ফাইনালে ম্যানসিটি, সামনে ইন্টার

বর্তমান চ্যাম্পিয়ন রিয়াল মাদ্রিদকে সেমিফাইনালের ফিরতি লেগে ৪-০ গোলে হারিয়ে দিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লীগের ফাইনালে উঠেছে ম্যানচেস্টার সিটি। সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে অনুষ্ঠিত প্রথম লেগ ড্র হয়েছিল ১-১ গোলে। দুই লেগ মিলিয়ে ম্যানসিটি জয়ী হয়েছে ৫-১ গোলে। আগামী ১০ জুন ইস্তানবুলে অনুষ্ঠিতব্য ফাইনালে ম্যানসিটি খেলবে ইতালির ইন্টার মিলানের বিপক্ষে। ইন্টার মিলান ইতালির অন্য ক্লাব এসি মিলানকে পরাজিত করে ফাইনালে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে।

মৌসুমের মাঝামাঝি সময় থেকেই ম্যানসিটি দূরন্ত ফুটবল খেলছে। অন্যদিকে রিয়াল মাদ্রিদের ধারাবাহিকতার অভাব পুরো মৌসুম জুড়েই। দুই দলের ফর্মের বাস্তব অবস্থাই দেখা গেছে গত বুধবার রাতে ইত্তেহাদ স্টেডিয়ামে। শুরু থেকেই রিয়াল মাদ্রিদকে চেপে ধরে বিরতির আগেই দুই গোল আদায় করে নেয় ম্যানসিটি। দুটি গোলই করেন বের্নার্দো সিলভা। বিরতির পর এডার মিলিতাও আত্মঘাতি গোল করলে রিয়ালে ক্ষীণ আশাও শেষ হয়ে যায়। এরপর শেষদিকে জুলিয়ান আলভারেজ চতুর্থ গোল করার মাধ্যমে রিয়ালের কফিনে শেষ পেরেকটি ঠুকে দেন। এ জয়ের মাধ্যমে পেপ গার্দিওয়ালার দল গত মৌসুমে সেমিফাইনালে পরাজয়ের প্রতিশোধ নিল।

ম্যানসিটি এ নিয়ে দুইবার চ্যাম্পিয়ন্স লীগের ফাইনালে খেলার যোগ্যতা অর্জন করলো। দুই বছর আগে প্রথম ফাইনালে খেলেছিল ম্যানসিটি। সেবার ফাইনালে তারা হেরে যায় ইংল্যান্ডেরই অন্য দল চেলসির কাছে।

ম্যানসিটি সব ধরনের ফুটবলে নিজেদের মাঠে শেষ ২৬ ম্যাচে অপরাজিত রয়েছে। তারা পরিষ্কার ফেবারিট হিসেবেই শুরু করে ফিরতি লেগ। বের্নার্দো সিলভা ২৩ ও ৩৭ মিনিটে দুটি গোল করে ম্যানসিটিকে ফাইনালের পথে অনেকটাই এগিয়ে দেন। দ্বিতীয়ার্ধেও তেমন কিছুই করতে পারেনি রিয়াল। যদিও চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সবচেয়ে সফল দল রিয়াল এবং শেষ দশ মৌসুমের মধ্যে ৫ বারই চ্যাম্পিয়ন হয়েছে তারা।

রিয়ালের দুর্ভাগ্য আরও বাড়িয়ে দেন ডিফেন্ডার এডার মিলিতাও। ৭৬ মিনিটে কেভিন ডি ব্রইনার ফ্রি-কিক মিলিতাওয়ের মাধ্যমে দিক পরিবর্তন করে নিজেদের জালে জড়ায়। আর্লিং হাল্যান্ডের বদলি হিসেবে খেলতে নামা আলভারেজ করেন শেষ গোলটি।

রিয়াল এ ম্যাচে কেবল একটি পরিবর্তন করে খেলতে নামে। ডিফেন্ডার অ্যান্টনিও রুডিগারের বদলে কোচ একাদশে জায়গা দেন মিলিতাওকে। ম্যানসিটিতে কোন পরিবর্তন ছিল না। তবে খেলার ধরন এবং উভয় দলের খেলোয়াড়দের মানসিকতায় ছিল আকাশ-পাতাল ব্যবধান। রিয়ালের খেলোয়াড়দের মধ্যে জয়ী হওয়ার তীব্র আকাক্সক্ষা দেখা যায়নি। অন্যদিকে ম্যানসিটি ছিল মরিয়া এবং তার ফলও তারা পেয়ে চার গোলের জয়ের মাধ্যমে।

রিয়ালের কোচ কার্লো অ্যানচেলোত্তি স্বীকার করেছেন ম্যানসিটি যোগ্য দল হিসেবেই ফাইনালে উঠেছে। তার দল জেতার মতো খেলতে পারেনি।

শুক্রবার, ১৯ মে ২০২৩ , ০৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০, ২৮ শাওয়াল ১৪৪৪

ফাইনালে ম্যানসিটি, সামনে ইন্টার

সংবাদ স্পোর্টস ডেস্ক

image

সিলভার গোল উদ্যাপন

বর্তমান চ্যাম্পিয়ন রিয়াল মাদ্রিদকে সেমিফাইনালের ফিরতি লেগে ৪-০ গোলে হারিয়ে দিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লীগের ফাইনালে উঠেছে ম্যানচেস্টার সিটি। সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে অনুষ্ঠিত প্রথম লেগ ড্র হয়েছিল ১-১ গোলে। দুই লেগ মিলিয়ে ম্যানসিটি জয়ী হয়েছে ৫-১ গোলে। আগামী ১০ জুন ইস্তানবুলে অনুষ্ঠিতব্য ফাইনালে ম্যানসিটি খেলবে ইতালির ইন্টার মিলানের বিপক্ষে। ইন্টার মিলান ইতালির অন্য ক্লাব এসি মিলানকে পরাজিত করে ফাইনালে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে।

মৌসুমের মাঝামাঝি সময় থেকেই ম্যানসিটি দূরন্ত ফুটবল খেলছে। অন্যদিকে রিয়াল মাদ্রিদের ধারাবাহিকতার অভাব পুরো মৌসুম জুড়েই। দুই দলের ফর্মের বাস্তব অবস্থাই দেখা গেছে গত বুধবার রাতে ইত্তেহাদ স্টেডিয়ামে। শুরু থেকেই রিয়াল মাদ্রিদকে চেপে ধরে বিরতির আগেই দুই গোল আদায় করে নেয় ম্যানসিটি। দুটি গোলই করেন বের্নার্দো সিলভা। বিরতির পর এডার মিলিতাও আত্মঘাতি গোল করলে রিয়ালে ক্ষীণ আশাও শেষ হয়ে যায়। এরপর শেষদিকে জুলিয়ান আলভারেজ চতুর্থ গোল করার মাধ্যমে রিয়ালের কফিনে শেষ পেরেকটি ঠুকে দেন। এ জয়ের মাধ্যমে পেপ গার্দিওয়ালার দল গত মৌসুমে সেমিফাইনালে পরাজয়ের প্রতিশোধ নিল।

ম্যানসিটি এ নিয়ে দুইবার চ্যাম্পিয়ন্স লীগের ফাইনালে খেলার যোগ্যতা অর্জন করলো। দুই বছর আগে প্রথম ফাইনালে খেলেছিল ম্যানসিটি। সেবার ফাইনালে তারা হেরে যায় ইংল্যান্ডেরই অন্য দল চেলসির কাছে।

ম্যানসিটি সব ধরনের ফুটবলে নিজেদের মাঠে শেষ ২৬ ম্যাচে অপরাজিত রয়েছে। তারা পরিষ্কার ফেবারিট হিসেবেই শুরু করে ফিরতি লেগ। বের্নার্দো সিলভা ২৩ ও ৩৭ মিনিটে দুটি গোল করে ম্যানসিটিকে ফাইনালের পথে অনেকটাই এগিয়ে দেন। দ্বিতীয়ার্ধেও তেমন কিছুই করতে পারেনি রিয়াল। যদিও চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সবচেয়ে সফল দল রিয়াল এবং শেষ দশ মৌসুমের মধ্যে ৫ বারই চ্যাম্পিয়ন হয়েছে তারা।

রিয়ালের দুর্ভাগ্য আরও বাড়িয়ে দেন ডিফেন্ডার এডার মিলিতাও। ৭৬ মিনিটে কেভিন ডি ব্রইনার ফ্রি-কিক মিলিতাওয়ের মাধ্যমে দিক পরিবর্তন করে নিজেদের জালে জড়ায়। আর্লিং হাল্যান্ডের বদলি হিসেবে খেলতে নামা আলভারেজ করেন শেষ গোলটি।

রিয়াল এ ম্যাচে কেবল একটি পরিবর্তন করে খেলতে নামে। ডিফেন্ডার অ্যান্টনিও রুডিগারের বদলে কোচ একাদশে জায়গা দেন মিলিতাওকে। ম্যানসিটিতে কোন পরিবর্তন ছিল না। তবে খেলার ধরন এবং উভয় দলের খেলোয়াড়দের মানসিকতায় ছিল আকাশ-পাতাল ব্যবধান। রিয়ালের খেলোয়াড়দের মধ্যে জয়ী হওয়ার তীব্র আকাক্সক্ষা দেখা যায়নি। অন্যদিকে ম্যানসিটি ছিল মরিয়া এবং তার ফলও তারা পেয়ে চার গোলের জয়ের মাধ্যমে।

রিয়ালের কোচ কার্লো অ্যানচেলোত্তি স্বীকার করেছেন ম্যানসিটি যোগ্য দল হিসেবেই ফাইনালে উঠেছে। তার দল জেতার মতো খেলতে পারেনি।