সিলেটের পাথুরে রাজ্যের ত্রাস আসামি আলীম উদ্দিন কারাগারে

পাথুরে রাজ্যের ত্রাস, হত্যা, ধর্ষণ, মাদকসহ সিলেটে ১১টি মামলার আলোচিত আসামি আলীম উদ্দিনকে পর্নোগ্রাফি মামলায় কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দিয়েছে আদালত। গতকাল সিলেট জ্যুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তৃতীয় আদালতের বিচারক দিলরুবা ইয়াসমিন গোয়াইনঘাট উপজেলার জাফলং নয়াবস্তি গ্রামের ইনছান আলীর ছেলে আলীম উদ্দিন ও তার ছোটভাই রেজওয়ানের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে তাদের কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাদীপক্ষের আইনজীবী সিলেট জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট এটিএম ফয়েজ। তিনি বলেন, আসামি দুজন আদালতে হাজির হয়ে জামিন আবেদন করলে আমরা আপত্তি জানাই। কারণ আসামিরা বাদীনির আপত্তিকর ছবি ধারণ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দিয়েছিল। শুধু তাই নয়; তারা বাদীনিকে এখনও অব্যাহত হুমকি দিচ্ছিলেন।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, জাফলংয়ের আলীম উদ্দিন ও তার শ্যালক তাহির মিয়া, ছোটভাই রেজওয়ান এক কলেজছাত্রীর দায়ের করা ধর্ষণ ও পর্নোগ্রাফি মামলার আসামি। তাহির মিয়া প্রেমের ফাঁদে ফেলে ওই কলেজছাত্রীকে ধর্ষণ করে মোবাইলফোনে ছবি ধারণ করে ভিডিও তৈরি করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেন। এ ঘটনায় ওই নারী গোয়াইনঘাট থানায় পর্নোগ্রাফি আইনে মামলা দায়ের করেন। যার নম্বার-৩২৪/২০২০।

বাদীনির মা গতকাল জানান, আসামিরা মামলা প্রত্যাহার করতে আমাকে ও আমার মেয়েকে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে আসছিল। এ ঘটনায় রোববার (১০ অক্টোবর) সিলেট জুডিশিয়াল মেজিস্ট্রেট তৃতীয় আদালতে নিরাপত্তা চেয়ে তিনি বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন।

আলীম উদ্দিনের বিরুদ্ধে গোয়াইনঘাট থানার ২০১৮ সালের ১১ জুলাই ১৭/১৬১, ২০১৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর ৮/১১২, চলতি বছরের ২০ জানুয়ারি ২৫/২৫, ২০২০ সালের ২৮ নভেম্বর ২২/৩২৪, একই বছরে ১৫ নভেম্বর ২৯/৩১১, ৮ মে ৬/১৩০, ২০১৯ সালের ১৮ অক্টোবর ২৩/৩১৭, ২০১৬ সালের ১৮ জুলাই ১৭/১৬১ এবং ২০১৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর ৮/১১২ নম্বর মামলা রয়েছে এবং এসব মামলার অধিকাংশই আদালতে বিচারাধীন।

সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার জাফলং নয়াবস্তির ইনসান আলীর পুত্র আলীম উদ্দিন ও তার পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে প্রতিকার চেয়ে সিলেট রেঞ্জ ডিআইজি, সিলেটের পুলিশ সুপার ও র‌্যাব-৯ এর কাছে লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন একই এলাকার মৃত মকবুল আলীর ছেলে ভুক্তভোগী মো. আজগর।

শনিবার দাখিল করা অভিযোগে তিনি উল্লেখ করেন, হত্যা, ধর্ষণ, মাদকসহ একাধিক মামলার আসামি আলীম উদ্দিন একাধিকবার প্রশাসনের হাতে গ্রেপ্তার হয়েছেন। তার বিরুদ্ধে ১০টি মামলা বিচারাধীন রয়েছে। শুধু আলীম উদ্দিনই নয়, তার পুরো পরিবারই নানা ঘটনার জন্ম দিয়ে একাধিক মামলার আসামি হিসেবে এলাকা ও প্রশাসনের কাছে পরিচিত।

আলীম উদ্দিনকে আইনের আওতায় আনার কথা উল্লেখ করে আজগর তার অভিযোগে উল্লেখ করেন, জাফলংয়ে বালু, পাথর কোয়ারি এলাকার ত্রাস, সন্ত্রাসী আলীম উদ্দিন ও তার পরিবারের সদস্যরা একাধিক হত্যা, ধর্ষণ, চাঁদাবাজি, মাদক পাচার মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি। পারিবারিকভাবে পর্যটন এলাকা ও পাথর কোয়ারি এলাকায় আধিপত্য বিস্তারের লক্ষ্যে আলীম উদ্দিনের সন্ত্রাসী বাহিনীও রয়েছে।

মঙ্গলবার, ১২ অক্টোবর ২০২১ , ২৭ আশ্বিন ১৪২৮ ০৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

সিলেটের পাথুরে রাজ্যের ত্রাস আসামি আলীম উদ্দিন কারাগারে

তার বিরুদ্ধে হত্যা, ধর্ষণ মাদকসহ ১১টি মামলা রয়েছে

পাথুরে রাজ্যের ত্রাস, হত্যা, ধর্ষণ, মাদকসহ সিলেটে ১১টি মামলার আলোচিত আসামি আলীম উদ্দিনকে পর্নোগ্রাফি মামলায় কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দিয়েছে আদালত। গতকাল সিলেট জ্যুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তৃতীয় আদালতের বিচারক দিলরুবা ইয়াসমিন গোয়াইনঘাট উপজেলার জাফলং নয়াবস্তি গ্রামের ইনছান আলীর ছেলে আলীম উদ্দিন ও তার ছোটভাই রেজওয়ানের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে তাদের কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাদীপক্ষের আইনজীবী সিলেট জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট এটিএম ফয়েজ। তিনি বলেন, আসামি দুজন আদালতে হাজির হয়ে জামিন আবেদন করলে আমরা আপত্তি জানাই। কারণ আসামিরা বাদীনির আপত্তিকর ছবি ধারণ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দিয়েছিল। শুধু তাই নয়; তারা বাদীনিকে এখনও অব্যাহত হুমকি দিচ্ছিলেন।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, জাফলংয়ের আলীম উদ্দিন ও তার শ্যালক তাহির মিয়া, ছোটভাই রেজওয়ান এক কলেজছাত্রীর দায়ের করা ধর্ষণ ও পর্নোগ্রাফি মামলার আসামি। তাহির মিয়া প্রেমের ফাঁদে ফেলে ওই কলেজছাত্রীকে ধর্ষণ করে মোবাইলফোনে ছবি ধারণ করে ভিডিও তৈরি করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেন। এ ঘটনায় ওই নারী গোয়াইনঘাট থানায় পর্নোগ্রাফি আইনে মামলা দায়ের করেন। যার নম্বার-৩২৪/২০২০।

বাদীনির মা গতকাল জানান, আসামিরা মামলা প্রত্যাহার করতে আমাকে ও আমার মেয়েকে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে আসছিল। এ ঘটনায় রোববার (১০ অক্টোবর) সিলেট জুডিশিয়াল মেজিস্ট্রেট তৃতীয় আদালতে নিরাপত্তা চেয়ে তিনি বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন।

আলীম উদ্দিনের বিরুদ্ধে গোয়াইনঘাট থানার ২০১৮ সালের ১১ জুলাই ১৭/১৬১, ২০১৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর ৮/১১২, চলতি বছরের ২০ জানুয়ারি ২৫/২৫, ২০২০ সালের ২৮ নভেম্বর ২২/৩২৪, একই বছরে ১৫ নভেম্বর ২৯/৩১১, ৮ মে ৬/১৩০, ২০১৯ সালের ১৮ অক্টোবর ২৩/৩১৭, ২০১৬ সালের ১৮ জুলাই ১৭/১৬১ এবং ২০১৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর ৮/১১২ নম্বর মামলা রয়েছে এবং এসব মামলার অধিকাংশই আদালতে বিচারাধীন।

সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার জাফলং নয়াবস্তির ইনসান আলীর পুত্র আলীম উদ্দিন ও তার পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে প্রতিকার চেয়ে সিলেট রেঞ্জ ডিআইজি, সিলেটের পুলিশ সুপার ও র‌্যাব-৯ এর কাছে লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন একই এলাকার মৃত মকবুল আলীর ছেলে ভুক্তভোগী মো. আজগর।

শনিবার দাখিল করা অভিযোগে তিনি উল্লেখ করেন, হত্যা, ধর্ষণ, মাদকসহ একাধিক মামলার আসামি আলীম উদ্দিন একাধিকবার প্রশাসনের হাতে গ্রেপ্তার হয়েছেন। তার বিরুদ্ধে ১০টি মামলা বিচারাধীন রয়েছে। শুধু আলীম উদ্দিনই নয়, তার পুরো পরিবারই নানা ঘটনার জন্ম দিয়ে একাধিক মামলার আসামি হিসেবে এলাকা ও প্রশাসনের কাছে পরিচিত।

আলীম উদ্দিনকে আইনের আওতায় আনার কথা উল্লেখ করে আজগর তার অভিযোগে উল্লেখ করেন, জাফলংয়ে বালু, পাথর কোয়ারি এলাকার ত্রাস, সন্ত্রাসী আলীম উদ্দিন ও তার পরিবারের সদস্যরা একাধিক হত্যা, ধর্ষণ, চাঁদাবাজি, মাদক পাচার মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি। পারিবারিকভাবে পর্যটন এলাকা ও পাথর কোয়ারি এলাকায় আধিপত্য বিস্তারের লক্ষ্যে আলীম উদ্দিনের সন্ত্রাসী বাহিনীও রয়েছে।