রাজশাহীতে ৩০ স্থানে বসছে করোনা প্রতিরোধক বুথ

করোনা মহামারী থেকে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের জনগণের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত রাখতে মহানগরীর বিভিন্ন গুরুত্বপর্ণ ভবন/স্থাপন এবং মোড়ে বসানো হচ্ছে করোনা প্রতিরোধক বুথ।

শুক্রবার রাত ৯টায় নগর ভবনে একটি করোনা প্রতিরোধক বুথ স্থাপন করা হয়। নগর ভবনে এই করোনা প্রতিরোধক বুথের উদ্বোধন করেন রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটন। এরইমধ্য দিয়ে ৩০টি স্থানে এই বুথ স্থাপন কাজের শুরু হলো। রাজশাহী মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রকি কুমার ঘোষের সৌজন্যে এই ৩০টি বুথ স্থাপন করা হচ্ছে।

উদ্বোধনকালে উপস্থিত ছিলেন মেয়রের একান্ত সচিব মো. আলমগীর কবির, মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রকি কুমার ঘোষ প্রমুখ।

এ ব্যাপারে রকি কুমার ঘোষ বলেন, রাজশাহী মহানগরীর বিভিন্ন গুরুত্বপর্ণ ভবন/স্থাপন এবং মোড়ে মোট ৩০টি স্থানে বসানো হচ্ছে করোনা প্রতিরোধক বুথ। সকাল ৯টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত বুথ চালু থাকবে।

প্রতিটি বুথে থাকছে মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার। যা যে কেউ ব্যবহার করতে পারবেন। এছাড়া ব্যবহৃত মাস্ক ফেলারও জায়গা রাখা হয়েছে। বিনামূল্যে মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার প্রদানের কারণে মানুষ ব্যবহারে উৎসাহিত হবেন বলে আশা করি।

রবিবার, ২৭ জুন ২০২১ , ১৩ আষাঢ় ১৪২৮ ১৫ জিলক্বদ ১৪৪২

রাজশাহীতে ৩০ স্থানে বসছে করোনা প্রতিরোধক বুথ

করোনা মহামারী থেকে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের জনগণের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত রাখতে মহানগরীর বিভিন্ন গুরুত্বপর্ণ ভবন/স্থাপন এবং মোড়ে বসানো হচ্ছে করোনা প্রতিরোধক বুথ।

শুক্রবার রাত ৯টায় নগর ভবনে একটি করোনা প্রতিরোধক বুথ স্থাপন করা হয়। নগর ভবনে এই করোনা প্রতিরোধক বুথের উদ্বোধন করেন রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটন। এরইমধ্য দিয়ে ৩০টি স্থানে এই বুথ স্থাপন কাজের শুরু হলো। রাজশাহী মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রকি কুমার ঘোষের সৌজন্যে এই ৩০টি বুথ স্থাপন করা হচ্ছে।

উদ্বোধনকালে উপস্থিত ছিলেন মেয়রের একান্ত সচিব মো. আলমগীর কবির, মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রকি কুমার ঘোষ প্রমুখ।

এ ব্যাপারে রকি কুমার ঘোষ বলেন, রাজশাহী মহানগরীর বিভিন্ন গুরুত্বপর্ণ ভবন/স্থাপন এবং মোড়ে মোট ৩০টি স্থানে বসানো হচ্ছে করোনা প্রতিরোধক বুথ। সকাল ৯টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত বুথ চালু থাকবে।

প্রতিটি বুথে থাকছে মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার। যা যে কেউ ব্যবহার করতে পারবেন। এছাড়া ব্যবহৃত মাস্ক ফেলারও জায়গা রাখা হয়েছে। বিনামূল্যে মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার প্রদানের কারণে মানুষ ব্যবহারে উৎসাহিত হবেন বলে আশা করি।