বাটলারের লজ্জার রেকর্ড

লজ্জার রেকর্ড গড়েছেন রাজস্থানের তারকা ব্যাটসম্যান জস বাটলার। চলতি আইপিএলে পাঁচ-পাঁচটি ডাক (শূন্য) দেখেছেন তিনি।

অথচ গত মৌসুমে এই বাটলারের ব্যাটই কথা বলেছিল। চারটি সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছিলেন তিনি। সর্বোচ্চ ৮৬৩ রানও ছিল ইংল্যান্ড তারকার নামে।

কিন্তু এবারই বদলে গেল ছবিটা। তার নামের পাশে লেখা পাঁচটি ডাক। গত শুক্রবার পাঞ্জাবের বিরুদ্ধেও খাতা খুলতে পারেননি বাটলার। যদিও পাঞ্জাব হার মানে রাজস্থানের কাছে। ম্যাচ জেতার পরে রাজস্থান অধিনায়ক সঞ্জু স্যামসন একটি ছবি টুইট করেন।

সেই ছবিতে দেখা যাচ্ছে, সঞ্জুর সঙ্গে বসে রয়েছেন বাটলার ও চাহাল। তাদের সামনে রয়েছে বেশ কয়েকটি জলের বোতল। সঞ্জু লেখেন, ‘কিছুক্ষণের জন্য বসা যাক, আমরা বিরিয়ানি পেতেও পারি।’ কিন্তু রসিকতা করে বাটলার জবাব দেন। তিনি রান পাচ্ছেন না। পাঁচটা ডাক দেখায় দুঃখিত তিনি। সেই কারণে বাটলার নিজেকেই ট্রোল করেছেন, ‘নো বিরিয়ানি..ডাক প্যানকেকস।’ জস বাটলারের ফর্মহীনতা নিয়ে বিস্তর আলোচনা। সোশ্যাল মিডিয়ায় লেখা হয়েছে, ২০১৬ থেকে ২০২২ পর্যন্ত মাত্র একটি ডাক দেখেছেন ইংল্যান্ডের তারকা ব্যাটসম্যান। কিন্তু চলতি মৌসুমে ডাক দেখার সংখ্যা ছাপিয়ে গিয়েছে আগের সংখ্যাকেও।

পরিসংখ্যান বলছে, ২০২১ সালে নিকোলাস পুরান (পাঞ্জাব) ও কেকেআরের মরগান চারটি ডাক দেখেছিলেন। কিন্তু বাটলার এবারের টুর্নামেন্টে পাঁচটা ডাক দেখে সবাইকে ছাপিয়ে গিয়েছেন।

চার সেঞ্চুরির পর পাঁচ শূন্যের বিব্রতকর রেকর্ড বাটলারের। গত শুক্রবার রাতে পাঞ্জাব কিংসের বিপক্ষে তার দল রাজস্থান শেষ ম্যাচটা জিতলেও হতাশ করেছেন বাটলার। ১৮৯ রান তাড়ায় নেমে আবারও কোন রান করার আগেই রাবাদার শিকার হন তিনি।

গত আইপিএলে জস বাটলারের ব্যাট থেকে এসেছিল চার সেঞ্চুরি। এক আসরে যৌথভাবে সর্বোচ্চ সেঞ্চুরির রেকর্ডও গড়ে ফেলেছিলেন। এই মৌসুমে রীতিমতো মুদ্রার উল্টো দিক দেখলেন ইংলিশ ব্যাটার। টানা তিন ম্যাচে আউট হলেন শূন্য রানে, এক মৌসুমে পাঁচবার শূন্য রানে ফিরে গড়লেন চরম বিব্রতকর এক রেকর্ড। গত শুক্রবার রাতে পাঞ্জাব কিংসের বিপক্ষে তার দল রাজস্থান রয়্যালস শেষ ম্যাচটা জিতলেও হতাশ করেছেন বাটলার। ১৮৯ রান তাড়ায় নেমে আবারও কোন রান করার আগেই কাগিসো রাবাদার শিকার হয়েছেন তিনি। হ্যাটট্রিক ডাকের পর পাঁচটি শূন্য নিয়ে ছাড়িয়ে গেছেন নিকোলাস পুরান, এউইন মরগানদের রেকর্ড।

আইপিএলের ইতিহাসে তো বটেই স্বীকৃত ফ্র্যাঞ্চাইজি টুর্নামেন্টের ইতিহাসেই এক আসরে সবচেয়ে বেশি পাঁচটি শূন্য এখন বাটলারের। চারটি করে শূন্য আছে বেশ কজনের। মরগান, পুরান ছাড়াও শিখর ধাওয়ান, মনিশ পান্ডে, মিঠুন মানহাস, হার্শেল গিবসের আছে এই বিব্রতকর পরিসংখ্যান।

গত মৌসুমে ১৭ ইনিংস খেলে ৫৭.৫৩ গড় আর ১৪৯.০৫ স্ট্রাইক রেটে সর্বোচ্চ ৮৬৩ রান করেছিলেন বাটলার। এবার তার ব্যাট অনেকটাই মলিন। ১৪ ইনিংস খেলে ২৮ গড়ে তিনি করেছেন ৩৯২। ১৩৯ স্ট্রাইকরেটও তার মানের সঙ্গে যাচ্ছে না। বাটলারের পড়তি অবস্থায় রাজস্থানও নিশ্চিত করতে পারেননি প্লে-অফ। বেঙ্গালুরু আর মুম্বাই দল হারলেই কেবল সুযোগ মিলতে পারে তাদের। এক মৌসুমে সর্বোচ্চ শূন্য রানে আউট হলেও সব মিলিয়ে রেকর্ডটা বাটলারের নয়। আইপিএলে সবচেয়ে বেশি ১৬টি করে শূন্য আছে রোহিত শর্মা আর দীনেশ কার্তিকের।

রবিবার, ২১ মে ২০২৩ , ০৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০, ৩০ শাওয়াল ১৪৪৪

বাটলারের লজ্জার রেকর্ড

সংবাদ স্পোর্টস ডেস্ক

image

লজ্জার রেকর্ড গড়েছেন রাজস্থানের তারকা ব্যাটসম্যান জস বাটলার। চলতি আইপিএলে পাঁচ-পাঁচটি ডাক (শূন্য) দেখেছেন তিনি।

অথচ গত মৌসুমে এই বাটলারের ব্যাটই কথা বলেছিল। চারটি সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছিলেন তিনি। সর্বোচ্চ ৮৬৩ রানও ছিল ইংল্যান্ড তারকার নামে।

কিন্তু এবারই বদলে গেল ছবিটা। তার নামের পাশে লেখা পাঁচটি ডাক। গত শুক্রবার পাঞ্জাবের বিরুদ্ধেও খাতা খুলতে পারেননি বাটলার। যদিও পাঞ্জাব হার মানে রাজস্থানের কাছে। ম্যাচ জেতার পরে রাজস্থান অধিনায়ক সঞ্জু স্যামসন একটি ছবি টুইট করেন।

সেই ছবিতে দেখা যাচ্ছে, সঞ্জুর সঙ্গে বসে রয়েছেন বাটলার ও চাহাল। তাদের সামনে রয়েছে বেশ কয়েকটি জলের বোতল। সঞ্জু লেখেন, ‘কিছুক্ষণের জন্য বসা যাক, আমরা বিরিয়ানি পেতেও পারি।’ কিন্তু রসিকতা করে বাটলার জবাব দেন। তিনি রান পাচ্ছেন না। পাঁচটা ডাক দেখায় দুঃখিত তিনি। সেই কারণে বাটলার নিজেকেই ট্রোল করেছেন, ‘নো বিরিয়ানি..ডাক প্যানকেকস।’ জস বাটলারের ফর্মহীনতা নিয়ে বিস্তর আলোচনা। সোশ্যাল মিডিয়ায় লেখা হয়েছে, ২০১৬ থেকে ২০২২ পর্যন্ত মাত্র একটি ডাক দেখেছেন ইংল্যান্ডের তারকা ব্যাটসম্যান। কিন্তু চলতি মৌসুমে ডাক দেখার সংখ্যা ছাপিয়ে গিয়েছে আগের সংখ্যাকেও।

পরিসংখ্যান বলছে, ২০২১ সালে নিকোলাস পুরান (পাঞ্জাব) ও কেকেআরের মরগান চারটি ডাক দেখেছিলেন। কিন্তু বাটলার এবারের টুর্নামেন্টে পাঁচটা ডাক দেখে সবাইকে ছাপিয়ে গিয়েছেন।

চার সেঞ্চুরির পর পাঁচ শূন্যের বিব্রতকর রেকর্ড বাটলারের। গত শুক্রবার রাতে পাঞ্জাব কিংসের বিপক্ষে তার দল রাজস্থান শেষ ম্যাচটা জিতলেও হতাশ করেছেন বাটলার। ১৮৯ রান তাড়ায় নেমে আবারও কোন রান করার আগেই রাবাদার শিকার হন তিনি।

গত আইপিএলে জস বাটলারের ব্যাট থেকে এসেছিল চার সেঞ্চুরি। এক আসরে যৌথভাবে সর্বোচ্চ সেঞ্চুরির রেকর্ডও গড়ে ফেলেছিলেন। এই মৌসুমে রীতিমতো মুদ্রার উল্টো দিক দেখলেন ইংলিশ ব্যাটার। টানা তিন ম্যাচে আউট হলেন শূন্য রানে, এক মৌসুমে পাঁচবার শূন্য রানে ফিরে গড়লেন চরম বিব্রতকর এক রেকর্ড। গত শুক্রবার রাতে পাঞ্জাব কিংসের বিপক্ষে তার দল রাজস্থান রয়্যালস শেষ ম্যাচটা জিতলেও হতাশ করেছেন বাটলার। ১৮৯ রান তাড়ায় নেমে আবারও কোন রান করার আগেই কাগিসো রাবাদার শিকার হয়েছেন তিনি। হ্যাটট্রিক ডাকের পর পাঁচটি শূন্য নিয়ে ছাড়িয়ে গেছেন নিকোলাস পুরান, এউইন মরগানদের রেকর্ড।

আইপিএলের ইতিহাসে তো বটেই স্বীকৃত ফ্র্যাঞ্চাইজি টুর্নামেন্টের ইতিহাসেই এক আসরে সবচেয়ে বেশি পাঁচটি শূন্য এখন বাটলারের। চারটি করে শূন্য আছে বেশ কজনের। মরগান, পুরান ছাড়াও শিখর ধাওয়ান, মনিশ পান্ডে, মিঠুন মানহাস, হার্শেল গিবসের আছে এই বিব্রতকর পরিসংখ্যান।

গত মৌসুমে ১৭ ইনিংস খেলে ৫৭.৫৩ গড় আর ১৪৯.০৫ স্ট্রাইক রেটে সর্বোচ্চ ৮৬৩ রান করেছিলেন বাটলার। এবার তার ব্যাট অনেকটাই মলিন। ১৪ ইনিংস খেলে ২৮ গড়ে তিনি করেছেন ৩৯২। ১৩৯ স্ট্রাইকরেটও তার মানের সঙ্গে যাচ্ছে না। বাটলারের পড়তি অবস্থায় রাজস্থানও নিশ্চিত করতে পারেননি প্লে-অফ। বেঙ্গালুরু আর মুম্বাই দল হারলেই কেবল সুযোগ মিলতে পারে তাদের। এক মৌসুমে সর্বোচ্চ শূন্য রানে আউট হলেও সব মিলিয়ে রেকর্ডটা বাটলারের নয়। আইপিএলে সবচেয়ে বেশি ১৬টি করে শূন্য আছে রোহিত শর্মা আর দীনেশ কার্তিকের।