ঠাতা আনাদিল জনসন। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের ডব্লিউটিও শাখার রপ্তানি বহুমুখীকরণ ও বৈচিত্র্যকরণ প্রকল্পের (টায়ার-২) উপসচিব এবং প্রকল্প পরিচালক মোহাম্মদ ইলিয়াস মিয়া এবং বিজিএমইএর পরিচালক নীলা হোসনা আরা সমঝোতা স্মারকে সই করেন।

গত মঙ্গলবার ঢাকার উত্তরায় বিজিএমইএ কমপ্লেক্সে অনুষ্ঠিত সমঝোতা স্মারক সই অনুষ্ঠানে ডেভিড অস্টিন আঞ্চলিক পোর্টফোলিও ম্যানেজার, ইউনাইটেড নেশনস অফিস ফর প্রজেক্ট সার্ভিসেস এবং রাফায়েল নিকোল ড্যানিয়েল কুইন্টাল, পোর্টফোলিও ম্যানেজমেন্ট অফিসার, ইআইএফ এক্সিকিউটিভ সেক্রেটারিয়েট ডব্লিউটিও উপস্থিত ছিলেন।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের ডব্লিউটিও সেল বাংলাদেশি ঐতিহ্যকে উন্নতমানের ফ্যাশন পণ্যে রূপান্তরিত করতে এবং আন্তর্জাতিকভাবে এই পণ্যগুলোর জন্য একটি বাজার তৈরি করার লক্ষ্য নিয়ে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে।

বৃহস্পতিবার, ১৮ মে ২০২৩ , ০৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০, ২৭ শাওয়াল ১৪৪৪

ফ্যাশন ডিজাইনার তৈরিতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়-বিজিএমইএ সমঝোতা

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

বাংলাদেশ সরকারের বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতি (বিজিএমইএ) দক্ষ ফ্যাশন পেশাজীবী এবং ডিজাইনারদের একটি পুল তৈরি করতে একটি সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) সই করেছে। এই পেশাজীবী ও ডিজাইনাররা দেশীয় কাপড় এবং উপকরণ ব্যবহার করে উচ্চ মূল্যের ফ্যাশনেবল পোশাক তৈরিতে কাজ করবে।

প্রশিক্ষণ উদ্যোগটি ইআইএফ এক্সপোর্ট ডাইভারসিফিকেশন অ্যান্ড কম্পিটিটিভনেস ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্টের (টায়ার-২) অধীনে হাই অ্যান্ড ফ্যাশন প্রজেক্ট (আন্তর্জাতিক রপ্তানি বাজারের সঙ্গে বাংলাদেশের ঐতিহ্যকে সংযুক্তকরণ) এর একটি অংশ।

সমঝোতা অনুযায়ী ডিজাইনার, প্যাটার্ন মার্কার, মার্চেন্ডাইজার, দেশীয় টেক্সটাইল সামগ্রী ব্যবহারকারী তাঁতি এবং ফ্যাশন ও টেক্সটাইল শিক্ষার্থীসহ বাংলাদেশি টেক্সটাইল পেশাজীবীদের স্থানীয় সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যকে পোশাকে সংযুক্ত করে উচ্চমানের ফ্যাশনেবল পোশাক তৈরি ও ডিজাইনের ওপর প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।

বিজিএমইএ জানিয়েছে, প্রশিক্ষণটি বিজিএমইএর সেন্টার অব ইনোভেশন, এফিশিয়েন্সি অ্যান্ড অকুপেশনাল সেফটি অ্যান্ড হেলথের (সিআইইও এসএইচ) অধীনে পরিচালিত হবে, যেখানে মোট ১৬০ জন পেশাজীবী বৈশ্বিক হাই অ্যান্ড ফ্যাশন স্পেস, কালেকশন ডেভলপমেন্ট, সাসটেইনেবিলিটি ইস্যু প্রভৃতি ক্ষেত্রে বাংলাদেশের যে সুযোগগুলো রয়েছে, সেগুলো বিষয়ে নিবিড় প্রশিক্ষণ লাভ করবেন।

প্রশিক্ষণ সেশনগুলো পরিচালনা করবেন বিখ্যাত ফ্যাশন ডিজাইনার, শিকাগো-ভিত্তিক ফ্যাশন ব্র্যান্ড নেভালের প্রতিষ্ঠাতা আনাদিল জনসন। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের ডব্লিউটিও শাখার রপ্তানি বহুমুখীকরণ ও বৈচিত্র্যকরণ প্রকল্পের (টায়ার-২) উপসচিব এবং প্রকল্প পরিচালক মোহাম্মদ ইলিয়াস মিয়া এবং বিজিএমইএর পরিচালক নীলা হোসনা আরা সমঝোতা স্মারকে সই করেন।

গত মঙ্গলবার ঢাকার উত্তরায় বিজিএমইএ কমপ্লেক্সে অনুষ্ঠিত সমঝোতা স্মারক সই অনুষ্ঠানে ডেভিড অস্টিন আঞ্চলিক পোর্টফোলিও ম্যানেজার, ইউনাইটেড নেশনস অফিস ফর প্রজেক্ট সার্ভিসেস এবং রাফায়েল নিকোল ড্যানিয়েল কুইন্টাল, পোর্টফোলিও ম্যানেজমেন্ট অফিসার, ইআইএফ এক্সিকিউটিভ সেক্রেটারিয়েট ডব্লিউটিও উপস্থিত ছিলেন।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের ডব্লিউটিও সেল বাংলাদেশি ঐতিহ্যকে উন্নতমানের ফ্যাশন পণ্যে রূপান্তরিত করতে এবং আন্তর্জাতিকভাবে এই পণ্যগুলোর জন্য একটি বাজার তৈরি করার লক্ষ্য নিয়ে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে।