মাউশিতে কর্মচারী নিয়োগে অনিয়ম অভিযান চলছে দুদকের

মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তরে (মাউশি) চার হাজার কর্মচারী নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগে অভিযান চালিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন দুদক। দুদকের সহকারী পরিচালক জেসমিন আক্তার এবং রনজিৎ কুমার কর্মকারের সমন্বয়ে গঠিত এনফোর্সমেন্ট টিম গতকাল এ অভিযান চালিয়েছে। দ্বিতীয় শ্রেণীর কর্মচারীদের তৃতীয় শ্রেণীতে নিয়োগ দেয়ার তথ্য-প্রমাণের নথি চেয়েছে দুদক। এ বিষয়ে এনফোর্সমেন্ট টিম কমিশনে প্রতিবেদন দাখিল করবে বলে জানানো হয়েছে।

দুদকের সহকারী পরিচালক (জনসংযোগ) মোহাম্মদ সফিউল্লাহ জানান, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর মাউশি কর্তৃক চার হাজার কর্মচারী নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে দুর্নীতি দমন কমিশন, প্রধান কার্যালয়ের একটি টিম গতকাল মাউশি কার্যালয়ে অভিযান পরিচালনা করেছে। দুদক টিম অভিযোগ যাচাই ও সততা উদ্ঘাটনে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও নিয়োগ কমিটির আহ্বায়ক প্রফেসর শাহেদুল খবির চৌধুরীর সঙ্গে কথা বলেন এবং সংশ্লিষ্ট অভিযোগ সম্পর্কে তার বক্তব্য রেকর্ড করেন।

দুদক জানিয়েছে, নিয়োগবিধি ১৯৯১ অনুযায়ী তাদের নিয়োগের অনুমোদন নিয়ে প্রথমে লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষার মাধ্যমে নিয়োগের জন্য পদক্ষেপ নিলেও পরবর্তীতে ৭০ নম্বরের এমসিকিউ পদ্ধতিতে পরীক্ষা নেয়া হয়। ‘প্রদর্শক’ শ্রেণীর ক্যাটাগরির দশম গ্রেডের পদগুলোকে তৃতীয় শ্রেণী দেখিয়ে নিজেরা (মাউশি) নিয়োগ দেয়, কিন্তু পদোন্নতির বেলায় পিএসসির মাধ্যমে ২য় শ্রেণী বা দশম গ্রেড দেখিয়ে ক্যাডার সার্ভিসের সঙ্গে আত্মীকরণ করা হয়। এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে অধ্যাপক শাহেদুল খবির চৌধুরী বলেন, আমাদের কাজ নিয়োগ দেই আর পিএসসির দায়িত্ব প্রমোশন দেয়া। সেখানে আমাদের কিছু করার নেই।

দুদক আরও জানিয়েছে, এ সংক্রান্ত নথি পর্যালোচনায় দেখা যায়, নথির নোটশিটে দশম গ্রেডের পদগুলোকে দ্বিতীয় শ্রেণী উল্লেখ করা হলেও মন্ত্রণালয়ের নিয়োগ অনুমোদনের ক্ষেত্রে তা তৃতীয় শ্রেণী দেখিয়ে অনুমোদন নেয়া হয়। এ বিষয়ে একটি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রদান করা হয়। নিয়োগবিধি এবং কমিটির কার্যবিবরণীসহ আরও অভিযোগ সংশ্লিষ্ট কাগজপত্র সরবরাহের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বরাবর অনুরোধ করা হয়।

এনফোর্সমেন্ট টিমের সদস্যরা জানিয়েছে, অভিযোগ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ থেকে নথিপত্র দেয়া হলে সেগুলো যাচাই-বাচাই করবে দুদক। এ বিষয়ে বিস্তারিত অনুসন্ধানের সুপারিশ করে কমিশন বরাবর একটি প্রতিবেদন দাখিল করা হবে।

এদিকে শেরপুর জেলা কারাগারে বন্দীদের কাছ থেকে ঘুষ দারি অভিযোগ পেয়ে অভিযান চালিয়েছে দুদকের আরেকটি টিম। টাঙ্গাইল জেলা সমন্বিত কার্যালয়ের উপসহকারী পরিচালক লতিফ হাওলাদের নেতৃত্বে এ অভিযান চালানো হয়।

আরও খবর
গবেষণায় সময় দিতে চিকিৎসকদের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান
ইসি গঠন নিয়ে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে আ’লীগের সংলাপ ১৭ জানুয়ারি
এক নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জের রাজনীতিতে ওলট-পালট
জনগণ কখনো গডফাদারকে গ্রহণ করেনি : আইভী
তীব্র শীতের কারণে শ্বাসতন্ত্রে সংক্রমণ লক্ষাধিকের, মৃত্যু ১৬
সরকার এখনই লকডাউন দেয়ার কথা ভাবছে না পররাষ্ট্রমন্ত্রী
ধলেশ্বরীতে ট্রলার ডুবি, চার দিন পর ৬ লাশ উদ্ধার
পিপিপি ভিত্তিতে নির্মাণ হবে চার লেনের মহাসড়ক
গারো কিশোরী ধর্ষণ মামলায় ৫ আসামি রিমান্ডে
জামালপুরে মা-মেয়েকে খুন করা হয় ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে
উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ফের আগুন
প্রতিবন্ধী আরফাতুলের স্বপ্ন পুড়ে ছাই করে দিল সন্ত্রাসীরা
৮ জানুয়ারি, ১৯৭২ : লন্ডনে বঙ্গবন্ধু

সোমবার, ১০ জানুয়ারী ২০২২ , ২৬ পৌষ ১৪২৮ ৬ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

মাউশিতে কর্মচারী নিয়োগে অনিয়ম অভিযান চলছে দুদকের

মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তরে (মাউশি) চার হাজার কর্মচারী নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগে অভিযান চালিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন দুদক। দুদকের সহকারী পরিচালক জেসমিন আক্তার এবং রনজিৎ কুমার কর্মকারের সমন্বয়ে গঠিত এনফোর্সমেন্ট টিম গতকাল এ অভিযান চালিয়েছে। দ্বিতীয় শ্রেণীর কর্মচারীদের তৃতীয় শ্রেণীতে নিয়োগ দেয়ার তথ্য-প্রমাণের নথি চেয়েছে দুদক। এ বিষয়ে এনফোর্সমেন্ট টিম কমিশনে প্রতিবেদন দাখিল করবে বলে জানানো হয়েছে।

দুদকের সহকারী পরিচালক (জনসংযোগ) মোহাম্মদ সফিউল্লাহ জানান, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর মাউশি কর্তৃক চার হাজার কর্মচারী নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে দুর্নীতি দমন কমিশন, প্রধান কার্যালয়ের একটি টিম গতকাল মাউশি কার্যালয়ে অভিযান পরিচালনা করেছে। দুদক টিম অভিযোগ যাচাই ও সততা উদ্ঘাটনে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও নিয়োগ কমিটির আহ্বায়ক প্রফেসর শাহেদুল খবির চৌধুরীর সঙ্গে কথা বলেন এবং সংশ্লিষ্ট অভিযোগ সম্পর্কে তার বক্তব্য রেকর্ড করেন।

দুদক জানিয়েছে, নিয়োগবিধি ১৯৯১ অনুযায়ী তাদের নিয়োগের অনুমোদন নিয়ে প্রথমে লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষার মাধ্যমে নিয়োগের জন্য পদক্ষেপ নিলেও পরবর্তীতে ৭০ নম্বরের এমসিকিউ পদ্ধতিতে পরীক্ষা নেয়া হয়। ‘প্রদর্শক’ শ্রেণীর ক্যাটাগরির দশম গ্রেডের পদগুলোকে তৃতীয় শ্রেণী দেখিয়ে নিজেরা (মাউশি) নিয়োগ দেয়, কিন্তু পদোন্নতির বেলায় পিএসসির মাধ্যমে ২য় শ্রেণী বা দশম গ্রেড দেখিয়ে ক্যাডার সার্ভিসের সঙ্গে আত্মীকরণ করা হয়। এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে অধ্যাপক শাহেদুল খবির চৌধুরী বলেন, আমাদের কাজ নিয়োগ দেই আর পিএসসির দায়িত্ব প্রমোশন দেয়া। সেখানে আমাদের কিছু করার নেই।

দুদক আরও জানিয়েছে, এ সংক্রান্ত নথি পর্যালোচনায় দেখা যায়, নথির নোটশিটে দশম গ্রেডের পদগুলোকে দ্বিতীয় শ্রেণী উল্লেখ করা হলেও মন্ত্রণালয়ের নিয়োগ অনুমোদনের ক্ষেত্রে তা তৃতীয় শ্রেণী দেখিয়ে অনুমোদন নেয়া হয়। এ বিষয়ে একটি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রদান করা হয়। নিয়োগবিধি এবং কমিটির কার্যবিবরণীসহ আরও অভিযোগ সংশ্লিষ্ট কাগজপত্র সরবরাহের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বরাবর অনুরোধ করা হয়।

এনফোর্সমেন্ট টিমের সদস্যরা জানিয়েছে, অভিযোগ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ থেকে নথিপত্র দেয়া হলে সেগুলো যাচাই-বাচাই করবে দুদক। এ বিষয়ে বিস্তারিত অনুসন্ধানের সুপারিশ করে কমিশন বরাবর একটি প্রতিবেদন দাখিল করা হবে।

এদিকে শেরপুর জেলা কারাগারে বন্দীদের কাছ থেকে ঘুষ দারি অভিযোগ পেয়ে অভিযান চালিয়েছে দুদকের আরেকটি টিম। টাঙ্গাইল জেলা সমন্বিত কার্যালয়ের উপসহকারী পরিচালক লতিফ হাওলাদের নেতৃত্বে এ অভিযান চালানো হয়।