দিল্লিতে আবারও তীব্র বায়ু দূষণ

ভারতের রাজধানী দিল্লিতে আবারও তীব্র বায়ু দূষণ দেখা দিয়েছে। সেখানে দীপাবলির পর বাতাসের গুণগত মান আবার কমতে শুরু করেছে। কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ (সিপিসিবি)-এর পরিসংখ্যান অনুযায়ী সামগ্রিকভাবে দিল্লির বাতাসের গুণগত মান (এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্স বা একিউআই) ৪০০-এর কাছাকাছি রয়েছে। দীপাবলির বেশ কয়েক দিন আগে বাতাসের গুণগত মান বৃদ্ধি পেয়েছিল। কিন্তু দীপাবলির পর আবার দূষণের মাত্রা বৃদ্ধি পেয়েছে দিল্লির অধিকাংশ এলাকায়।

বুধবার সকাল ৬টা পর্যন্ত দিল্লির আরকে পুরম এলাকায় বাতাসের গুণগত মান ৪১৭, আনন্দ বিহার এবং নারেলা এলাকায় একিউআই-এর মাত্রা ৪৩০, ইন্দিরা গান্ধী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর এলাকায় বাতাসের গুণগত মান ৪০৩, পাঞ্জাবি বাগ এলাকায় বাতাসের গুণগত মান ৪২৩।

দিল্লিতে গত বৃহস্পতিবার রাত থেকে শুক্রবার সকাল পর্যন্ত হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টি হয়েছিল। পরিবেশবিদেরা অনুমান করেছিলেন যে বৃষ্টি হলেই ভারতের রাজধানীর বাতাসের গুণগত মান উন্নত হতে পারে। বৃহস্পতিবার থেকে দিল্লিতে বৃষ্টি শুরু হওয়ার পর কিছতা স্বস্তিও ফিরেছিল। দূষণের মাত্রায় বিশেষ হেরফের না হলেও বিষধোঁয়ার চাদর অনেকটা কেটে গিয়েছিল বলে দাবি করেছিলেন অনেকেই।

বৃহস্পতিবার, ১৬ নভেম্বর ২০২৩ , ৩০ কার্তিক ১৪৩০, ৩০ রবিউস সানি ১৪৪৫

দিল্লিতে আবারও তীব্র বায়ু দূষণ

ভারতের রাজধানী দিল্লিতে আবারও তীব্র বায়ু দূষণ দেখা দিয়েছে। সেখানে দীপাবলির পর বাতাসের গুণগত মান আবার কমতে শুরু করেছে। কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ (সিপিসিবি)-এর পরিসংখ্যান অনুযায়ী সামগ্রিকভাবে দিল্লির বাতাসের গুণগত মান (এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্স বা একিউআই) ৪০০-এর কাছাকাছি রয়েছে। দীপাবলির বেশ কয়েক দিন আগে বাতাসের গুণগত মান বৃদ্ধি পেয়েছিল। কিন্তু দীপাবলির পর আবার দূষণের মাত্রা বৃদ্ধি পেয়েছে দিল্লির অধিকাংশ এলাকায়।

বুধবার সকাল ৬টা পর্যন্ত দিল্লির আরকে পুরম এলাকায় বাতাসের গুণগত মান ৪১৭, আনন্দ বিহার এবং নারেলা এলাকায় একিউআই-এর মাত্রা ৪৩০, ইন্দিরা গান্ধী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর এলাকায় বাতাসের গুণগত মান ৪০৩, পাঞ্জাবি বাগ এলাকায় বাতাসের গুণগত মান ৪২৩।

দিল্লিতে গত বৃহস্পতিবার রাত থেকে শুক্রবার সকাল পর্যন্ত হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টি হয়েছিল। পরিবেশবিদেরা অনুমান করেছিলেন যে বৃষ্টি হলেই ভারতের রাজধানীর বাতাসের গুণগত মান উন্নত হতে পারে। বৃহস্পতিবার থেকে দিল্লিতে বৃষ্টি শুরু হওয়ার পর কিছতা স্বস্তিও ফিরেছিল। দূষণের মাত্রায় বিশেষ হেরফের না হলেও বিষধোঁয়ার চাদর অনেকটা কেটে গিয়েছিল বলে দাবি করেছিলেন অনেকেই।