চার দিন ধরে বিদ্যুৎহীন শাহপরীর দ্বীপ ও সেন্টমার্টিন, খাদ্য ও পানির সংকট

কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলায় শাহপরীর দ্বীপ ও সেন্টমার্টিনের ৮০ শতাংশ ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে ঘূর্ণিঝড় মোখার আঘাতে। এখন পর্যন্ত সরকারি সহায়তা না পৌঁছায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষ মানবেতর জীবনযাপন করছেন। মোখার আঘাতে গত চার দিন ধরে বিদ্যুৎহীন রয়েছে শাহ পরীর দ্বীপ ও সেন্টমার্টিন। পাশাপাশি খাবার ও পানির সংকট দেখা দিয়েছে। স্থানীয়রা এসব সমস্যা দ্রুত সমাধানের দাবি জানিয়েছেন।

এলাকাবাসী বলেছেন, শাহপরীর দ্বীপ তিনটি ওয়ার্ডে বসবাস করছেন ৩৫ হাজারের বেশি মানুষ। এর মধ্যে আট হাজারের বেশি মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। চার দিন ধরে বিদ্যুৎ নেই। বেশির ভাগ ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। সেগুলো এখনও মেরামত করা হয়নি। অধিকাংশ পরিবারে দেখা দিয়েছে খাবার ও পানির সংকট।’

শাহপরীর দ্বীপের জালিয়াপাড়ায় বসবাস করেন মো. সালাম। তার পরিবারে চার সদস্য। পাশেই থাকেন দুই মামা মো. ইউনুছ ও মো. আলম। বোন জায়েদা বেগম ও চাচা আমান উল্লাহর পরিবারও একই পাড়ায় থাকে। ঘূর্ণিঝড়ের আঘাতে নিঃস্ব হয়ে গেছেন। তাদের কারও ঘরে খাবার নেই, রয়েছে পানির সংকট।

শাহপরীর দ্বীপের ডেইলপাড়ার আশ্রয়কেন্দ্রে একদিন একরাত কাটিয়েছেন মোহাম্মদ আলী। ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানার পর তছনছ যায় তার বাড়িঘর। আশ্রয়কেন্দ্র থেকে ফিরে দেখেন, বাড়িঘরের অস্তিত্ব নেই। রান্নাঘরের সরঞ্জামও খুঁজে পাননি। পরিবারের সাত সদস্য নিয়ে এখন খাবার ও পানির সংকটে ভুগছেন আলী।

পশ্চিমপাড়া গ্রামের আবদুল আলীম চা দোকান দিয়ে জীবিকা নির্বাহ করে আসছিলেন। তার একমাত্র সম্বল সেই দোকানটি ঝড়ে উড়িয়ে নিয়ে গেছে। সেই সঙ্গে নিজের বসতঘরটিও। এখন তা ঘরেও খাবারের সংকট আছে।

ঘরে খাবার নেই, পানির সংকটে আছি উল্লেখ করে সেন্টমার্টিন দ্বীপের মাঝারপাড়ার বাসিন্দা নুর আয়েশা বেগম বলেন, ‘ছনের ছাউনি দিয়ে ঘরে বসবাস করতাম। ঝড়ে তছনছ হয়ে গেছে। বোনের ঘরে আশ্রয় নিয়েছি। সকাল থেকে না খেয়ে আছি। খোলা ভিটায় প্রচণ্ড রোদে পুড়ে যাচ্ছি। রিলিফের সন্ধানে যাবো, সেই শক্তি নেই।’

সেন্টমার্টিন দ্বীপের বাসিন্দা আবদুল মালেক বলেন, ‘ঘূর্ণিঝড়ে দ্বীপের আট হাজার মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। অধিকাংশ মানুষের ঘরে খাবার নেই। পানির সংকট, নেই বিদ্যুৎ। খুব খারাপ অবস্থায় আছি আমরা।’

সরকারি ত্রাণ সহায়তা পেয়েছেন কি-না এমন প্রশ্নের জবাবে ক্ষোভ প্রকাশ করেন আবদুল মালেক। তিনি বলেন, ‘যেখানে খাবার ও বিশুদ্ধ পানি সংকট, সেখানে আমাদের মুড়ি দেয়া হচ্ছে। এটি আমাদের সঙ্গে তামাশা ছাড়া কিছুই নয়। শুনতেছি, ত্রাণ দেবে, এখনও পাইনি। তবে তার আগে আমাদের পুনর্বাসন করা দরকার।’

আমার ওয়ার্ডে ১২০০ ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এমনটি জানিয়েছেন সাবরাং ইউনিয়ন পরিষদের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের (শাহপরীর দ্বীপ) মেম্বার আবদুস সালাম। তিনি বলেন, ‘গত কয়েকদিন ধরে এসব মানুষের খাবার ও পানির সংকট রয়েছে। আমরা প্রাথমিভাবে হাজার খানেক মানুষকে সহায়তা দিয়েছি। বাকিদের সহায়তা দেয়ার কার্যক্রম চলছে।’

মেম্বার আবদুস সালাম আরও বলেন, ?‘আগে থেকেই এখানে সুপেয় পানির অভাব ছিল। জালিয়াপাড়া, ক্যাম্পপাড়া ও ঘোলার পাড়ার টিউবওয়েলের পানি লবণাক্ত। দূর-দূরান্ত থেকে পানি আনতে হয়। কিন্তু দূরে যাওয়ার ব্যবস্থা নেই। চার দিন ধরে বিদ্যুৎ নেই। এখানকার মানুষের অবস্থা খুব খারাপ।’

ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার বাসিন্দাদের জন্য বুধবার ত্রাণ সহায়তা ও ঘর মেরামতের জন্য ঢেউটিন পাঠানো হয়েছে বলে জানালেন জেলা প্রশাসক মুহম্মদ শাহীন ইমরান।

ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসনের জন্য তালিকা করেছি উল্লেখ করে জেলা প্রশাসক বলেন, সেন্টমার্টিনের ক্ষতিগ্রস্ত ১২০০ পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ শুরু হয়েছে। শাহপরীর দ্বীপের বাসিন্দাদেরও ত্রাণ দেয়া হচ্ছে। তাদের ঘরবাড়ি মেরামতের জন্য ঢেউটিন ও নগদ অর্থ দেয়া হবে।’

বৃহস্পতিবার, ১৮ মে ২০২৩ , ০৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০, ২৭ শাওয়াল ১৪৪৪

চার দিন ধরে বিদ্যুৎহীন শাহপরীর দ্বীপ ও সেন্টমার্টিন, খাদ্য ও পানির সংকট

প্রতিনিধি, কক্সবাজার

image

কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলায় শাহপরীর দ্বীপ ও সেন্টমার্টিনের ৮০ শতাংশ ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে ঘূর্ণিঝড় মোখার আঘাতে। এখন পর্যন্ত সরকারি সহায়তা না পৌঁছায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষ মানবেতর জীবনযাপন করছেন। মোখার আঘাতে গত চার দিন ধরে বিদ্যুৎহীন রয়েছে শাহ পরীর দ্বীপ ও সেন্টমার্টিন। পাশাপাশি খাবার ও পানির সংকট দেখা দিয়েছে। স্থানীয়রা এসব সমস্যা দ্রুত সমাধানের দাবি জানিয়েছেন।

এলাকাবাসী বলেছেন, শাহপরীর দ্বীপ তিনটি ওয়ার্ডে বসবাস করছেন ৩৫ হাজারের বেশি মানুষ। এর মধ্যে আট হাজারের বেশি মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। চার দিন ধরে বিদ্যুৎ নেই। বেশির ভাগ ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। সেগুলো এখনও মেরামত করা হয়নি। অধিকাংশ পরিবারে দেখা দিয়েছে খাবার ও পানির সংকট।’

শাহপরীর দ্বীপের জালিয়াপাড়ায় বসবাস করেন মো. সালাম। তার পরিবারে চার সদস্য। পাশেই থাকেন দুই মামা মো. ইউনুছ ও মো. আলম। বোন জায়েদা বেগম ও চাচা আমান উল্লাহর পরিবারও একই পাড়ায় থাকে। ঘূর্ণিঝড়ের আঘাতে নিঃস্ব হয়ে গেছেন। তাদের কারও ঘরে খাবার নেই, রয়েছে পানির সংকট।

শাহপরীর দ্বীপের ডেইলপাড়ার আশ্রয়কেন্দ্রে একদিন একরাত কাটিয়েছেন মোহাম্মদ আলী। ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানার পর তছনছ যায় তার বাড়িঘর। আশ্রয়কেন্দ্র থেকে ফিরে দেখেন, বাড়িঘরের অস্তিত্ব নেই। রান্নাঘরের সরঞ্জামও খুঁজে পাননি। পরিবারের সাত সদস্য নিয়ে এখন খাবার ও পানির সংকটে ভুগছেন আলী।

পশ্চিমপাড়া গ্রামের আবদুল আলীম চা দোকান দিয়ে জীবিকা নির্বাহ করে আসছিলেন। তার একমাত্র সম্বল সেই দোকানটি ঝড়ে উড়িয়ে নিয়ে গেছে। সেই সঙ্গে নিজের বসতঘরটিও। এখন তা ঘরেও খাবারের সংকট আছে।

ঘরে খাবার নেই, পানির সংকটে আছি উল্লেখ করে সেন্টমার্টিন দ্বীপের মাঝারপাড়ার বাসিন্দা নুর আয়েশা বেগম বলেন, ‘ছনের ছাউনি দিয়ে ঘরে বসবাস করতাম। ঝড়ে তছনছ হয়ে গেছে। বোনের ঘরে আশ্রয় নিয়েছি। সকাল থেকে না খেয়ে আছি। খোলা ভিটায় প্রচণ্ড রোদে পুড়ে যাচ্ছি। রিলিফের সন্ধানে যাবো, সেই শক্তি নেই।’

সেন্টমার্টিন দ্বীপের বাসিন্দা আবদুল মালেক বলেন, ‘ঘূর্ণিঝড়ে দ্বীপের আট হাজার মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। অধিকাংশ মানুষের ঘরে খাবার নেই। পানির সংকট, নেই বিদ্যুৎ। খুব খারাপ অবস্থায় আছি আমরা।’

সরকারি ত্রাণ সহায়তা পেয়েছেন কি-না এমন প্রশ্নের জবাবে ক্ষোভ প্রকাশ করেন আবদুল মালেক। তিনি বলেন, ‘যেখানে খাবার ও বিশুদ্ধ পানি সংকট, সেখানে আমাদের মুড়ি দেয়া হচ্ছে। এটি আমাদের সঙ্গে তামাশা ছাড়া কিছুই নয়। শুনতেছি, ত্রাণ দেবে, এখনও পাইনি। তবে তার আগে আমাদের পুনর্বাসন করা দরকার।’

আমার ওয়ার্ডে ১২০০ ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এমনটি জানিয়েছেন সাবরাং ইউনিয়ন পরিষদের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের (শাহপরীর দ্বীপ) মেম্বার আবদুস সালাম। তিনি বলেন, ‘গত কয়েকদিন ধরে এসব মানুষের খাবার ও পানির সংকট রয়েছে। আমরা প্রাথমিভাবে হাজার খানেক মানুষকে সহায়তা দিয়েছি। বাকিদের সহায়তা দেয়ার কার্যক্রম চলছে।’

মেম্বার আবদুস সালাম আরও বলেন, ?‘আগে থেকেই এখানে সুপেয় পানির অভাব ছিল। জালিয়াপাড়া, ক্যাম্পপাড়া ও ঘোলার পাড়ার টিউবওয়েলের পানি লবণাক্ত। দূর-দূরান্ত থেকে পানি আনতে হয়। কিন্তু দূরে যাওয়ার ব্যবস্থা নেই। চার দিন ধরে বিদ্যুৎ নেই। এখানকার মানুষের অবস্থা খুব খারাপ।’

ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার বাসিন্দাদের জন্য বুধবার ত্রাণ সহায়তা ও ঘর মেরামতের জন্য ঢেউটিন পাঠানো হয়েছে বলে জানালেন জেলা প্রশাসক মুহম্মদ শাহীন ইমরান।

ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসনের জন্য তালিকা করেছি উল্লেখ করে জেলা প্রশাসক বলেন, সেন্টমার্টিনের ক্ষতিগ্রস্ত ১২০০ পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ শুরু হয়েছে। শাহপরীর দ্বীপের বাসিন্দাদেরও ত্রাণ দেয়া হচ্ছে। তাদের ঘরবাড়ি মেরামতের জন্য ঢেউটিন ও নগদ অর্থ দেয়া হবে।’