ব্যাটিংয়ে সেই ছবিই ফুটে উঠলো!

টি-২০ বিশ্বকাপ ব্যর্থতার পর প্রথম ম্যাচ। ‘বদলের ডাক’ শুনিয়ে নতুন শুরুর প্রত্যাশায় ঘরের মাঠে প্রতিপক্ষ পাকিস্তান। কিন্তু ব্যাটিংয়ে সেই বাংলাদেশের ছবিটাই তো ফুটে উঠলো! কুড়ি ওভারের বিশ্ব আসরের পর টপ অর্ডারের ব্যর্থতার গল্পই নতুন করে সামনে এলো। তারপরও মিডল ও লোয়ার অর্ডারের পারফরম্যান্সে লড়াই করার মতো পুঁজি পায় মাহমুদউল্লাহরা।

শুক্রবার শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের ম্যাচে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নামা স্বাগতিকরা নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেটে ১২৭ রান করেছে। টি-২০ ক্রিকেটের ক্ষেত্রে আহামরি সংগ্রহ না হলেও চিরচেনা উইকেটে এই স্কোরই আশা জাগানিয়া ছিল। অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সবশেষ দুই সিরিজই তার প্রমাণ! তবে এবারের প্রতিপক্ষ ছিল পাকিস্তান। স্পিন ও সেøা উইকেটে যাদের খেলা নিয়মিত। সেদিক থেকে চিন্তা করলে বোলারদের জন্য পর্যাপ্ত রানের ব্যবস্থা করতে পারলেন না বাংলাদেশের ব্যাটাররা। অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড সিরিজে ব্যাটারদের ব্যর্থতা ঢাকা পড়েছিল বোলারদের দুর্দান্ত পারফরম্যান্সে। কিন্তু টি-২০ বিশ্বকাপে ভরাডুবির পর পাকিস্তানের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচেও ব্যর্থ টপ অর্ডার।

লিটন দাস, সৌম্য সরকার, মুশফিকুর রহিমকে বাদ দিয়ে যাদের নেয়া হয়েছে, তাদের কেউই কিছু করতে পারেননি। অভিষিক্ত সাইফ হাসান ১, নাঈম শেখ ১ ও নাজমুল হোসেন শান্ত ৭- এই হলো টপ অর্ডারের তিন ব্যাটারের পারফরম্যান্স। হতাশ করেছেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহও (৬)। তারপরও রান ১২৭ পর্যন্ত গিয়েছে আফিফ হোসেন (৩৬), শেখ মেহেদী হাসান (৩০*) ও নুরুল হাসান সোহানের (২৮) কার্যকর তিন ইনিংসে।

শনিবার, ২০ নভেম্বর ২০২১ , ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ ১৪ রবিউস সানি ১৪৪৩

ব্যাটিংয়ে সেই ছবিই ফুটে উঠলো!

টি-২০ বিশ্বকাপ ব্যর্থতার পর প্রথম ম্যাচ। ‘বদলের ডাক’ শুনিয়ে নতুন শুরুর প্রত্যাশায় ঘরের মাঠে প্রতিপক্ষ পাকিস্তান। কিন্তু ব্যাটিংয়ে সেই বাংলাদেশের ছবিটাই তো ফুটে উঠলো! কুড়ি ওভারের বিশ্ব আসরের পর টপ অর্ডারের ব্যর্থতার গল্পই নতুন করে সামনে এলো। তারপরও মিডল ও লোয়ার অর্ডারের পারফরম্যান্সে লড়াই করার মতো পুঁজি পায় মাহমুদউল্লাহরা।

শুক্রবার শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের ম্যাচে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নামা স্বাগতিকরা নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেটে ১২৭ রান করেছে। টি-২০ ক্রিকেটের ক্ষেত্রে আহামরি সংগ্রহ না হলেও চিরচেনা উইকেটে এই স্কোরই আশা জাগানিয়া ছিল। অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সবশেষ দুই সিরিজই তার প্রমাণ! তবে এবারের প্রতিপক্ষ ছিল পাকিস্তান। স্পিন ও সেøা উইকেটে যাদের খেলা নিয়মিত। সেদিক থেকে চিন্তা করলে বোলারদের জন্য পর্যাপ্ত রানের ব্যবস্থা করতে পারলেন না বাংলাদেশের ব্যাটাররা। অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড সিরিজে ব্যাটারদের ব্যর্থতা ঢাকা পড়েছিল বোলারদের দুর্দান্ত পারফরম্যান্সে। কিন্তু টি-২০ বিশ্বকাপে ভরাডুবির পর পাকিস্তানের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচেও ব্যর্থ টপ অর্ডার।

লিটন দাস, সৌম্য সরকার, মুশফিকুর রহিমকে বাদ দিয়ে যাদের নেয়া হয়েছে, তাদের কেউই কিছু করতে পারেননি। অভিষিক্ত সাইফ হাসান ১, নাঈম শেখ ১ ও নাজমুল হোসেন শান্ত ৭- এই হলো টপ অর্ডারের তিন ব্যাটারের পারফরম্যান্স। হতাশ করেছেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহও (৬)। তারপরও রান ১২৭ পর্যন্ত গিয়েছে আফিফ হোসেন (৩৬), শেখ মেহেদী হাসান (৩০*) ও নুরুল হাসান সোহানের (২৮) কার্যকর তিন ইনিংসে।