এসএমই খাতের উন্নয়নে কাজ করবে প্রাইম ব্যাংক-গ্রামীণফোন

ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প (এসএমই) বাংলাদেশের জাতীয় অর্থনীতির প্রধান চালিকা শক্তি। শিল্পায়ন, অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ও দারিদ্র দূরীকরণে এ খাতের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। তবে চলমান সংকটের কারণে দেশের অন্যান্য খাতের মতো এসএমই খাতও নানা প্রতিকূলতার সম্মুখীন হচ্ছে। এ অবস্থায় আর্থিক ও কানেক্টিভিটি সেবাদানের মাধ্যমে এসএমই খাতের সম্ভাবনা বাস্তবায়নে প্রাইম ব্যাংক লিমিটেড ও গ্রামীণফোন একটি পার্টনারশিপ করেছে। এ পার্টনারশিপের মাধ্যমে গ্রামীণফোনের ক্ষুদ্র এ মাঝারি (এসএমই) গ্রাহকরা প্রাইম ব্যাংকের মাধ্যমে ওয়ার্কিং ক্যাপিটাল (সিসি, ওডি এবং ডিমান্ড লোন), সম্পদ ক্রয়ে টার্ম লোন, পুঁজি সংস্থান, আন্তর্জাতিক বাণিজ্য- এলসি, এলএটিআর, আইডিবিপি, ব্যাংক গ্যারান্টি, ওয়ার্ক অর্ডার ইত্যাদি সুবিধা পাবেন।

প্রাইম ব্যাংক লিমিটেডের আয়োজনে অনুষ্ঠিত এক ওয়েবিনারে এ পার্টনারশিপ নিয়ে ঘোষণা দেয়া হয়। ওয়েবিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন প্রাইম ব্যাংক লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী রাহেল আহমেদ, গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী ইয়াসির আজমান, প্রাইম ব্যাংক লিমিটেডের হেড অব এসএমই ব্যাংকিং সৈয়দ এম ওমর তৈয়ব এবং গ্রামীণফোনের প্রধান ব্যবসায়িক কর্মকর্তা কাজী মাহবুব হাসান। ওয়েবিনারটি সঞ্চালনা করেন গ্রামীণফোনের হেড অব কমিউনিকেশনস খায়রুল বাশার।

এছাড়া ইলেকট্রনিক ট্রানজেশান, ফ্রি ইন্টারনেট ব্যাংকিং (অ্যাল্টটিচুড), ডিপোজিট ইত্যাদি সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন। গ্রামীণফোনের এসএমই গ্রাহকরা সহজেই বাসা বা অফিস থেকে প্রয়োজনীয় লোন এর জন্য আবেদন করতে পারবেন। প্রাইম ব্যাংকের ডেডিটকেটেড অফিসাররা এ বিষয়ে সর্বোচ্চ সেবা নিশ্চিত করবেন। প্রাইম ব্যাংকের এমএসএমই গ্রাহকরাও গ্রামীণফোনের সংযোগসহ অন্যান ভ্যালু এডেড সার্ভিস নিতে পারবেন।

আইসিটি সল্যুশনের মাধ্যমে এসএমই প্রতিষ্ঠানের ডিজিটালকরণে আর্থিক প্রতিবেদন, আইসিটি সল্যুশন ও প্রোমোশনাল সাপোর্টসহ বিস্তৃত পরিসীমার সেবা উন্নয়নের সুযোগ চিহ্নিত করা হবে। পাশাপাশি, হালনাগাদ আইসিটি (তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি), আইওটি (ইন্টারনেট অব থিংস), পিওএস বিলিং সফটওয়্যার আধুনিকায়নে এসএএএস মার্কেটপ্লেস ব্যবহারের সুযোগ, স্টক, টিআর ইনভেন্ট্রি, সেলস ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম, অ্যাকাউন্টিং ম্যানেজমেন্ট, মানব সম্পদ এবং অ্যাকাউন্টিং সল্যুশন ব্যবহারের মাধ্যমে এসএমই প্রতিষ্ঠানগুলোর ডিজিটালকরণে ও কাজের দক্ষতা বৃদ্ধিতে সহায়তা করা হবে এ পার্টনারশিপের মাধ্যমে।

এ নিয়ে, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল বলেন, ‘আমাদের প্রধানমন্ত্রী এই ভয়াবহ মহামারী মোকাবিলায় প্রতিটি খাত নিয়ে সার্বক্ষণিক নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন। এর ফলে আমাদের মন্ত্রণালয় ৬৪ জেলায় এসএমই খাতের দক্ষতা উন্নয়নে বিভিন্ন প্রকল্প হাতে নিয়েছে। এই মহামারীতে অনেকেই গ্রামে ফিরে গেছেন। যুব ও ক্রিয়া মন্ত্রণালয় গ্রাম পর্যায়ে কর্মসংস্থান তৈরিতে প্রশিক্ষণ, ভার্চুয়াল ট্রিনিং আয়োজন করছে। আমরা এসএমই খাতে আর্থিক ও প্রযুক্তি সেবা দেয়ার লক্ষ্যে গ্রামীণফোন ও প্রাইম ব্যাংকের উদ্যোগকে স্বাগত জানাই। গ্রামীণফোনের শক্তিশালী নেটওয়ার্ক ও প্রাইম ব্যাংকের আর্থিক সুবিধা নিয়ে এই পার্টনারশিপ করোনা ভাইরাসের ক্ষতি পুষিয়ে এসএমই খাতকে ঘুরে দাঁড়াতে সহায়তা করবে। এসএমইদের সহতায় আমাদের মন্ত্রণালয় গ্রামীণফোন ও প্রাইম ব্যাংকের সঙ্গে কাজ করতে আগ্রহী। আমরা বিশ্বাস করি সবাই মিলে এক সঙ্গে কাজ করলে আমরা এই চ্যালেঞ্জ শীঘ্রই মোকাবিলা করতে পারব।

এ নিয়ে গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী ইয়াসির আজমান বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের সম্ভাবনাকে উন্মোচন করতে কানেক্টিভিটি ও তরুণ সমাজের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, এ অংশীদারিত্ব এসএমই খাতের আধুনিকায়ন ও কোভিড-১৯-এর কারণে ক্ষতিগ্রস্ত আর্থ-সামাজিক অবস্থার পুনর্গঠনে সহায়ক ভূমিকা রাখবে। এমএমই খাতের সম্ভাবনা পুরোপুরি কাজে লাগাতে ও ভবিষ্যতে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বাড়াতে এ খাতের প্রতিষ্ঠানগুলোকে আমাদের দক্ষতা দিয়ে সহায়তাদানের এখনই উপযুক্ত সময়। তাই, এসএমই খাতের প্রতিষ্ঠানগুলোকে সহজ সল্যুশন প্রদানে প্রাইম ব্যাংকের সঙ্গে অংশীদারিত্ব করতে পেরে আমরা আনন্দিত।

প্রাইম ব্যাংকের ম্যানেজিং ডিরেক্টর ও সিইও রাহেল আহমেদ বলেন, ‘এমএসএমই বাংলাদেশের অর্থনীতির মূল চালিকা শক্তি যারা জিডিপিতে ২৫ শতাংশ অবদান রাখছে। গ্রামীণফোনের মতো টেলিযোগাযোগ ও প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে ব্যাংকিং খাতের পার্টনারশিপের মাধ্যমে এমএসএমই খাতে দৃঢ়ভাবে একটি টেকসই উন্নয়নের দিকে এগিয়ে যাবে বলে আমরা বিশ্বাস করি। আশার বিষয় হলো ইকোসিস্টেমের অন্যান্য খাতের স্টেকহোল্ডারাও এমএসএমইদের সহজেই লোন সুবিধা দিয়ে এ খাতকে চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সহায়তা করছে। আমরা খুবই আনন্দিত গ্রামীণফোনের সঙ্গে পার্টনারশিপ করতে পেরে এবং আমরা মনে করি এই যৌথ উদ্যোগ এমএসএমই খাতের উন্নয়নে ব্যাপক ভূমিকা রাখবে।’

যেসব ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রাইম ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ও গ্রামীণফোনের সেবা ব্যবহার করছে তারাই এ অংশীদারিত্ব সুবিধার জন্য বিবেচিত হবে। প্রাইম ব্যাংক তাদের নতুন গ্রাহকদের জন্য নতুন অফার-এসএমই-দিচ্ছে। এর মধ্যে রয়েছে শুরুতে টাকা জমা ছাড়া সহজে হিসাব খোলা, বিনামূল্যে ইন্টারনেট ব্যাংকিং, লোন সুবিধা। এছাড়া, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলোকে আরও দক্ষ ও উৎপাদনক্ষম করতে গ্রামীণফোন বিভিন্ন ধরনের সল্যুশন প্রদান করছে। এর মধ্যে রয়েছে সেলস ফোর্স ট্র্যাকিং, ভেহিকেল ট্র্যাকিং সার্ভিস, এম-সেনট্রেক্স কল সেন্টার সল্যুশন, স্মার্ট অ্যাটেনডেন্স ও ছাড় সুবিধায় অডিও-ভিডিও কনফারেন্সিং সুবিধা। এসএমই প্রতিষ্ঠানগুলোর বিক্রিকে ত্বরান্বিত করতে গ্রামীণফোন বাল্ক এসএমএস সল্যুশনের মতো প্রমোশনাল ও কমিউনিকেশন পণ্য ও সেবাদান করছে।

বৃহস্পতিবার, ১০ সেপ্টেম্বর ২০২০ , ২০ মহররম ১৪৪২, ২২ ভাদ্র ১৪২৭

এসএমই খাতের উন্নয়নে কাজ করবে প্রাইম ব্যাংক-গ্রামীণফোন

image

ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প (এসএমই) বাংলাদেশের জাতীয় অর্থনীতির প্রধান চালিকা শক্তি। শিল্পায়ন, অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ও দারিদ্র দূরীকরণে এ খাতের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। তবে চলমান সংকটের কারণে দেশের অন্যান্য খাতের মতো এসএমই খাতও নানা প্রতিকূলতার সম্মুখীন হচ্ছে। এ অবস্থায় আর্থিক ও কানেক্টিভিটি সেবাদানের মাধ্যমে এসএমই খাতের সম্ভাবনা বাস্তবায়নে প্রাইম ব্যাংক লিমিটেড ও গ্রামীণফোন একটি পার্টনারশিপ করেছে। এ পার্টনারশিপের মাধ্যমে গ্রামীণফোনের ক্ষুদ্র এ মাঝারি (এসএমই) গ্রাহকরা প্রাইম ব্যাংকের মাধ্যমে ওয়ার্কিং ক্যাপিটাল (সিসি, ওডি এবং ডিমান্ড লোন), সম্পদ ক্রয়ে টার্ম লোন, পুঁজি সংস্থান, আন্তর্জাতিক বাণিজ্য- এলসি, এলএটিআর, আইডিবিপি, ব্যাংক গ্যারান্টি, ওয়ার্ক অর্ডার ইত্যাদি সুবিধা পাবেন।

প্রাইম ব্যাংক লিমিটেডের আয়োজনে অনুষ্ঠিত এক ওয়েবিনারে এ পার্টনারশিপ নিয়ে ঘোষণা দেয়া হয়। ওয়েবিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন প্রাইম ব্যাংক লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী রাহেল আহমেদ, গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী ইয়াসির আজমান, প্রাইম ব্যাংক লিমিটেডের হেড অব এসএমই ব্যাংকিং সৈয়দ এম ওমর তৈয়ব এবং গ্রামীণফোনের প্রধান ব্যবসায়িক কর্মকর্তা কাজী মাহবুব হাসান। ওয়েবিনারটি সঞ্চালনা করেন গ্রামীণফোনের হেড অব কমিউনিকেশনস খায়রুল বাশার।

এছাড়া ইলেকট্রনিক ট্রানজেশান, ফ্রি ইন্টারনেট ব্যাংকিং (অ্যাল্টটিচুড), ডিপোজিট ইত্যাদি সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন। গ্রামীণফোনের এসএমই গ্রাহকরা সহজেই বাসা বা অফিস থেকে প্রয়োজনীয় লোন এর জন্য আবেদন করতে পারবেন। প্রাইম ব্যাংকের ডেডিটকেটেড অফিসাররা এ বিষয়ে সর্বোচ্চ সেবা নিশ্চিত করবেন। প্রাইম ব্যাংকের এমএসএমই গ্রাহকরাও গ্রামীণফোনের সংযোগসহ অন্যান ভ্যালু এডেড সার্ভিস নিতে পারবেন।

আইসিটি সল্যুশনের মাধ্যমে এসএমই প্রতিষ্ঠানের ডিজিটালকরণে আর্থিক প্রতিবেদন, আইসিটি সল্যুশন ও প্রোমোশনাল সাপোর্টসহ বিস্তৃত পরিসীমার সেবা উন্নয়নের সুযোগ চিহ্নিত করা হবে। পাশাপাশি, হালনাগাদ আইসিটি (তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি), আইওটি (ইন্টারনেট অব থিংস), পিওএস বিলিং সফটওয়্যার আধুনিকায়নে এসএএএস মার্কেটপ্লেস ব্যবহারের সুযোগ, স্টক, টিআর ইনভেন্ট্রি, সেলস ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম, অ্যাকাউন্টিং ম্যানেজমেন্ট, মানব সম্পদ এবং অ্যাকাউন্টিং সল্যুশন ব্যবহারের মাধ্যমে এসএমই প্রতিষ্ঠানগুলোর ডিজিটালকরণে ও কাজের দক্ষতা বৃদ্ধিতে সহায়তা করা হবে এ পার্টনারশিপের মাধ্যমে।

এ নিয়ে, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল বলেন, ‘আমাদের প্রধানমন্ত্রী এই ভয়াবহ মহামারী মোকাবিলায় প্রতিটি খাত নিয়ে সার্বক্ষণিক নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন। এর ফলে আমাদের মন্ত্রণালয় ৬৪ জেলায় এসএমই খাতের দক্ষতা উন্নয়নে বিভিন্ন প্রকল্প হাতে নিয়েছে। এই মহামারীতে অনেকেই গ্রামে ফিরে গেছেন। যুব ও ক্রিয়া মন্ত্রণালয় গ্রাম পর্যায়ে কর্মসংস্থান তৈরিতে প্রশিক্ষণ, ভার্চুয়াল ট্রিনিং আয়োজন করছে। আমরা এসএমই খাতে আর্থিক ও প্রযুক্তি সেবা দেয়ার লক্ষ্যে গ্রামীণফোন ও প্রাইম ব্যাংকের উদ্যোগকে স্বাগত জানাই। গ্রামীণফোনের শক্তিশালী নেটওয়ার্ক ও প্রাইম ব্যাংকের আর্থিক সুবিধা নিয়ে এই পার্টনারশিপ করোনা ভাইরাসের ক্ষতি পুষিয়ে এসএমই খাতকে ঘুরে দাঁড়াতে সহায়তা করবে। এসএমইদের সহতায় আমাদের মন্ত্রণালয় গ্রামীণফোন ও প্রাইম ব্যাংকের সঙ্গে কাজ করতে আগ্রহী। আমরা বিশ্বাস করি সবাই মিলে এক সঙ্গে কাজ করলে আমরা এই চ্যালেঞ্জ শীঘ্রই মোকাবিলা করতে পারব।

এ নিয়ে গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী ইয়াসির আজমান বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের সম্ভাবনাকে উন্মোচন করতে কানেক্টিভিটি ও তরুণ সমাজের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, এ অংশীদারিত্ব এসএমই খাতের আধুনিকায়ন ও কোভিড-১৯-এর কারণে ক্ষতিগ্রস্ত আর্থ-সামাজিক অবস্থার পুনর্গঠনে সহায়ক ভূমিকা রাখবে। এমএমই খাতের সম্ভাবনা পুরোপুরি কাজে লাগাতে ও ভবিষ্যতে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বাড়াতে এ খাতের প্রতিষ্ঠানগুলোকে আমাদের দক্ষতা দিয়ে সহায়তাদানের এখনই উপযুক্ত সময়। তাই, এসএমই খাতের প্রতিষ্ঠানগুলোকে সহজ সল্যুশন প্রদানে প্রাইম ব্যাংকের সঙ্গে অংশীদারিত্ব করতে পেরে আমরা আনন্দিত।

প্রাইম ব্যাংকের ম্যানেজিং ডিরেক্টর ও সিইও রাহেল আহমেদ বলেন, ‘এমএসএমই বাংলাদেশের অর্থনীতির মূল চালিকা শক্তি যারা জিডিপিতে ২৫ শতাংশ অবদান রাখছে। গ্রামীণফোনের মতো টেলিযোগাযোগ ও প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে ব্যাংকিং খাতের পার্টনারশিপের মাধ্যমে এমএসএমই খাতে দৃঢ়ভাবে একটি টেকসই উন্নয়নের দিকে এগিয়ে যাবে বলে আমরা বিশ্বাস করি। আশার বিষয় হলো ইকোসিস্টেমের অন্যান্য খাতের স্টেকহোল্ডারাও এমএসএমইদের সহজেই লোন সুবিধা দিয়ে এ খাতকে চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সহায়তা করছে। আমরা খুবই আনন্দিত গ্রামীণফোনের সঙ্গে পার্টনারশিপ করতে পেরে এবং আমরা মনে করি এই যৌথ উদ্যোগ এমএসএমই খাতের উন্নয়নে ব্যাপক ভূমিকা রাখবে।’

যেসব ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রাইম ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ও গ্রামীণফোনের সেবা ব্যবহার করছে তারাই এ অংশীদারিত্ব সুবিধার জন্য বিবেচিত হবে। প্রাইম ব্যাংক তাদের নতুন গ্রাহকদের জন্য নতুন অফার-এসএমই-দিচ্ছে। এর মধ্যে রয়েছে শুরুতে টাকা জমা ছাড়া সহজে হিসাব খোলা, বিনামূল্যে ইন্টারনেট ব্যাংকিং, লোন সুবিধা। এছাড়া, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলোকে আরও দক্ষ ও উৎপাদনক্ষম করতে গ্রামীণফোন বিভিন্ন ধরনের সল্যুশন প্রদান করছে। এর মধ্যে রয়েছে সেলস ফোর্স ট্র্যাকিং, ভেহিকেল ট্র্যাকিং সার্ভিস, এম-সেনট্রেক্স কল সেন্টার সল্যুশন, স্মার্ট অ্যাটেনডেন্স ও ছাড় সুবিধায় অডিও-ভিডিও কনফারেন্সিং সুবিধা। এসএমই প্রতিষ্ঠানগুলোর বিক্রিকে ত্বরান্বিত করতে গ্রামীণফোন বাল্ক এসএমএস সল্যুশনের মতো প্রমোশনাল ও কমিউনিকেশন পণ্য ও সেবাদান করছে।